ঢাকা, শুক্রবার   ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯,   ফাল্গুন ৯ ১৪২৫,   ১৬ জমাদিউস সানি ১৪৪০

শীর্ষরা চান না আশরাফুল ফিরুক

জহির ভূইয়া

 প্রকাশিত: ০২:২৬ ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৪:২৮ ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮

ছবি- সংগৃহীত

ছবি- সংগৃহীত

নিষেধাজ্ঞা থেকে ফিরে বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আশরাফুল আবারো জাতীয় দলের দরজায় কড়া নাড়ছেন। সাজা প্রাপ্ত অবস্থায় এই তারকা টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান বার বার একটি কথাই বলেছেন, আমি আবার ফিরব।

এখন সেই ফেরার মিশনে নেমেছেন আশরাফুল। এজন্য তার ভক্তরাও অনেক খুশি। ক্রিকেটাঙ্গনের অনেকেই ভাবছেন জাতীয় দলে ফেরার ‘প্রথম দরজা’ খুলে গেছে এইচপির প্রস্তুতি ম্যাচে নাম থাকার কারণে। কিন্তু দীর্ঘ ক্রীড়া রিপোর্টিংয়ের অভিজ্ঞতা বলছে ভিন্ন কথা।

যতোটা সহজ ভাবা হচ্ছে আশরাফুলের ফিরে আসা, ততোটা সহজ কাজ নয়। পর্দার আড়ালে অনেক কিছুই ঘটছে যা মিডিয়াতে সরাসরি আসে না, সম্ভবও না সেটা।

যেমন আশরাফুল দলে থাকা অবস্থায় দুইটি গ্রুপ ছিল বর্তমান।এমন নয় যে বিসিবি তা জানতো না। আশরাফুলকে বাদ দেবার প্রক্রিয়াটা আসলে নতুন কিছু নয়। সাকিব-তামিম দলে আসার পর থেকেই এই মহা পরিকল্পনা নিয়ে কাজ শুরু হয়েছিল।

উদাহরণ হিসেবে ২০১১ সালে ঘরের মাঠে বিশ্বকাপ ক্রিকেট আসরে মুল দলে ছিলেন না আশরাফু। রীতিমতো মিডিয়ার প্রচন্ড চাপের মুখে সেদিন দল ঘোষণা করা হয় নির্ধারিত সময়ের প্রায় ৩ ঘন্টা পর। আশরাফুল যে দলের তালিকায় ছিলেন না এর প্রমান পাওয়া যায় যখন দেখা যায় একাডেমী মাঠে অনুশীলনরত আশরাফুলের ড্রেসের মাপ নিচ্ছে পোষাক বানানোর লোকজন।

অথচ যাদের দলে নেয়া হয়েছে তাদের ড্রেসের মাপ বহু আগেই নেয়া হয়ে গিয়েছিল। এতে কি প্রমান হয়? আজ যে স্থানে সাকিব-তামিম দাঁড়িয়ে সে জায়গাতে বহু আগে থেকেই আশরাফুল দাঁড়িয়ে ছিলেন। আশরাফুলকে ছেঁটে ফেলার একটি উপলক্ষ্য দরকার ছিল। সেটা আশরাফুল নিজেই সুযোগ করে উপহার দিয়েছেন প্রতিপক্ষকে। যে কারণে পছন্দের তালিকায় থাকার পরও অধিনায়ক মাশরাফি কোন কথাই বলেন না। এক কথায় আশরাফুল প্রসঙ্গে মাশরাফি নিরব।

হয়তো ফিটনেস পরীক্ষায় আন্তর্জাতিক লেভেল ছূঁয়ে ফেলেছেন আশরাফুল। কিন্তু তার মানে এই নয় দ্রুতই তিনি মুল দলে ফিরছেন। এর মুল কারণ জাতীয় ক্রিকেট দলের ড্রেসিং রুম। টিম বাংলাদেশের জন্য ঐ রুমটির তাৎপর্য অনেক। বছরের পর বছর ক্রীড়া রিপোর্ট করতে গিয়ে এই অভিজ্ঞতাটুকু পকেটে জমা হয়েছে।

জানা আছে জাতীয় দলে কারা কারা মোহাম্মদ আশরাফুলের ফিরে আসাটা মোটেও স্বাভাবিক ভাবে নিচ্ছে না।

এমন নয় যে, বিসিবি’র প্রধান কার্যালয়ে আশরাফুলের ফিরে আসার প্রসঙ্গটি নিয়ে আলোচনা হচ্ছে না।

