‘মৃত্যুর ৫ দিন’ পর রোগীকে মৃত ঘোষণা!

ঢাকা, রোববার   ০৫ ডিসেম্বর ২০২১,   অগ্রহায়ণ ২২ ১৪২৮,   ২৮ রবিউস সানি ১৪৪৩

‘মৃত্যুর ৫ দিন’ পর রোগীকে মৃত ঘোষণা!

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:২৮ ২২ জুন ২০১৯   আপডেট: ১৮:৩০ ২২ জুন ২০১৯

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

কিডনিজনিত জটিলতা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন শহীদুল ইসলাম। অবস্থা গুরুতর বলে তাকে আইসিউতে নেয়া হয়। সেখানে তাকে দফায় দফায় ডায়ালাইসিস করা হয়। সব খরচ দেখিয়ে একমাসেই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বিল করে দশ লাখের অধিক টাকা!

রাজধানীর মহাখালীতে ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটেছে। এদিকে পরিবারের অভিযোগ, মুনাফার লোভে মাত্রাতিরিক্ত ডায়ালাইসিসে রোগীর মৃত্যু হয়েছে। তারা বলছে, রোগী আগে মারা গেলেও ৫দিন পর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তা স্বীকার করেছে।
 
অন্যদিকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এসব অভিযোগ অস্বীকার করে ৩ দিন আগে রোগীর পরিবারের বিপক্ষে থানায় জিডির কথা জানিয়েছে।

হাসপাতালের রেকর্ড বলছে, কিডনী রোগী শহীদুল ইসলামকে ২০ দিনে ২৩ বার ডায়ালাইসিস দেয়া হয়েছে। মৃত শহীদুল ইসলামের ছেলের অভিযোগ, মুনাফার লোভে উপর্যুপরি ডায়ালাইসিসেই প্রাণ হারিয়েছেন তার বাবা।

জানা গেছে, গেল মাসে কিডনিজনিত সমস্যা নিয়ে মহাখালীর ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন ষাটোর্ধ্ব শহীদুল ইসলাম। ভর্তির তিন দিন পর বিএসএমএমইউতে স্থানান্তর করতে চাইলেই শারীরিক অবস্থার অবনতির কথা বলে রোগীকে আইসিইউতে নিয়ে যায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। 

এরপর দফায় দফায় ডায়ালাইসিস বাবদ এক মাসেই বিল আসে দশ লাকের অধিক টাকা। পরিবারের অভিযোগ, গেল সোমবার থেকে রোগীর কোনো ধরনের মুভমেন্ট না থাকলেও শুক্রবার রাতে রোগীকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

এ প্রসঙ্গে শহীদুল ইসলামের ছেলে জানান, আমার বাবাকে নিয়ে ১ মাস ৭দিন ধরে উনারা অনেক নাটক এবং ব্যবসা করছে। ডাক্তারকে বললাম, এই বয়সে বাবা এত ডায়ালাইসিস একসঙ্গে নিতে পারবে?

তবে এসব অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়েছে হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. আশিষ কুমার চক্রবর্তী বলেন, এই ধরণের রোগী একবার ভালো হয় আবার অসুস্থ হয়। উনার বাবাকে যতটুকু ট্রিটমেন্ট দেয়া দরকার ততটুক ট্রিটমেন্ট দেয়া হয়েছে। 

আয়েশা মেমোরিয়াল হিসেবে পরিচিত হাসপাতালটির নতুন নাম ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। এর আগেও পুরনো এই হাসপাতালের বিরুদ্ধে অপচিকিৎসার অভিযোগ পাওয়া যায়।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডআর