আসামি ধরিয়ে দেয়ায় খুন হন সোর্স কাশেম

ঢাকা, শনিবার   ২৪ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ১০ ১৪২৭,   ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

আসামি ধরিয়ে দেয়ায় খুন হন সোর্স কাশেম

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:২১ ১০ সেপ্টেম্বর ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

রাজধানীর শেরে বাংলা নগর থানার পরিকল্পনা কমিশন এলাকার ফুটপাতে মাদক মামলার আসামি ধরিয়ে দেয়ায় পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয় র‍্যাবের সোর্স কাশেমকে। কাশেমকে খুনের ঘটনায় মূল হোতাসহ চারজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতাররা হলো- হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী জাহাঙ্গীর ওরফে রাতুল, রেজাউল, রুবেল ও মাসুদ।

বৃহস্পতিবার ডিএমপির তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ এসব তথ্য জানান।

গত ১ সেপ্টেম্বর শেরে বাংলা নগর থেকে নারী মাদক ব্যবসায়ী নুরজাহান ও তার ছেলেকে গ্রেফতার করে র‍্যাব। আর এতে সহায়তা করে র‍্যাবের সোর্স কাশেম। রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা ও পটুয়াখালীতে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে শেরে বাংলা নগর থানা পুলিশ। এ সময় হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত একটি সুইচ গিয়ার ছুরি উদ্ধার করা হয়।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, গত ১ সেপ্টেম্বর প্রায় ১১শ’ গ্রাম গাঁজাসহ র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার হন এক নারী মাদক ব্যবসায়ী ও তার ছেলে। চল্লিশোর্ধ ওই নারী মাদক ব্যবসায়ীর সঙ্গে অসম ও অসামাজিক সম্পর্কে জড়িত ছিলেন জাহাঙ্গীর হোসেন ওরফে রাতুল (৩২)।

ছবি: সংগৃহীতওই নারী গ্রেফতারের পর রাতুলের ধারণা হয়, তার ধরা পড়ার পেছনে সোর্স কাশেম ওরফে কাইশ্যার (৩৫) হাত রয়েছে। এ কারণে কাশেমকে উচিত শিক্ষা দিতে হত্যার পরিকল্পনা করেন রাতুল। এর জেরেই পরিকল্পিতভাবে গত ৫ সেপ্টেম্বর কাশেমকে খুন করা হয়।

ডিসি হারুন বলেন, গত ৫ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় রাতুলের মামাতো ভাই রেজাউলের সঙ্গে আড্ডা দিচ্ছিলেন পূর্ব-পরিচিত রুবেলের দোকানে। আড্ডার মাঝে এসে যোগ দেন রিকশাচালক মাসুদ। কথা প্রসঙ্গে কাশেমকে শিক্ষা দেয়ার পরিকল্পনা করেন তারা।

এরপর রাতুল ও রুবেলের মোটরসাইকেলে করে চারজন মিলে খুঁজতে থাকেন কাশেমকে। এক পর্যায়ে উড়োজাহাজ ক্রসিং এলাকায় তারা কাশেমকে পেয়ে যান। ধারালো সুইচ গিয়ার বের করে ধাওয়া দিলে প্রাণভয়ে কাশেম দৌড়াতে থাকেন। এরপর পরিকল্পনা কমিশনের সামনের ফুটপাথে কাশেমকে ধরে ফেলেন তারা। সেখানেই সুইচ গিয়ার দিয়ে কাশেমকে উপর্যুপুরি আঘাত করা হয়।

পথচারীরা উদ্ধার করে তাকে সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক কাশেমকে মৃত ঘোষণা করেন। পরদিন গত ৬ সেপ্টেম্বর মৃতের স্ত্রী নাহার বাদী হয়ে শেরে বাংলা নগর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/ইএ/এমআরকে