এটিএমে নকল নোট পেলে কী করবেন?

ঢাকা, শুক্রবার   ২৪ মে ২০১৯,   জ্যৈষ্ঠ ১০ ১৪২৬,   ১৮ রমজান ১৪৪০

Best Electronics

এটিএমে নকল নোট পেলে কী করবেন?

 প্রকাশিত: ২১:৫০ ১৮ মে ২০১৮  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

নিরাপত্তা বলয়ের ফাঁকফোকর দিয়ে বাজারে বের হচ্ছে নকল নোট। কখনও তা বের হয় এটিএম বুথ থেকেও। কেউ কেউ হাতে নিয়েই বুঝতে পারে। অনেকে লেনদেন করার সময় বুঝতে পারেন নকল নোটে ধরা খেয়েছেন।

ব্যাংকে যদি নকল নোট লেনদেন হয়, তবে হাতেনাতে ধরা পড়ার সম্ভাবনা আছে। যদি অফিসাররা ধরতে পারেন যে কেউ নকল নোট জমা দিতে এসেছেন। তবে তা কখনওই অ্যাকাউন্ট পর্যন্ত গিয়ে পৌঁছাবে না।

সেই নোট গ্রাহককে ফেরতও দেওয়া হবে না। বরং নকল নোট বাজেয়াপ্ত করে ক্যাশিয়ার ও গ্রাহককে দিয়ে স্বাক্ষর করিয়ে নেওয়া হবে।

কিন্তু এটিএম এ যদি নকল নোট হাতে আসে, তখন কী করা যায়? কারণ সেই মুহূর্তে কেউ এর সাক্ষী থাকে না। এটিএম এ নকল নোট রুখতে বিভিন্ন ধাপে নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়। তাই নকল নোট না আসাই উচিত। তাও যদি আসে তবে বিপাকে পড়তে হয় গ্রাহককে।

বিদেশে এটিএম রিসিপ্টে কারেন্সির নম্বর উল্লেখ থাকে, কিন্তু বাংলাদেশে শুধু কত টাকা তোলা হচ্ছে তার অ্যামাউন্টই উল্লেখ থাকে। এই পরিস্থিতিতে হাতে নকল নোট এলে একজন গ্রাহক কী করবেন?

নকল নোট পেলে কী করতে হবে তা নিয়ে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ তুলে ধরা হলো:
*নকল নোট পাওয়া সন্দেহ হলে প্রথমেই নোটটি সিসিটিভির সামনে ধরা উচিত। যাতে স্পষ্ট বোঝা যায় যে নোটটি এটিএম থেকেই পাওয়া গিয়েছে।
*সঙ্গে সঙ্গে এটিএম এ যে নিরাপত্তারক্ষী আছেন তার কাছে নোটের ডিটেলস দিয়ে অভিযোগ দায়ের করে রাখা উচিত। এতে নোটটি এটিএম থেকে কোন সময়ে বেরিয়েছে, তা স্পষ্ট হবে।
নোট পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ব্যাংকে অভিযোগ করতে হবে।*যে ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট আছে সেখানেও সঙ্গে সঙ্গে অভিযোগ জানিয়ে রাখতে হবে। প্রয়োজন হলে রিজার্ভ ব্যাংকেও।
*পুলিশের কাছেও অভিযোগ দায়ের করতে হবে। তদন্ত চলাকালীন এই সিসিটিভি ফুটেজই প্রমাণ করবে নোটটি এটিএম থেকে বেরিয়েছে। প্রমাণ দেবে নিরাপত্তারক্ষীর কাছে জমা হওয়া অভিযোগও। একই সঙ্গে ব্যাংকও জানাবে যে গ্রাহক সঙ্গে সঙ্গে অসুবিধার কথা জানিয়েছিলেন।
এই প্রমাণগুলো গ্রাহকের টাকা ফিরে পাওয়ার ক্ষেত্রে সহায়ক হবে। তাই সন্দেহ হলে আগাম সাবধানতা অবলম্বন করাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ।


ডেইলি বাংলাদেশ/সালি

 

Best Electronics