ঢাকা, শুক্রবার   ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯,   ফাল্গুন ৯ ১৪২৫,   ১৬ জমাদিউস সানি ১৪৪০

যেসব দেশে কোনো নদী নেই

ফাতিমাতুজ্জোহরা

 প্রকাশিত: ১৭:১৩ ১৭ জুলাই ২০১৮   আপডেট: ১৭:১৩ ১৭ জুলাই ২০১৮

দুনিয়ার বড় বড় সভ্যতা ও নামীদামী শহরগুলো নদীর তীরে গড়ে উঠেছে। কিন্তু পৃথিবীতে এমন কিছু দেশ আছে যেখানে নেই কোনো নদী, নেই জলের স্রোত। আর নদীহীন সেসব দেশগুলোকেই বর্তমানে পৃথিবীর ধনীদেশ বলে মানা হয়।

সৌদিআরব



নদী নেই ধনী এই দেশটিতে। মধ্য প্রদেশের এই দেশটি একটি মুসলিমপ্রধান দেশ। যাকে ইসলামিক রাষ্ট্রও বলা হয়ে থাকে। এদেশের পশ্চিম দিকে লাল সাগর রয়েছে। দক্ষিণ দিকে ওমান এবং ইয়েমেন দেশ রয়েছে। উত্তর দিকে জর্ডান এবং ইরানের সীমানা। আর পূর্বদিকের দেশটি হলো কুয়েত। অগণিত খেজুরগাছ এদেশের পরিচয় বহন করে। রিয়াদ সোদিআরবের রাজধানী। এটি সে দেশের সব থেকে বড় শহর। এদেশের মাতৃভাষা আরবি।  মোট আয়তন ২ কোটি ১০ লাখ ৩৯, হাজার ৬০০ কিলোমিটার। যেটি ৮০ লাখ ৩০ হাজার স্কয়ার মাইলের সমান। এদেশ বিশ্বের দিক থেকে আয়তনে ১২তম স্থানে রয়েছে। অবাক করা বিষয় হলো, এদেশে জলের শতাংশ খুবই কম। মাত্র শূন্য দশমিক ৭ শতাংশ। এ দেশের যে দিকে তাকাবেন শুধুই মরুভূমি আর মাঠ। তবুও এ দেশের জনসংখ্যা প্রায় ৩ কোটি ৩০ লাখ। জনসংখ্যার দিক দিয়ে এ দেশের অবস্থান ৪০তম। এ দেশে বালি ও মরুভূমি থাকার পরও এ দেশের জিডিপি (গ্রস ডোমেস্টিক প্রোডাক্টস) অনেক বেশি। ২০১৭ সাল অনুসারে এ দেশের জিডিপি দাঁড়ায় ১ দশমিক ৮ ত্রিলিয়ন আমেরিকান ডলার। যা বিশ্বের দিক থেকে ৪০ তম স্থানে রয়েছে। সৌদি রিয়াল এ দেশের মুদ্রার নাম। এ দেশের গাড়ি হাতের ডান দিক থেকে চালানো হয়। আপনি যদি ভারতীয় হন এবং সৌদি আরবে ঘুরতে যান তবে যাওয়া আসার সময় সাবধানে যাবেন। রোড ক্রোস করার সময় ঠিক করে নিবেন কোন দিকে যাবেন। ডান দিকে যাবেন না কি বাম দিকে যাবেন।
 
ওমান



নদী ছাড়া দেশের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ওমান। এ দেশটি আরবের দক্ষিণ পূর্ব দিকে অবস্থিত একটি ছোট দেশ। এ দেশের দ্বিতীয় নাম সালতানান ওমান। এর পূর্ব দিকে সৌদি আরব এবং দক্ষিণ দিকে আরব সাগরের সীমানা রয়েছে। উত্তর দিকে রয়েছে ইউএই। মাস্কান এই দেশের রাজধানী এবং বৃহত্তর শহর। এ দেশের ভাষাও আরবি।  নদীহীন ওমানের যে দিকে তাকাবেন শুধু মরুভূমি দেখতে পাবেন। এ দেশের মোট আয়তন ৩০ লাখ ৯ হাজার ৫০০ বর্গ কিলোমিটার। যা বিশ্বের আয়তনের দিক থেকে ৭০তম স্থানে রয়েছে। সালের আদমশুমারি অনুসারে এদেশে ৪ লাখ ৪৩ হাজার ৭০০ জন জনসংখ্যা রয়েছে ২০১৬। জনসংখ্যার দিক দিয়ে এদেশের অবস্থান ১২৫তম। এ দেশের জিডিপি’র হার ১৯০ বিলিয়ন আমেরিকান ডলার। যার পার ক্যাপিটা ৪৬ হাজার ইউ এস ডলার।

