প্রচারে নেমেই বিক্ষুব্ধদের ধাওয়া খেল বিএনপির প্রার্থী জাহাঙ্গীর

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৪ নভেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১০ ১৪২৭,   ০৭ রবিউস সানি ১৪৪২

প্রচারে নেমেই বিক্ষুব্ধদের ধাওয়া খেল বিএনপির প্রার্থী জাহাঙ্গীর

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১১:১২ ২৪ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ১৩:১৭ ২৪ অক্টোবর ২০২০

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ঢাকা-১৮ আসনের উপ-নির্বাচনে আনুষ্ঠানিক প্রচারে নেমেই দলের বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীদের ধাওয়া খেয়েছেন বিএনপি প্রার্থী এস এম জাহাঙ্গীর হোসেন। 

শুক্রবার প্রতীক পাওয়ার পর জুমার নামাজ শেষে প্রচারে নামেন যুবদল নেতা এস এম জাহাঙ্গীর। কিন্তু পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী একই স্থানে কালো পতাকা মিছিল বের করে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বাসায় ডিম ও পাথর নিক্ষেপের ঘটনায় বহিষ্কৃতরা। এ সময় দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

বিক্ষুব্ধদের অভিযোগ, জাহাঙ্গীরের লোকজন গুলশানে প্রার্থীদের সাক্ষাতের দিন তাদের ওপর হামলা করেছে। কিন্তু উল্টো তারা বহিষ্কার হয়েছেন। তাই বহিষ্কৃতরা জাহাঙ্গীরের বহিষ্কারের দাবিতে এমন কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নেমেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, জুমার নামাজ শেষে এস এম জাহাঙ্গীর তার লোকজন এবং বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের নিয়ে মিছিলসহ প্রচারে বের হন। উত্তরার রবীন্দ্র সরণি রোডে নির্বাচনী মিছিল নিয়ে হাঁটতে থাকেন জাহাঙ্গীর। এ সময় পেছন থেকে কালো পতাকা মিছিল নিয়ে অগ্রসর হতে থাকেন বিক্ষুব্ধরা।

একই সময় কালো পতাকা প্রদর্শন করে জাহাঙ্গীরের বিচারের দাবিতে স্লোগান দিতে থাকে বিক্ষুব্ধরা। কালো পতাকা মিছিলটি সংগ্রাম মোড়ে পৌঁছার আগে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। এ সময় বিএনপির প্রার্থীর মিছিল কিছুটা এলোমেলো হয়ে পড়ে। 

বিক্ষুব্ধ অংশের নেতা মতিউর রহমান বলেন, জাহাঙ্গীরের বহিষ্কার দাবি করে আমরা তার মিছিলের শেষভাগে কালো পতাকা প্রদর্শন করে এগিয়ে যাচ্ছিলাম। এক পর্যায়ে দুই পক্ষের মাঝে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়।

এ সময় বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, হাবিবুর রহমান হাবিব, আব্দুস সালাম, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, হাবিব উন নবী খান সোহেল, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক আমিনুল হক, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপু, নির্বাহী কমিটির সদস্য নাজিম উদ্দিন আলম, রাজিব আহসানসহ আরো অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এএএম/জেডআর/এইচএন