বিএনপিতে নিষ্ক্রিয় মির্জা আব্বাস-তার পরিবার

ঢাকা, রোববার   ১১ এপ্রিল ২০২১,   চৈত্র ২৮ ১৪২৭,   ২৭ শা'বান ১৪৪২

বিএনপিতে নিষ্ক্রিয় মির্জা আব্বাস-তার পরিবার

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:৪৬ ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১   আপডেট: ১৯:৩৭ ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১

মির্জা আব্বাস ও আফরোজা আব্বাস- ফাইল ফটো

মির্জা আব্বাস ও আফরোজা আব্বাস- ফাইল ফটো

হঠকারী সিদ্ধান্ত, সমন্বয়হীনতা এবং অবমূল্যায়নে বিরক্ত হয়ে দলীয় কার্যক্রম থেকে নিজেদের গুটিয়ে নিয়েছেন বিএনপির অনেক জ্যেষ্ঠ নেতারা। সেই তালিকায় যুক্ত হয়েছেন দলটির প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য মির্জা আব্বাস ও তার স্ত্রী আফরোজা আব্বাস।

সম্প্রতি মির্জা আব্বাস ও তার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্যই পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সভাপতি পদ পেয়ে দলীয় কার্যক্রমে অত্যন্ত সক্রিয় ছিলেন আফরোজা আব্বাস। তাকে রাজনৈতিক কর্মসূচিতে অত্যন্ত সরব দেখা গিয়েছিল।  সভাপতি পদ পেয়ে মহিলা দলের কার্যক্রমকে দৃশ্যমান অবস্থায় নিয়ে আসেন তিনি। কাজেই রাজনীতিতে জনপ্রিয় এবং সক্রিয় বলেই আফরোজা আব্বাসসহ তার ভক্তদের বিশ্বাস ছিল তাকেই সংসদে বিএনপির সংরক্ষিত নারী আসনে মনোনীত করা হবে। কিন্তু সেই বিশ্বাসে গুড়েবালি দেয়া হলে আফরোজা আব্বাসের কর্মীরা ক্ষুব্ধ হয়ে পড়েন। এরপর আফরোজা আব্বাসের সমর্থকগণ ভেবেছলেন যে, মনোনয়ন না দিলেও তাকে দলের কোনো গুরুত্বপূর্ণ পদে তাকে অধিষ্টিত করা হবে। কিন্তু তাও করা হচ্ছে না বিধায় তারা খুবই হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছে।

আফরোজার সমর্থকরা বলছেন, দীর্ঘদিন ধরেই বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত এবং বিএনপির দুঃসময়ে দলে নারী সংগঠনের হাল ধরে রাখা আফরোজা আব্বাসকে একাধিকবার অবমূল্যায়ন করেছে বিএনপি। মনে হচ্ছে, অর্থের কাছে ত্যাগের রাজনীতি বারবার পরাজিত হচ্ছে।

সূত্র বলছে, আফরোজা আব্বাসকে বাদ দিয়ে রুমিন ফারহানার মতো আনকোরা এবং অতিথিকে মনোনয়ন দেয়ায় ক্ষুব্ধ হয়েছে আব্বাস পরিবার। এরপরও বিএনপির প্রতি ভালোবাসার কমতি ছিল না আব্বাস পরিবারের। তবে এতদিনেও স্ত্রীকে যথাযথ মূল্যায়ন না করায় নতুন করে বিএনপির প্রতি অনাস্থা প্রকাশ করেছেন মির্জা আব্বাস। এই ক্ষোভ তারা গোপন রাখেননি, প্রকাশ্যেই তারা এখন তারেক রহমানের সমালোচনা করছেন।

তারা জানান, বিএনপিতে যারা ত্যাগী, দুঃসময়ের সঙ্গী ছিল তারা অবমূল্যায়িত হচ্ছেন। বিএনপির রাজনীতি করবেন কি-না তা অল্প সময়ের মধ্যে স্পষ্ট করবেন আব্বাস দম্পতি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এএএম/এমকেএ/টিআরএইচ/আরএইচ