Exim Bank Ltd.
ঢাকা, বুধবার ১২ ডিসেম্বর, ২০১৮, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৪

বিরাটের ভেতর-বাহির (পর্ব ০২)

সঞ্জয় বসাক পার্থডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম
বিরাটের ভেতর-বাহির (পর্ব ০২)
ছবি: সংগৃহীত

বর্তমান জেনারেশনের সবচেয়ে বড় ক্রিকেটীয় সুপারস্টার বললে বোধ হয় খুব একটা ভুল হবে না তাকে! ডি ভিলিয়ার্সের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের পর বর্তমান সময়ের সেরা ব্যাটসম্যানকে সেটা নিয়েও প্রশ্ন মুছে গেছে। আশ্চর্য ধারাবাহিকতা নিয়ে উপস্থিত হওয়া বিরাট কোহলির ভেতরের খুঁটিনাটি জানতে তার মুখোমুখি হয়েছিল ইএসপিএন ক্রিকইনফো। সাক্ষাৎকারে নিজের মনের আগল খুলে দিয়েছেন ভারতীয় অধিনায়ক। এই সাক্ষাৎকারে ক্রিকেটার কোহলি তো বটেই, উন্মোচিত হবে মানুষ ও নেতা কোহলির অনেক দিকও। ডেইলি বাংলাদেশের পাঠকদের জন্য দুই পর্বে উপস্থাপন করা হচ্ছে কোহলির ইন ডেপথ সাক্ষাৎকারটি। আজ থাকছে দ্বিতীয় ও শেষ পর্ব।

টেন্ডুলকারের সঙ্গে আপনার সবচেয়ে স্মরণীয় মুহূর্তটির কথা বলুন।

বিরাট: আমি সেসব মানুষদের খুব পছন্দ করি, যারা আপনার মুখের উপর হয়তো আপনার ভূয়সী প্রশংসা করবেন না, কিন্তু কারোর কাছে আপনাকে নিয়ে কথা বলতে গেলে আপনার জন্য তার কাছে অনেক প্রশংসা বরাদ্দ থাকবে। টেন্ডুলকারের এই দিকটি আমার খুব ভালো লাগে। উনি হয়তো স্রেফ এটুকু বলবেন, ‘ভালো খেলেছ’। কারণ তিনি চান না প্রশংসা পেয়ে কেউ অতি আত্মবিশ্বাসী হয়ে যাক। তিনি চান সবাই যেন নিজের কঠিন পরিশ্রম করাটা বজায় রাখে। ২০১৪ সালে ইংল্যান্ড সফর থেকে ফিরে আমি মুম্বাইয়ের বান্দ্রা-কুরলা কমপ্লেক্সে আমার ব্যাটিং নিয়ে কাজ করছিলাম। আমি তাকে একবার আসতে অনুরোধ করেছিলাম, কারণ আমি ব্যাটিং নিয়ে তার সঙ্গে কিছু কথা বলতে চাইছিলাম, খারাপ সময়ে কীভাবে নিজেকে সামলেছেন সে ব্যাপারে কিছু শুনতে চাচ্ছিলাম। টেকনিকাল দিকের চেয়ে এই দিকটাই তখন বেশি গুরুত্বপূর্ণ ছিল আমার কাছে। এটি কথা বলতে চাচ্ছিলাম।

একটা কথা তিনি আমাকে বলেন, ‘তোমার সবসময় সেটাই করা উচিত যেটা তোমার কাজে আসে।’ ম্যাচের আগে যদি তোমার মনে হয় নেটে ব্যাট না করলেও চলবে, তাহলে করো না ব্যাট। অন্যরা সবাই আধা ঘন্টা ব্যাটিং করছে তাই তোমারও করতে হবে, এরকমটা ভেবো না কখনো। তিনি সবসময় সেটাই করতেন যেটা করতে তিনি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করতেন। তিনি বলেন, গোটা ২০০৩ বিশ্বকাপে তিনি নেটে কোনো ব্যাটিং করেননি। কাউকে তার দিকে বল থ্রো করতে বলতেন, আর তিনি সেটা মাঝব্যাটে খেলতেন, এটাই ছিল তার ব্যাটিং রুটিন। তারপর সেই বিশ্বকাপে যেভাবে তিনি খেললেন সেটা তো এক কথায় দুর্দান্ত। এই দিকটা আমি উনার থেকে শিখেছি, নিজের মন যেটা বলছে সেটাকে মেনে চলার সাহস রাখা। নিজের খেলাটাকে নিজের মতো করে বুঝতে শেখা, নিজেকে বুঝতে শেখা।

