সমাবেশের নামে নির্বাচনের প্রস্তুতি, সংঘর্ষে জড়াচ্ছে বিএনপি
15-august

ঢাকা, বুধবার   ১৭ আগস্ট ২০২২,   ২ ভাদ্র ১৪২৯,   ১৮ মুহররম ১৪৪৪

Beximco LPG Gas
15-august

সমাবেশের নামে নির্বাচনের প্রস্তুতি, সংঘর্ষে জড়াচ্ছে বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:৪৫ ৩০ ডিসেম্বর ২০২১   আপডেট: ২০:১১ ৩০ ডিসেম্বর ২০২১

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসা ও মুক্তির দাবিতে সারাদেশে সমাবেশ করছে দলটি। দেশের নানা জায়গায় সমাবেশে বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটছে।

বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, দলের চেয়ারপার্সনের চিকিৎসার দাবির চেয়ে সমাবেশে নেতাদের আধিপত্য বিস্তারের মনোভাব বেশি দেখা যাচ্ছে। আগামী নির্বাচনে মনোনয়নকে কেন্দ্র করেই নেতারা শোডাউন করছেন। আর এ কারণেই সংঘর্ষ বেধে যাচ্ছে।

অপর একটি সূত্রে জানা গেছে, খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য এসব সমাবেশের আয়োজন থাকলেও এর উদ্দেশ্য হচ্ছে ভিন্ন। আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতেই এসব সমাবেশ করছে বিএনপির নেতাকর্মীরা।

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিএনপির নেতাদের অংশগ্রহণ এবং সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে খালেদা জিয়ার উপদেষ্টার অংশগ্রহণ থেকে এটা প্রমাণ হয় বলে মন্তব্য করেছেন কয়েকজন রাজনৈতিক বিশ্লেষক।

আরো পড়ুন: যতই আন্দোলনমুখী হচ্ছে বিএনপি, ততই প্রকাশ পাচ্ছে বিভক্তি

এদিকে নির্বাচন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিএনপি রাজনৈতিক কারণে নির্বাচনে অংশ না নেয়ার কথা বলছে। কিন্তু সময়মতো ঠিকই অংশ নেবে। এর আগে সরকারকে কিছুটা চাপে রেখে নির্বাচনকালীন সুবিধা আদায় করার চেষ্টা করছে।

সূত্র জানায়, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান নির্দেশ দিয়েছেন যে, খালেদার চিকিৎসার জন্য সমাবেশ ডেকে নেতাদের জনপ্রিয়তা পরীক্ষা করতে। এজন্যই সারাদেশে বিএনপির নেতারা সংঘর্ষে লিপ্ত হচ্ছেন। স্থানীয় নেতাদের কার শক্তি বেশি, সেটি কেন্দ্রীয় নেতাদের সামনে প্রদর্শন করতে গিয়ে পাল্টাপাল্টি হামলায় লিপ্ত হচ্ছেন তারা।

এরই মধ্যে চট্টগ্রাম, পাবনা, ফরিদপুর ও পটুয়াখালীসহ বিভিন্ন জেলায় নিজেদের মধ্যে সংঘর্ষে জড়িয়েছে বিএনপি। এতে দলের বহু নেতাকর্মী মারাত্মক আহত হয়েছেন।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমরা নির্বাচনমুখী দল। নির্বাচনের পরিবেশ ঠিক করার আন্দোলনের পাশাপাশি অংশ নেয়ার প্রস্তুতিও নিয়ে রাখতে চাই। ম্যাডামের (খালেদা জিয়া) চিকিৎসা এবং নির্বাচনের প্রস্তুতি একই সঙ্গে চলবে।

তবে ফখরুলের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেছেন দলের সিনিয়র ও নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের একজন নেতা। পরিচয় গোপন রাখার শর্তে তিনি বলেন, রাজপথে লড়াই না করে গত নির্বাচনেও বিশ্বাসঘাতক নেতারা অংশ নিয়েছে, আমি নেইনি। এবারও নেব না। আমার কাছে আগে ম্যাডামের মুক্তি। ফখরুল সাহেবরা নির্বাচন করুক, আমি দলের অভ্যন্তরে লড়াই চালিয়ে যাব।

নির্বাচন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিএনপি যতই নির্বাচন বর্জনের কথা বলুক, সময়মতো তারা ঠিকই অংশ নেবে। বিএনপির নেতাকর্মীরা জানে যে, সরকারকে বাধ্য করানোর সামর্থ্য তাদের নেই। আবার ভোটে না গেলে নেতাকর্মী ধরে রাখতে পারবে না।

ফলে এখন মুখে বর্জনের কথা বললেও সারাদেশে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি। তবে এই প্রস্তুতির চেয়ে দলের নেতাকর্মীদের মাঝে সংঘর্ষের ঘটনাই বেশি ঘটছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এএএম/জেডআর/এইচএন

English HighlightsREAD MORE »