বনানীতে বিএনপির হঠাৎ মশাল মিছিল, দুর্ভোগে নগরবাসী

ঢাকা, শনিবার   ১০ এপ্রিল ২০২১,   চৈত্র ২৮ ১৪২৭,   ২৬ শা'বান ১৪৪২

বনানীতে বিএনপির হঠাৎ মশাল মিছিল, দুর্ভোগে নগরবাসী

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১০:০৯ ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১   আপডেট: ২০:১৯ ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর নেতৃত্বে রাজধানীর বনানীতে শুক্রবার সন্ধ্যায় হঠাৎ মশাল মিছিল বের করে বিএনপি। এ কারণে সাপ্তাহিক ছুটির দিনেও যানজটের কারণে দুর্ভোগে পড়েন নগরবাসী।

একাধিক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, মাগরিবের নামাজের পর বনানীর কাঁচাবাজার এলাকায় বিএনপির নেতাকর্মীরা জড়ো হন। সেখানে প্রজ্বলিত মশাল হাতে মিছিল নিয়ে কয়েকশ নেতাকর্মী বনানীর কামাল আতাতুর্ক অ্যাভিনিউ পর্যন্ত যান। মিছিল কাকলির দিকে যেতে থাকলে পেছন থেকে পুলিশ ধাওয়া দেয়। এ সময় বিক্ষোভকারীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যান। রুহুল কবির রিজভী দ্রুত গাড়িতে উঠে এলাকা ত্যাগ করেন। ধাওয়ার পর বনানীর রাস্তায় মশালগুলো পড়ে থাকতে দেখা যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির একাধিক নেতা ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, রিজভী হুটহাট যেসব কর্মসূচি পালন করছেন, তা একদম ঠিক নয়। এটা কোনোভাবেই রাজনৈতিক কর্মসূচি হতে পারে না।

তারা বলেন, বিএনপি নিষিদ্ধ দল নয়। তাহলে কেন পালিয়ে-পালিয়ে কর্মসূচি পালন করতে হবে। এসব কর্মসূচিতে দলের যতটুকু লাভ হয়, তার চেয়ে বেশি ক্ষতি হচ্ছে। এর মাধ্যমে দলের জুনিয়র নেতারা বিভিন্ন জায়গায় বিব্রত অবস্থায় পড়ছেন। এতে রাজনীতিতে বিরক্তি আসছে অনেকের।

রিজভীকে উদ্দেশ্য করে তারা আরো বলেন, তিনি যে এলাকায় মিছিল করেন, সেখানকার সংশ্লিষ্ট ইউনিটের দায়িত্বশীল নেতারা তার কর্মসূচি সম্পর্কে কিছুই জানেন না। বিষয়টি কেমন হলো না? তাহলে কী বলবো তিনি ওই এলাকার নেতাদেরকে বিশ্বাস করেন না? আর তার সঙ্গে মিছিলে যে কয়েকজন লোক থাকে, তারাই বা কারা?

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নগর বিএনপির এক নেতা ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, রিজভী আহমেদ দলের যে পদে রয়েছেন, সে পদে থেকে রাজপথে বিক্ষোভ মিছিলের নামে তিনি যে কর্মসূচি পালন করছেন, তা হাস্যকর ছাড়া আর কিছুই নয়। কর্মসূচিই যদি পালন করতে হয় তাহলে সেসব এলাকার বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনসমূহের নেতাদের জানিয়ে করতে পারেন। তাহলে সংশ্লিষ্ট থানা বা ইউনিটের দায়িত্বশীল নেতাদের অস্বস্তিতে পড়তে হয় না। বিএনপি বা তার মতো এতবড় একজন নেতার মিছিলে আরো অনেক বেশি নেতাকর্মী উপস্থিত থাকা উচিত।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিআরএইচ/এইচএন