বিএনপির স্থায়ী কমিটির পদ পেতে লাগে দুই কোটি টাকা

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২২ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ৭ ১৪২৭,   ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

বিএনপির স্থায়ী কমিটির পদ পেতে লাগে দুই কোটি টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:৪৮ ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৬:৪৭ ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

টাকার বিনিময়ে পদ-পদবি বিক্রির বিষয়টি বিএনপির রাজনীতিতে ওপেন সিক্রেটের মতো একটি বিষয়ে পরিণত হয়েছে। আগে খালেদা জিয়া পরোক্ষভাবে দলীয় পদ-পদবি নিয়ে বাণিজ্য করতেন। আর এখন সরাসরি পদবাণিজ্য, মনোনয়ন বাণিজ্য করেন তারই বড় ছেলে ও দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। 

জানা গেছে, বিএনপির স্থায়ী কমিটির একাধিক শূন্যপদ বিতরণে তারেকের বিরুদ্ধে কোটি টাকা বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। পদ প্রতি দুই কোটি টাকা করে ডোনেশন (চাঁদা) চেয়েছেন তিনি।

দলটির একাধিক গোপন সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন ধরেই কমিটি বাণিজ্যের অভিযোগে রয়েছে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধে। 

অনেকদিন ধরে স্থায়ী কমিটিতে একাধিক পদ খালি থাকলেও সেটি পূরণ করা হচ্ছে না। 

প্রতিটি শূন্য পদ পূরণের জন্য ইচ্ছুক নেতাদের কাছ থেকে তারেক রহমান মাথাপিছু দুই কোটি টাকা করে দাবি করেছেন। দুই কোটি টাকা যিনি দিতে পারবেন; তাকে স্থায়ী কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করা হবে বলে একাধিক বিএনপি নেতা অভিযোগ করেছেন।

জানা গেছে, তারেক রহমানের চাহিদা পূরণ করে দুই কোটি টাকা চাঁদা দিয়ে স্থায়ী কমিটিতে পদ পেতে যাচ্ছেন একজন ব্যবসায়ী নেতা। গুঞ্জন উঠেছে, বিএনপির ডোনারখ্যাত নেতা আবদুল আউয়াল মিন্টু বিএনপির স্থায়ী কমিটির পদ বাগিয়ে নিচ্ছেন। 

বিএনপির মাঠের রাজনীতিতে সক্রিয় না থাকলেও শুধু পয়সার বিনিময়ে বিএনপির গুরুত্বপূর্ণ পদ পেতে যাচ্ছেন মিন্টু। অর্থ-বিত্তের লোভে যোগ্যতা ও জনপ্রিয়তা যাচাই না করে পদ বিতরণ করা নিয়ে দলটির সিনিয়র নেতাদের মাঝেও দেখা দিয়েছে হতাশা। 

বিশেষ করে আব্দুল্লাহ আল নোমান, শামসুজ্জামান দুদুর মতো ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতারা শুধুমাত্র অর্থ দিতে না পারায় স্থায়ী কমিটির পদ পাচ্ছেন না বলেও গুঞ্জন উঠেছে।

অর্থের কাছে নীতি-নৈতিকতার পরাজয় ঘটলে আগামীতে বিএনপির রাজনীতিতে নীতিবান নেতা খুঁজে পাওয়া যাবে না বলেও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন দলটির বঞ্চিত নেতারা।

ডেইলি বাংলাদেশ/এএএম/এমআরকে/এইচএন