ডিবি পরিচয়ে গাড়িতে তুলে ছিনতাই করতো ওরা

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২১ জানুয়ারি ২০২১,   মাঘ ৭ ১৪২৭,   ০৬ জমাদিউস সানি ১৪৪২

ডিবি পরিচয়ে গাড়িতে তুলে ছিনতাই করতো ওরা

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:০১ ৪ ডিসেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৬:০৫ ৪ ডিসেম্বর ২০২০

উদ্ধার করা সরঞ্জামসহ গ্রেফতারকৃতরা

উদ্ধার করা সরঞ্জামসহ গ্রেফতারকৃতরা

ডিবি পুলিশের পরিচয়ে ছিনতাই চক্রের দলনেতাসহ ১০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। যাত্রাবাড়ী এলাকা থেকে গতকাল বৃহস্পতিবার তাদের গ্রেফতার করে ডিএমপির গোয়েন্দা লালবাগ বিভাগের অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও মাদক নিয়ন্ত্রণ টিম।

শুক্রবার ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) উপ-কমিশনার (মিডিয়া) ওয়ালিদ হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

গ্রেফতারকৃতরা হলো- মহসিন শেখ (৩০), আনিছুর রহমান (৫০), সেন্টু মুন্সি (৪০), জুয়েল মিয়া (৩০), শাহিন শেখ (২৫), মহব্বত শেখ (৩২), আবুল কালাম (৫০),  সুলতান মোল্লা (৩৪), হেমায়েত শেখ (৫৫) ও কাইয়ুম শেখ (৪৫)। 

আটকের সময় তাদের থেকে ১টি প্রাইভেটকার, ডিবির জ্যাকেট, ওয়ারলেস সেট, ১ জোড়া হ্যান্ডকাপ ও পুলিশ লেখা স্টিকার উদ্ধার করা হয়।

অভিযানে নেতৃত্ব দেয়া সহকারী পুলিশ কমিশনার মো. ফজলুর রহমান ছিনতাই প্রক্রিয়া সর্ম্পকে জানান, ঢাকা শহরসহ পাশ্বর্বতী এলাকায় রিকশাচালক ও ফেরিওয়ালা সেজে এই চক্রের অন্য সহযোগীরা সরল প্রকৃতির মানুষদের বলে; তারা রাস্তায় বিদেশি রিয়েল পেয়েছে। সে অশিক্ষিত মানুষ, কীভাবে এটা ভাঙাতে হয় জানে না। রিয়েল ভাঙিয়ে দিলে কিছু টাকা দেবে বলে প্রস্তাব দেয়। উপকার হবে ভেবে ওই লোকটি রিয়েল ভাঙিয়ে দিলে রিকশাচালক, ফেরিওয়ালা লোকটির ফোন নম্বর নেয়। পরে ফোনে তারা জানায় তার কাছে আরো রিয়েল আছে। সেগুলো অর্ধেক দামে বিক্রি করবে। এমন প্রলোভনে রাজী হলে টাকা নিয়ে তাদের পছন্দমত জায়গায় নির্দিষ্ট তারিখ ও সময়ে লোকটিকে আসতে বলে।

এদিকে চক্রের অপর একটি দলকে ডিবি পুলিশ সাজিয়ে ওই তারিখ ও সময়ে নির্ধারিত স্থানে পিস্তল, ওয়ারলেস সেট, হ্যান্ডকাপসহ মাইক্রোবাস বা একাধিক প্রাইভেটকারে অপেক্ষা করতে থাকে। অপরদিকে রিকশাচালক, ফেরিওয়ালা কাপড়ে মুড়িয়ে রিয়েলের নামে কাগজ দিয়ে পুলিশ আসছে বলে টাকা না দিয়ে পালিয়ে যায়। এরপর ভুয়া ডিবি দলের সদস্যরা রিয়েল ক্রেতাকে আটক করে তাদের গাড়িতে উঠিয়ে নেয়। তার কাছে অবৈধ রিয়েল আছে, তার বিরুদ্ধে মামলা, মিডিয়ায় প্রচার করার ভয় দেখিয়ে নগদ টাকা, মোবাইল বা অন্যান্য মূল্যবান জিনিস ছিনিয়ে নেয়। পরে রিয়েল ক্রেতাকে সুবিধাজনক স্থানে নামিয়ে দিয়ে অপরাধীরা চলে যায়।

গোয়েন্দার এই কর্মকর্তা আরো জানান, গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ঢাকা শহর ছাড়াও বাংলাদেশের বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা আছে। অপরাধী চক্রের পলাতক ও অন্যান্য সদস্যদের গ্রেফতারে অভিযান চলমান।
 

ডেইলি বাংলাদেশ/ইএ/আরএইচ