যে কারণে সোহাগকে খুন করে কিশোর গ্যাং

ঢাকা, বুধবার   ২১ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ৭ ১৪২৭,   ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

যে কারণে সোহাগকে খুন করে কিশোর গ্যাং

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:১০ ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৭:৫৬ ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০

নিহত সোহাগ

নিহত সোহাগ

রিকশাচালককে পেটানোর প্রতিবাদ করায় রাজধানীর উত্তরায় কলেজ শিক্ষার্থী সোহাগকে (২০) হত্যা করে কিশোর গ্যাংয়ের দুই সদস্য মো. মাহবুবুল ইসলাম ওরফে রাসেল ওরফে কাটার রাসেল (২০) এবং হৃদয়।

মঙ্গলবার দুপুরে কাওরান বাজার র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে কিশোর গ্যাং সম্পর্কে বিস্তারিত জানান র‍্যাব-১ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল শাফী উল্লাহ বুলবুল।

গতকাল সোমবার রাত সাড়ে ৩ টার দিকে দক্ষিণখান মোল্লারটেক এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তাদের থেকে থেকে ২টি বিদেশি পিস্তল, ২টি ম্যাগাজিন ও ৮ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতার কিশোর গ্যাংয়ের দুই সদস্য

সোহাগ হত্যার কথা তুলে ধরে শাফী উল্লাহ বুলবুল জানান, গত ২৭ আগস্ট রাজধানীর উত্তরখান রাজাবাড়ি খ্রিষ্টান-পাড়া রোডের ডাক্তার বাড়ি মোড়ে আড্ডা দেয়ার সময় একটি রিকশার চাকা থেকে কাঁদা ছিটকে গায়ে লাগলে ক্ষিপ্ত হয়ে রিকশা চালককে মারধর করতে থাকে কিশোর দুর্বৃত্তরা। এমন সময় সোহাগ এগিয়ে এসে বাঁধা দিলে হৃদয় ও রাসেলসহ বেশ কয়েকজন মিলে মারধর করে। এরপর ধারালো ছুরি দিয়ে সোহাগের পেটে আঘাত করে পালিয়ে যায় তারা। পরে তাকে হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ঘটনার পরদিন নিহতের বড় ভাই মেহেদী হাসান সাগর বাদী হয়ে উত্তরখান থানায় হত্যা মামলা করেন। ওই মামলায় মাহবুবুল ইসলাম রাসেল ওরফে কাটার রাসেল, হৃদয়, সাদ (২০), সাব্বির হোসেন (২০) ও সানি (২১) এর নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো চার-পাঁচজনকে আসামি করা হয়।

নিহত সোহাগ রাজধানীর উত্তরখান এলাকায় স্থানীয় একটি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিলেন। করোনায় এইচএসসি পরীক্ষা না হওয়ায় টঙ্গীতে দুলাভাইয়ের শুঁটকির ব্যবসায় সহযোগিতা করছিলেন তিনি।

এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত অন্যদের গ্রেফতার করতে অভিযান অব্যাহত আছে। গ্রেফতার আসামির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

ডেইলি বাংলাদেশ/ইএ/আরএইচ/এসআই