প্রমথ চৌধুরীর ১৫৩তম জন্মবার্ষিকী আজ

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৯ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ৫ ১৪২৮,   ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

প্রমথ চৌধুরীর ১৫৩তম জন্মবার্ষিকী আজ

শিল্প ও সাহিত্য ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:০৯ ৭ আগস্ট ২০২১   আপডেট: ১৫:৩৫ ৭ আগস্ট ২০২১

১৮৬৮ সালের ৭ আগস্ট পাবনার চাটমোহর উপজেলার হরিপুর গ্রামে স্থানীয় জমিদার বংশে জন্মগ্রহণ করেন বাংলা সাহিত্যে চলিত গদ্যরীতির প্রবর্তক প্রমথ চৌধুরী।

১৮৬৮ সালের ৭ আগস্ট পাবনার চাটমোহর উপজেলার হরিপুর গ্রামে স্থানীয় জমিদার বংশে জন্মগ্রহণ করেন বাংলা সাহিত্যে চলিত গদ্যরীতির প্রবর্তক প্রমথ চৌধুরী।

বাংলা সাহিত্যে চলিত গদ্যরীতির প্রবর্তক যাকে বলা হয়, আজ ৭ আগস্ট তার জন্মদিন। তার নাম প্রমথ চৌধুরী। ১৮৬৮ সালের এদিন পাবনা জেলার চাটমোহর উপজেলার হরিপুর গ্রামে স্থানীয় জমিদার বংশে জন্মগ্রহণ করেন। বাবা দুর্গাদাস চৌধুরী এবং মাতার নাম মগ্নময়ী দেবী। 

প্রমথ চৌধুরী কলকাতার হেয়ার স্কুল থেকে এন্ট্রান্স, কলকাতা প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে দর্শনশাস্ত্রে প্রথম শ্রেণিতে বিএ পাস এবং ইংরেজিতে প্রথম শ্রেণিতে এমএ পাস করেন। তার শিক্ষা জীবন ছিল অত্যন্ত কৃতিত্বপূর্ণ। ১৮৯৩ সালে ইংল্যান্ডে যান এবং তিনি সেখান থেকে কৃতিত্বের সঙ্গেই ব্যারিস্টারি পাস করেন।

কর্মজীবনে কিছুকাল তিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের অধ্যাপনা ছাড়াও সরকারের উচ্চপদে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুরের কন্যা ইন্দিরা দেবীকে বিয়ে করেন। সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর ছিলেন কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ভাই। সুতরাং সে হিসেবে রবীন্দ্রনাথের ভ্রাতুষ্পুত্রী-জামাতা ছিলেন প্রমথ চৌধুরী। লেখালেখির প্রতি অতিরিক্ত আগ্রহের কারণে তিনি সরকারি চাকরি ছেড়ে বিখ্যাত 'সবুজপত্র' পত্রিকার সম্পাদকের দায়িত্ব গ্রহণ করেন এবং কৃতিত্বের সঙ্গে পালন করেন।

সাহিত্য অঙ্গনে প্রমথ চৌধুরীর ছদ্মনাম ‘বীরবল’। বাংলা সাহিত্যের ‘বীরবল’ও বলা হতো তাকে। এ নামেই পত্রিকা জগতে বেশ পরিচিত ছিলেন, কারণ তিনি এ নামেই পত্রিকার পাতায় লেখালেখি করতেন। সম্রাট আকবরের দরবারে নবরেত্নর একজন ছিলেন বীরবল আর বাংলাসাহিত্যে প্রমথ চৌধুরীও তেমনি এক রত্ন।

প্রমথ চৌধুরীকে বাংলাসাহিত্যে বিংশ শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ প্রাবন্ধিক ও সাহিত্য সমালোচক। ছিলেন বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী। প্রবন্ধ রচনা ও সাহিত্য সমালোচনার পাশাপাশি কবিতা, গল্প, চুটকি রচনায় খুব পারদর্শী ছিলেন। ব্যঙ্গাত্মক রচনাতেও তার জুড়ি নেই এবং তার কবিতাগুলো ছিল খুবই বাস্তববাদী এবং রূঢ়।

তিনি বলেছিলেন, ‘ভাষা মানুষের মুখ থেকে কলমের মুখে আসে, কলমের মুখ থেকে মানুষের মুখে নয়।’ সেই সময়কার জনপ্রিয় ‘সবুজপত্র’ পত্রিকার স্বনামধন্য সম্পাদক ছিলেন। ‘সবুজপত্র’ পত্রিকার সম্পাদকের দায়িত্ব বেশ সফলভাবে পালন করেন। তার ‘সবুজপত্র’ পত্রিকার মাধ্যমে তিনি নব্য লেখকদের একটি শক্তিশালী সংঘ তৈরি করেছিলেন। এ পত্রিকার মাধ্যমে সাহিত্যের বিকাশে তিনি ব্যাপকভাবে অবদান রাখেন এবং তরুণ প্রজন্মের লেখক ও পাঠকদের কাছে খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠেন।

তার উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ: বীরবলের হালখাতা, রায়তের কথা, চার-ইয়ারি কথা, আহুতি, নীললোহিত, সনেট পঞ্চাশৎ, পদাচরণ ইত্যাদি। প্রমথ চৌধুরী ১৯৪৬ সালের ২ সেপ্টেম্বর কলকাতায় পরলোকগমন করেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম/জেএইচএফ