এর কারণ দলের শীর্ষ কয়েকজন তারকা সদস্য। এর ভিত্তিটা আজকালের নয়, সেই এক যুগ আগের ঘটনা।

আশরাফুল যখন জাতীয় দলের শীর্ষ তারকা তখন বর্তমান (২০১৮) এই দলের অনেক সদস্যই জাতীয় দলের খেলার স্বপ্ন দেখছেন। একটি মাত্র সুযোগ পাওয়া মাত্রই আশরাফুলের বিরুদ্ধে দলীয় অভন্ত্যরীন আক্রমন শুরু হয়ে যায়। নির্দিষ্ট প্রমান থাকায় আশরাফুল দোষী প্রমানিত হয়ে যান। সে সুযোগটা পুরোপুরি কাজে লাগিয়েছে বর্তমান শীর্ষ তারকরা। তবে এই দলে নেই অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা।

কিন্তু অন্য তারকারা আশরাফুলের ফিরে আসার বিষয়ে মুখ বন্ধ রাখলেও অন্দর মহলে ক্ষমতা প্রয়োগ করছেন ঠিকই।

প্রমান হিসেবে বলা যায় কিছু দিন আগে নির্বাচক হাবিবুল বাশারকে প্রশ্ন করা হয় আশরাফুলের জাতীয় দলে ফিরে আসা নিয়ে। তিনি সরাসরি আশরাফুলের ফিরে আসার বিষয়টি নাকচ করে দিলেন। বলেন, আপাতত দলে কোন জায়গা নেই। কোথায় জায়গা দেব আশরাফুলকে?। পাল্টা প্রশ্ন করেছিলেন সেদিন বাশার।

তাহলে কি মিথুন, লিটন কুমার আর সাব্বির রহমানরা আশরাফুলের চেয়ে বড় ক্রিকেটার? কোন জবাব দেনি এই সাবেক অধিনায়ক।

১০ বছরের বেশি সময় আগের কথা, সে সময় টিম বাংলাদেশের কোচ ছিলেন জেমি সিডন্স। নিউজিল্যান্ড সফরে ছিল বাংলাদেশ। আশরাফুল, সিডন্স আর সাকিবের মধ্যে ঝামেলা দৃস্টি হয়। কোচ সিডন্স আর শিষ্য সাকিব রাতে হোটেলে বসে মদ পান করেছিলেন। তৎকালিন সময় মিরপুরের মিডিয়া বক্সে আলোচিত হত ‘আশরাফুলের জন্য কঠিন দিন অপেক্ষা করছে’। বিশেষ করে কোচ সিডন্স সে সময় আশরাফুলকে খুব একটা পছন্দ করতেন না। রিপোর্টিংয়ে যারা জড়িত ছিল সে সময় এ তথ্য তাদের কাছে অজানা নয়।

এরপর থেকে সাকিব-তামিম আর আশরাফুলের মধ্যে অভ্যন্তরিন ঝামেলা বহুবার মিডিয়ার সামনে চলে আসে। ঘরোয়া ক্রিকেটে সাকিব-তামিম আর আশরাফুলের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা আজও আলোচিত।

বিসিবির ভেতরের খবর, আশরাফুল মুল দলে না থাকায় এতো দিন খুশিই ছিল জাতীয় দলের কয়েক জন তারকা ক্রিকেটার। কিন্তু এইচপি দলে ডাক পেয়ে যাওয়াতে সেই তারকারা এখন আর খুশি নন। তারকারা বিসিবি প্রধান পাপন পর্যন্ত চাপ প্রয়োগ করছেন, আশরাফুল দলে ফিরে আসলে ড্রেসিং রুমের পরিবেশ নষ্ট হবে। উদাহরণ তৈরি হবে অপরাধ করেও ফিরে আসা যায়।

তবে নাম না প্রকাশের শর্তে এক পরিচালক বলেন, বিসিবি’র শীর্ষ মহলের কিছু পরিচালক তারকা ক্রিকেটারদের যুক্তিকে কাটিয়ে জবাবে পাল্টা যুক্তি হিসেবে বিশ্ব ক্রিকেটে এ ধরণের ফিরে আসার একাধিক উদাহরণও না-কি উপস্থাপন করেছেন।

ডেইলি বাংলাদেশ, জেবি/সালি

(এ বিভাগে প্রকাশিত মতামত লেখকের নিজস্ব। এর দায় ভার পুরোপুরি লেখকের। ডেইলি বাংলাদেশ-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে প্রকাশিত মতামত সামঞ্জস্যপূর্ণ নাও হতে পারে।)