Exim Bank Ltd.
ঢাকা, মঙ্গলবার ২০ নভেম্বর, ২০১৮, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

সাকাজেয়ি

এক সাহসী আদিবাসীর উপাখ্যান

মেহেদী হাসান শান্তডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম
এক সাহসী আদিবাসীর উপাখ্যান
ছবি: সংগৃহীত

মেয়েটির নাম সাকাজেয়ি। হয়তো তার নাম শুনে থাকবেন! সাকাজেয়িকে যারা চেনেন, তাদের ধারণা সে এক অভিজ্ঞ গাইড যে কি-না বিখ্যাত লুইস অ্যান্ড ক্লার্ক অভিযানে তাদের সাহায্য করে। তবে মেয়েটির সম্পর্কে ধোঁয়াশা কেনো? জেনে নিন সাকাজেয়িয়ের সত্যি ঘটনার আদ্যোপান্ত-

সাকাজেয়ির শৈশব সম্পর্কে যথার্থ তথ্য পাওয়া না গেলেও ১৭৮৮ সালে যুক্তরাষ্ট্রের আইডাহোর আদিবাসি শোশোনি গোত্রের আগাইদিকা (মাছ খোকো) পরিবারে তার জন্ম। সাকাজওয়ের বয়স তখন ১২। একদিন অারেক আদিবাসি গোত্র হিদাতসাদের সঙ্গে এক সংক্ষিত লড়াইয়ের পর অারো কযেকজন বান্ধবী আর নারী ও শিশুসহ সাকাজেয়িকে হিদাতসা গ্রামে নিয়ে যাওয়া হল। ১৩ বছর বয়ের তাকে বিক্রি করে দেয়া হয় তুসো শার্বোনে নামক এক ফরাসি ট্র্যাপারের (অর্থের বিনিময়ে গাইডের কাজ করা) কাছে।

তুসোর "স্ত্রী" হওয়ার এক বছরের মধ্যেই সাকাজেয়ি গর্ভবতী হন। এরমধ্যেই হিদাতসার নদী তীরে এসে অবস্থান নেন ক্যাপ্টেন মেরিওয়েদার লুইস এবং উইলিয়াম ক্লার্ক। তারা সেখানে ম্যান্ডেন দুর্গ স্থাপন করলেন। মিসৌরি নদী দিয়ে অভিযান চালানোর জন্য তারা স্থানীয় কয়েকজন ট্র্যাপারের সঙ্গে কথা বলেন। তারা তুসোকে বাছাই করলেন। আর আদিবাসীদের ভাষা অনুবাদ করার জন্য গর্ভবতী সাকাজওয়েও তাদের সঙ্গে যাবেন বলে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

১৮০৩ সালে যুক্তরাষ্ট্র ফ্রান্সের থেকে ৫ কোটি ফ্রাঙ্কের বিনিময়ে লুইজিয়ানা অঞ্চলটি কিনে নেয়। নতুন এই অঞ্চলটির সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য, এখানকার অধিবাসি এবং অঞ্চলের ভূতাত্ত্বিক ও কৃষিগত বিশ্লেষণ করার জন্য একটি ছোট সেনাদল তৈরি করা হয়। এর নেতৃত্বে ছিলেন ক্যাপ্টেন লুইস এবং লেফটেন্যান্ট ক্লার্ক। ১৮০৪ থেকে ১৮০৬ সাল পর্যন্ত এটি কার্যরত ছিল। তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট থমাস জেফারসন ছিলেন এই কর্পের মূল উদ্যোক্তা। পরে এই অভিযানের নামকরণ হয় কর্পস অব ডিসকোভারি।

