আহ্বায়ক কমিটি নিয়ে বেকায়দায় বিএনপির হাইকমান্ড

ঢাকা, বুধবার   ২৮ জুলাই ২০২১,   শ্রাবণ ১৪ ১৪২৮,   ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

আহ্বায়ক কমিটি নিয়ে বেকায়দায় বিএনপির হাইকমান্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:৪৫ ২৫ জুন ২০২১   আপডেট: ১৬:২১ ২৫ জুন ২০২১

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

সাংগঠনিক জেলাগুলোতে আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা নিয়ে বেকায়দায় পড়েছে বিএনপির হাইকমান্ড। নির্ধারিত সময় অনেক আগে পার হলেও এখন পর্যন্ত সব পর্যায়ের কমিটি গঠনের কাজ শেষ করতে পারেনি দলটি।

এদিকে কমিটিগুলোর প্রতি নির্দেশনা রয়েছে, তিন মাসের মধ্যে থানা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের কমিটি গঠন করতে হবে। অথচ গত দুই বছরে ৩৩ জেলায় আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। তবে দুটি জেলা বাদে সবগুলোতেই কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষিত হয়েছে।

জানা গেছে, তৃণমূলকে গতিশীল ও শক্তিশালী করতে সাংগঠনিক জেলাগুলোতে আহ্বায়ক কমিটি গঠন করার সিদ্ধান্ত নেয় বিএনপির হাইকমান্ড। অভিযোগ রয়েছে, ঘোষিত আহ্বায়ক কমিটির নেতারা অনেকেই পরিবার নিয়ে ঢাকায় থাকেন। নিজ নিজ এলাকায় না যেয়ে ঢাকায় বসেই উপজেলা, থানা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের কমিটি গঠন করছেন তারা, যা স্থানীয় নেতারা ভালোভাবে নিচ্ছেন না।

তৃণমূল নেতাদের অভিযোগ, আহ্বায়ক ও সদস্য সচিব বা এক নম্বর যুগ্ম আহ্বায়কের মতো গুরুত্বপূর্ণ পদ নিয়ে জেলায় যান না নেতারা। তারা ঢাকায় অবস্থান করে স্থানীয় নেতাদের ডেকে এনে কমিটি গঠন করছেন। যে কারণে অধিকাংশ জেলায় তৃণমূলের মতামত উপেক্ষিত হচ্ছে। এতে দলের ত্যাগী, যোগ্য ও পরীক্ষিতদের অনেকেই বাদ পড়েছেন।

তারা আরো বলেন, কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুযায়ী- জেলার আহ্বায়ক কমিটি সংশ্লিষ্ট উপজেলা, থানা ও ইউনিয়নে গিয়ে দলীয় নেতাদের সঙ্গে কথা বলে কাউন্সিলের মাধ্যমে কমিটি গঠন করার কথা। কোনো কারণে সেটা সম্ভব না হলে স্থানীয় নেতাদের মতামত নিতে হয়। অথচ অধিকাংশ জেলার নেতারা তা করছেন না। আর এ কারণে এক পক্ষ কমিটি গ্রহণ করলেও আরেক পক্ষ তা প্রত্যাখ্যান করছে।

বিএনপির কেন্দ্রীয় দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স বলেন, কেন্দ্রীয় নির্দেশনা পুরোপুরি বাস্তবায়ন হয়নি- তা বলা যাবে না। মানিকগঞ্জ ও নীলফামারী জেলায় সম্মেলন হয়েছে। এছাড়া ১৭টির মতো জেলায় ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। ২০১৯ সালের জুন থেকে আমরা সাংগঠনিক পুনর্গঠনের কাজ শুরু করেছিলাম। এর ৭ থেকে ৮ মাস পরই তো করোনা মহামারি শুরু হয়ে গেল।

তিনি আরো বলেন, করোনার কারণে দুইবার সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড স্থগিত করা হয়েছে। এখনো স্থগিত আছে। নিজেদের মধ্যে অভ্যন্তরীণ কোন্দল ছাড়াও করোনা মহামারির কারণে কাজগুলো গুছিয়ে নিতে দেরি হচ্ছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এএএম/জেডআর/টিআরএইচ