ঢাকা, রোববার ২১ জানুয়ারি, ২০১৮
শিরোনাম:
প্রধানমন্ত্রী ২ ফেব্রুয়ারি পদ্মা সেতু পরিদর্শনে যাবেন। রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে জাতিসংঘের বিশেষ দূত রোববার ৪০০০তম পাড়াকেন্দ্র উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী উত্তরের কয়েক জেলায় মৃদু ভূমিকম্প, মাত্রা ছিল ৪ দশমিক ৫ উখিয়ায় রোহিঙ্গা শিবিরে গুলিতে নিহত ১ যশোরে পৃথক ‌ঘটনায় চার `ডাকাত` নিহত ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে চলছে আমবয়ান
শিরোনাম:
প্রধানমন্ত্রী ২ ফেব্রুয়ারি পদ্মা সেতু পরিদর্শনে যাবেন। রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে জাতিসংঘের বিশেষ দূত রোববার ৪০০০তম পাড়াকেন্দ্র উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী উত্তরের কয়েক জেলায় মৃদু ভূমিকম্প, মাত্রা ছিল ৪ দশমিক ৫ উখিয়ায় রোহিঙ্গা শিবিরে গুলিতে নিহত ১ যশোরে পৃথক ‌ঘটনায় চার `ডাকাত` নিহত ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে চলছে আমবয়ান...

যে তিন সময়ে নামাজ পড়া হারাম

 ধর্ম ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১১:৪৭, ৮ ডিসেম্বর ২০১৭

আপডেট: ২০:৫১, ৮ ডিসেম্বর ২০১৭

৩৯৭৮১ বার পঠিত

ছবি সংগৃহীত

ছবি সংগৃহীত

নামাজ বেহেস্তের চাবিকাঠি। ফরজ নামাজ ছাড়া অনেক নফল নামাজ আদায়ের কথাও উল্লেখ আছে হাদিসে। যে যত বেশি নামাজ আদায় করবে, পরকালীন সফলতা তার তত বেশি।

মুসলমানদের জন্য দিন-রাতে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়া ফরজ। ফরজ নামাজ আদায়ের নির্ধারিত পাঁচটি সময় থাকলেও নফল নামাজের জন্য সময়ের কোনো সীমাবদ্ধতা নেই। যখন ইচ্ছা পড়া যাবে। তবে কিছু সময় এমন আছে যখন নামাজ পড়া সম্পূর্ণরূপে হারাম। আর কিছু সময় এমন আছে যাতে নির্ধারিত কিছু নামাজ পড়া মাকরুহ।

 

সাহাবি উকবা বিন আমের জুহানী (রা:) বলেন, তিনটি সময়ে হযরত মুহম্মদ (সা:)- আমাদেরকে নামাজ পড়তে এবং মৃতের দাফন করতে নিষেধ করতেন। সূর্য উদয়ের সময়; যতক্ষণ না তা পুরোপুরি উঁচু হয়ে যায়। সূর্য মধ্যাকাশে অবস্থানের সময় থেকে নিয়ে তা পশ্চিমাকাশে ঢলে পড়া পর্যন্ত। যখন সূর্য অস্ত যায়’। [সুবুলুস সালাম : ১/১১১, মুসলিম : ১/৫৬৮]

উক্ত হাদিসের বলা হয়েছে, নামাজের নিষিদ্ধ সময় তিনটি। যথা-

(১) সূর্য যখন উদিত হতে থাকে এবং যতক্ষণ না তার হলুদ রঙ ভালোভাবে চলে যায় ও আলো ভালোভাবে ছড়িয়ে পড়ে। এরজন্য আনুমানিক ১৫-২০ মিনিট সময় প্রয়োজন হয়।

(২) ঠিক দ্বিপ্রহরের সময়; যতক্ষণ না তা পশ্চিমাকাশে ঢলে পড়ে।

(৩) সূর্য হলুদবর্ণ ধারণ করার পর থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত।

উল্লিখিত তিন সময়ে সব ধরনের নামাজ পড়া নিষেধ। চাই তা ফরজ হোক কিংবা নফল। ওয়াজিব হোক বা সুন্নতে মুয়াক্কাদা। এ সময়ে শুকরিয়ার সিজদা এবং অন্য সময়ে পাঠকৃত তিলাওয়াতের সিজদাও নিষিদ্ধ। তবে এই সময়ে জানাজা উপস্থিত হলে বিলম্ব না করে তা পড়ে নেয়া যাবে। ঠিক তদ্রুপ কেউ যদি ওই দিনের আসরের নামাজ সঠিক সময়ে পড়তে না পারে তাহলে সূর্যাস্তের আগে হলেও তা পড়ে নিতে হবে। কাযা করা যাবে না।

কারণ হযরত মুহম্মদ (সা:) ইরশাদ করেন, যে ব্যক্তি সূর্যাস্তের পূর্বে আসরের এক রাকাত পড়তে পারলো সে পুরো আসরের নামাযই পেলো।

অন্য হাদিসে আরো দুই সময়ে নামায পড়ার নিষেধাজ্ঞা এসেছে। সাহাবি আবু সাঈদ খুদরী (রা:) বলেন, আমি হযরত মুহম্মদ (সা:)-কে বলতে শুনেছি, ফজরের নামাযের পর থেকে সূর্যোদয় পর্যন্ত কোনো নামাজ নেই। আসরের নামাযের পর থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত কোনো নামায নেই। [মুসলিম : ৮২৭]

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএজে

সর্বাধিক পঠিত
ওপরে যেতে