তো এবার মূল গল্পে ফিরে আসা যাক। কিছুদিন পরেই সাকাজেয়ি একটি ফুটফুটে পুত্রসন্তানের জন্ম দিলেন। সন্তানের নাম রাখা হলো জাঁ ব্যাপ্টিস্ট শার্বোনে। ক্যাপ্টেন ক্লার্ক শিশুটির নাম দিলেন পম্পি। সন্তানকে কাঁধে ঝুলিয়ে সাকাজেয়ি শুরু করলেন তার অভিযান। রেড ইন্ডিয়ানদের কাছে ক্যাপ্টেনদের মুখপাত্র হয়ে কাজ করা ছাড়াও সাকাজেয়ি ‘কর্পস অফ ডিসকভারি’র জন্য স্থানীয় এলাকা থেকে খাদ্য শস্য ও ফলমূল সংগ্রহের কাজও করতেন। ১৮০৫ সালে একটা নৌকা দিয়ে চলার সময় ক্যাপ্টেনদের নৌকাটি উল্টে যায়, সাকাজেয়ি তৎক্ষণাৎ পানিতে ডুব দিয়ে প্রয়োজনীয় সব গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র উদ্ধার করেন। অভিযানের একপর্যায়ে রেড ইন্ডিয়ানদের একটি দলের মধ্যে সাকাজেয়ি নিজের ভাইকে আবিস্কার করেন।

অপহরণের ৫ বছর পর আপন ভাইকে দেখে আবেগে আপ্লুত হলেও অভিযানের নেশায় সাকাজেয়িকে অল্প কিছুক্ষণের মধ্যেই তার বাহুডোর থেকে মুক্ত হতে হয়। অভিযানের একপর্যায়ে সকলেই প্রচণ্ড ঠাণ্ডায় কাবু হয়ে যায়। ঠান্ডার প্রকোপ এতটাই বেশি ছিল যে সবাইকে বাধ্য হয়ে মোম খেতে শুরু করে!তাপমাত্রা সহনীয় হলে সাকাজেয়ি দলের জন্য মাটির ভেতর থেকে খাবারযোগ্য শাঁসযুক্ত মূল বের করে সকলের খাদ্যের যোগান দেন।

অভিযান থেকে ফেরার পথে এক রেড ইন্ডিয়ান এর গায়ে সুন্দর এক পশমী কাপড় দেখে ক্যাপ্টেনরা সেটিকে প্রেসিডেন্ট জেফারসনের জন্য উপহার হিসেবে নিয়ে যেতে চাইলেন। কিন্ত বিনিময়ে তাদের কাছে দেয়ার মতো কিছু ছিল না। তখন সাকাজেয়িতার রত্নখচিত কোমর বন্ধনীটি দিয়ে সেটি কিনে নেয়। কর্পস অফ ডিসকভারিতে সাকাজেয়ির দীর্ঘ ২ বছর এর অভিযান সেন্ট লুইসে গিয়ে শেষ হয়। এই সাহসী বীর নারীর মৃত্যুর সময় নিয়েও সংশয়ে রয়েছে। উইকিপিডিয়ার তথ্য মতে, ১৮১২ সালের ২০ ডিসেম্বর অথবা ১৮৮৪ সালে ৯ এপ্রিল তিনি দক্ষিণ ডাকোটাতে মৃত্যুবরণ করেন।

বর্তমান সময়ে মার্কিন ইতিহাসের বইগুলোতে সাকাজেয়িকে একজন বীরাঙ্গনা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র পূনর্গঠনের অভিযানে তার অবদানের তুলনায় তার পরিচিতি খুবই সামান্য। ২০০১ সালে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন সাকাজেয়িকে মার্কিন সেনাবাহিনীর অনারারি সার্জেন্ট হিসেবে ভূষিত করেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস/এসজেড

