গণফোরামে ফের উত্তেজনা

ঢাকা, শনিবার   ২৪ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ৯ ১৪২৭,   ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

গণফোরামে ফের উত্তেজনা

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:০৯ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৬:২৪ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

করোনা পরিস্থিতিতে বন্ধ থাকা রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড চালু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ফের উত্তেজনা দেখা দিয়েছে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন গণফোরামে। 

দীর্ঘদিনের বিভেদের জেরে দলটির একটি অংশ বর্ধিত সভা ডাকায় পাল্টা কমিটি হওয়ারও আশঙ্কা রয়েছে। 

জানা গেছে, দলটির বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মোহসীন মন্টু, নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী ও অধ্যাপক আবু সাইয়িদের নেতৃত্বে আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর প্রেসক্লাবে বর্ধিত সভা ডাকা হয়েছে। 

সুব্রত চৌধুরীর নেতৃত্বে কয়েকজন নেতা সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) এই বর্ধিত সভায় দাওয়াত দিতে ড. কামাল হোসেনের বাসায় যান। এর একদিন পরই ২২ সেপ্টেম্বর বিকেলে ড. কামাল হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক রেজা কিবরিয়ার নামে (একদিন আগের তারিখ ২১ সেপ্টেম্বর দিয়ে) একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পাঠানো হয়েছে।

ওই সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, সকলের অবগতির জন্য জানানো যাইতেছে যে, আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ তারিখ শনিবার সকাল ১০ ঘটিকায় জাতীয় প্রেসক্লাবে গণফোরামের নামে আহুত কথিত বর্ধিত সভার সঙ্গে গণফোরামের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।

জানতে চাইলে অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী বলেন, ড. রেজা কিবরিয়া গণফোরামকে শেষ করে দিচ্ছেন। ১৮ মাস ধরে তিনি অফিসে আসেন না। কোনো কাজও করেন না। আমরা মিটিং ডাকতে বললে তাও ডাকেন না।

মিটিংয়ে ড. কামাল হোসেনকে দাওয়াত দিয়েছেন কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, দাওয়াত দিয়েছি, দেখাও করেছি। সোমবার আমি বাসায় গিয়েছিলাম, কথা হয়েছে। তিনি বললেন, আসবেন। তার মধ্যে আবার দেখি সোমবারের তারিখ দিয়ে মঙ্গলবার প্রেস রিলিজ পাঠিয়েছে। তার মানে কি, আগেই রেডি ছিল। আমাকে বললো মীমাংসা করবে। পাল্টাপাল্টির দরকার নেই। মানে আমাদের সঙ্গে যখন বলে খুব ভাল। আবার ওরা গিয়ে যখন বলে…, আসলে বয়স হয়ে গেছেতো, মনে রাখতেও পারেন না।

পাল্টা কমিটি করবেন কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা কী করবো সেটা ২৬ তারিখের মিটিংয়ের পরে বোঝা যাবে।

কমিটি রেডি আছে কি না, এমন প্রশ্নে হাসি দিয়ে সুব্রত চৌধুরী বলেন, আপনারাতো অনেক রকম প্রশ্ন করতে পারেন। তবে আমরা গণফোরাম করবো নাকি অন্য কিছু করবো সেটা ২৬ তারিখেই বলবো।

এ বিষয়ে ড. রেজা কিবরিয়া বলেন, সুব্রত চৌধুরী ও সাবেক সেক্রেটারি মোস্তফা মহসীন মন্টু মিটিং ডেকেছেন। তাদেরতো মিটিং ডাকার রাইট নেই। সেক্রেটারি ছাড়া কেউ মিটিং ডাকতে পারে না। এমনিতেই আমরা করোনা ভাইরাসের কারণে কোনো মিটিং ডাকছি না। আগামী জুন পর্যন্ত এটা থাকবে। এক মাসে করোনা শেষ হচ্ছে না। তারা মিটিং ডাকছে এগুলো সবই অবৈধ। গঠনতন্ত্রে সেক্রেটারি ছাড়া কেউ মিটিং ডাকতে পারে না। আমি করোনা ভাইরাসের জন্যে কোনো মিটিং ডাকছি না। তাদের ছোট একটা গ্রুপ এটা করছে। এটা কোনো সিরিয়াস ব্যাপার না।

আপনার বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ রয়েছে শুনে ড. রেজা কিবরিয়া বলেন, সেটা ঠিক আছে। আমি মিটিং ডাকি না, কিছু করি না, এসব অভিযোগ চেজ করতে রাজি আছি। আমি করোনার মধ্যে কোনো মিটিং ডাকবো না। আমি তাদের বুদ্ধিতে চলি না। আমি জানি এখন বড় একটা মিটিং ডাকা দেশ ও দলের জন্য ক্ষতিকর।

তিনি বলেন, সুব্রত চৌধুরী, মন্টু, আবু সাইয়িদসহ অনেক সিনিয়র নেতাসহ বসেছিলাম। সেই বৈঠকে আমাদের সিনিয়র নেতা মফিজ কামালের প্রস্তাবে কমিটি ভেঙে আহ্বায়ক কমিটি করা হয়েছিল। সেই কমিটিতে সুব্রত চৌধুরী ও মন্টু নেই। যার ফলে এত সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে বলেও জানান তিনি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এএএম/এমআরকে/এইচএন