কাতার



মধ্য প্রদেশের ছোট একটি দেশ কাতার। এ দেশটিও নদীর মুখ দেখেনি। বর্তমান সময়ের খুবই উন্নত দেশ কাতার। প্রতি বছর হাজার হাজার মানুষ কর্মসংস্থানের উদ্দেশে সেদেশে পাড়ি জমাচ্ছেন। দোহার এ দেশের রাজধানীর নাম এবং এটি এ দেশের সব থেকে বড় শহর। সৌদিআরব ও ওমানের মতো এ দেশের প্রচলিত ভাষা আরবি। দ্বিতীয় ভাষা হিসেবে ইংরেজিকেও প্রাধান্য দেয়া হয় এদেশে। ২০১৫ সালের হিসাবে দেখা গেছে, এ দেশের মোট জনসংখ্যার মাত্র ১২ শতাংশ কাতারের বংশোদ্ভূত। বাকি ৮৮ শতাংশ অন্যান্য দেশের মানুষ সেখানকার বাসিন্দা হয়েছেন। এ দেশের মোট আয়তন ১১ হাজার ৫৮১ বর্গ কিলোমিটার। যার পার ক্যাপিটা ৪ হাজার ৪৮১ বর্গ কিলোমিটার। বিশ্বের আয়তনের দিক থেকে ১৫৮তম স্থানে রয়েছে। এ দেশটি ভারতের সবচেয়ে ছোট রাজ্য তেলেঙ্গানার চেয়েও ছোট। এ দেশের মোট জনসংখ্যা ২৬ লাখ ৭ হাজার ১০০ জন। রিয়াল এ দেশের মূদ্রার নাম।

সংযুক্ত আরব আমিরাত



ইউনাইটেড আরব আমিরাত নদী ছাড়া দেশের তালিকায় চতুর্থ স্থানে রয়েছে। ইউএই মধ্য পূর্ব এশিয়ার একটি দেশ। এ দেশের নাম থেকে আপনি হয়তো দুবাই শহর বেশি চিনেন। কারন দুবাই এ দেশের সবচেয়ে বড় শহর। আবু ধাবী এ দেশের রাজধানী। দুবাই এ দেশের শুধুমাত্র একটি ব্যবসা কেন্দ্রিক শহর। আরবি এ দেশের রাজ ভাষা। এ দেশেও কোন নদী নাই। যেখানে তাকাবেন শুধু বালি আর বালি দেখতে পাবেন। এ বালির দেশের মাঝে ইউ এ ই দেশের লোক একটি স্বর্গ বানাতে যাচ্ছে। ওই স্বর্গের নাম হচ্ছে দুবাই শহর। বিশ্বের সব চমকপ্রদ জিনিস ও স্থাপনাশৈলী দেখতে হলে দুবাই শহর অবশ্যই ঘুরে আসতে হবে। এই শহর নিজেকে অন্যান্য দেশের কাছে আইকন হিসেবে তৈরী করেছে। এখানে ২৮ শতাংশ ইন্ডিয়ান, ২ শতাংশ চাইনিজ, ১২ শতাংশ আরব আমিরাত, ১০ শতাংশ পাকিস্তানি, ১০ শতাংশ বাংলাদেশিসহ অন্যান্য দেশের মানুষের বসবাস। ইসলাম এ দেশের জাতীয় ধর্ম। ২০০৫ সালে এ দেশের মোট জনসংখ্যা ছিলো ৪ কোটি ১০লাখ। যা ২০১৬ সালে গিয়ে দাড়িয়েছে ৯ কোটি ৩০লাখে। এটি বিশ্বে জনসংখ্যার দিক থেকে ৯৪ তম স্থানে রয়েছে। 

কুয়েত



নদী ছাড়া দেশের পঞ্চম স্থানে রয়েছে কুয়েত দেশ। এ দেশটি নিজেই একটি রাজধানী এবং বৃহত্তর শহর। যাকে কুয়েত সিটিও বলা হয়। ইসলাম এ দেশের জাতীয় ধর্ম। এ দেশে কোন নদী বা জলের স্রোত দেখতে পাওয়া যায় না। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এসআই