আরোও পড়ুন
সর্বাধিক পঠিত
পুলিশের গাড়ি ভাঙায় ছাত্রদল নেতা বহিষ্কার
পুলিশের গাড়ি ভাঙায় ছাত্রদল নেতা বহিষ্কার
আবারো মা হচ্ছেন কারিনা!
আবারো মা হচ্ছেন কারিনা!
ফরজ গোসলের সঠিক নিয়ম
ফরজ গোসলের সঠিক নিয়ম
নির্বাচন একমাস পেছানোর আশ্বাস দিয়েছে ইসি: ড. কামাল
নির্বাচন একমাস পেছানোর আশ্বাস দিয়েছে ইসি: ড. কামাল
কাজলকে ‘জোর করে’ চুমু, ছিল অশ্লীল আচরণ!
কাজলকে ‘জোর করে’ চুমু, ছিল অশ্লীল আচরণ!
বিএনপিতে যোগ দিলেন সৈয়দ আলী
বিএনপিতে যোগ দিলেন সৈয়দ আলী
বিএনপির কার্যালয়ে ছিনতাইয়ের কবলে ফটোসাংবাদিক
বিএনপির কার্যালয়ে ছিনতাইয়ের কবলে ফটোসাংবাদিক
প্রধানমন্ত্রীর আসনে প্রার্থী দেবে না ড. কামাল
প্রধানমন্ত্রীর আসনে প্রার্থী দেবে না ড. কামাল
ভাবীর শরীরে দেবরের ‘আপত্তিকর’ স্পর্শ
ভাবীর শরীরে দেবরের ‘আপত্তিকর’ স্পর্শ
তাহলে কি এখনো তারা স্বামী-স্ত্রী?
তাহলে কি এখনো তারা স্বামী-স্ত্রী?
ফারহানার স্বপ্নের মৃত্যু
ফারহানার স্বপ্নের মৃত্যু
বাড়িতে বাবার লাশ, ছেলে পরীক্ষার হলে
বাড়িতে বাবার লাশ, ছেলে পরীক্ষার হলে
মুম্বাইতে ‘তারা’
মুম্বাইতে ‘তারা’
স্বপ্ন পূরণ হলো গোপালগঞ্জবাসীর
স্বপ্ন পূরণ হলো গোপালগঞ্জবাসীর
মির্জা ফখরুলকে ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম ছাত্রলীগের
মির্জা ফখরুলকে ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম ছাত্রলীগের
লাল শাড়িতে চীনে ঐশী!
লাল শাড়িতে চীনে ঐশী!
মেয়ের সামনেই বেডরুম ‘সিক্রেট’ ফাঁস করলেন সাইফ
মেয়ের সামনেই বেডরুম ‘সিক্রেট’ ফাঁস করলেন সাইফ
যে তারকারা কিনেছেন বিএনপির মনোনয়ন ফরম
যে তারকারা কিনেছেন বিএনপির মনোনয়ন ফরম
‘নৌকার মনোনয়ন পাবে জরিপে অগ্রগামীরা’
‘নৌকার মনোনয়ন পাবে জরিপে অগ্রগামীরা’
কে হবেন প্রধানমন্ত্রী? জানালেন ড. কামাল
কে হবেন প্রধানমন্ত্রী? জানালেন ড. কামাল
শিরোনাম:
মাদার অব হিউম্যানিটি সমাজকল্যাণ পদক নীতিমালা ২০১৮ এর খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা মাদার অব হিউম্যানিটি সমাজকল্যাণ পদক নীতিমালা ২০১৮ এর খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা জিয়া অরফানেজ ট্রাষ্ট দুর্নীতি মামলায় হাইকোর্টের দেয়া ১০ বছরের সাজার রায় স্থগিত চেয়ে আপিল বিভাগে আবেদন করেছেন খালেদা জিয়া জিয়া অরফানেজ ট্রাষ্ট দুর্নীতি মামলায় হাইকোর্টের দেয়া ১০ বছরের সাজার রায় স্থগিত চেয়ে আপিল বিভাগে আবেদন করেছেন খালেদা জিয়া চীন-মার্কিন দ্বন্দ্ব: যৌথ বিবৃতি ছাড়াই শেষ অ্যাপেক সম্মেলন চীন-মার্কিন দ্বন্দ্ব: যৌথ বিবৃতি ছাড়াই শেষ অ্যাপেক সম্মেলন দ্বিতীয় দিনের মতো চলছে বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার; বিএনপির ইশতেহারে থাকবে দুর্নীতিমুক্ত উন্নয়ন পরিকল্পনা: আমির খসরু দ্বিতীয় দিনের মতো চলছে বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার; বিএনপির ইশতেহারে থাকবে দুর্নীতিমুক্ত উন্নয়ন পরিকল্পনা: আমির খসরু