সবচেয়ে সফল অ্যাথলেটদের ক্ষেত্রেও এসব ছোটখাটো জিনিস এত প্রভাব ফেলে? বিষয়টা বেশ আগ্রহ জাগানিয়া!

বিরাট: ক্রিকেট হোক কিংবা অন্য যেকোনো খেলা, খুব সহজ সরল এবং ছোট জিনিসগুলোই দিন শেষে পার্থক্য গড়ে দেয়। ধরুন, আমি যদি বলি, ম্যাচের আগে একটি পাঞ্জাবি গানটা শুনে আমি খেলতে নেমেছিলাম, যেটা আমার মাইন্ডসেটকে সঠিক জায়গায় নিয়ে গেছে। কেউ কেউ আমাকে পাগল বলতে পারে, কিন্তু এটাই সত্যি। যেকোনো ছোট জিনিস আপনার অনুভূতি, মাইন্ডসেট সম্পূর্ণ বদলে দিতে পারে। তখন আচমকাই আপনার মনে হবে, ‘আজ দিনটা আমার।’ এই ছোট ছোট জিনিসগুলোই অনেকে বুঝতে পারে না, অথচ এগুলোই সবচেয়ে বেশি প্রভাব ফেলে। এই ছোট ছোট জিনিসগুলোই আপনাকে সুরক্ষিত রাখতে হবে, কারণ দিনশেষে এগুলোই আপনাকে সেরা অনুভূতি এনে দেবে।

বিভীষিকাময় সেই ইংল্যান্ড সফরের পর অস্ট্রেলিয়া সফরে গিয়ে আপনি দুর্দান্ত খেলেছিলেন। ব্যক্তিগতভাবে ওই সাফল্য আপনার জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ ছিল?

বিরাট: ইংল্যান্ড সফরের পর আমি নিজেকে নিয়ে খুব হতাশ ছিলাম। নিজের উপর অনেক বেশি চাপ নিয়ে ফেলেছিলাম। ইংল্যান্ড সফরটাকে আমি একটা বিশাল বড় পর্বতের মতো করে দেখেছিলাম, যেটির চূড়া পর্যন্ত পৌঁছাতে না পেরে আমি ভীষণ হতাশ হয়ে পড়ি। নিজের উপর এত বেশি চাপ নেয়া উচিত হয়নি। চাপ না নিয়ে বরং ক্রিকেটটা উপভোগ করাই উচিত ছিল। প্রত্যাশিত ফলাফল না পেয়ে আমি সুখী হতে পারছিলাম না, অনুভূতিটা খুব বাজে ছিল। কিন্তু খারাপ সময়কে মেনে নিতে না পারলে আসলে ভালো সময়কেও আপনি অনুভব করতে পারবেন না। ইংল্যান্ড সফরের পর অস্ট্রেলিয়া সফরটা আমার জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ ছিল। ওই সফরের দুই মাস আগে থেকেই আমি মানসিকভাবে প্রস্তুত হতে শুরু করি। আমি আক্রমণাত্মক থেকে ওদের বোলারদের মোকাবেলা করে জয়ী হতে চেয়েছিলাম। এসব ইতিবাচক ভাবনা আমাকে মাঠেও সাহায্য করেছে।

আপনি স্টেইন-মরকেলের বিপক্ষে রান করেছেন, জনসনের বিপক্ষেও করেছেন। কিন্তু অ্যান্ডারসন আপনাকে বেশ ভুগিয়েছিলেন। বাকিদের চেয়ে অ্যান্ডারসন কোন দিক থেকে আলাদা বলে মনে করেন?

বিরাট: দায়টা বেশি আমারই ছিল, তারা আমার জন্য যে পরিকল্পনা করেছিল তার জবাব দেয়ার মতো পাল্টা কোনো পরিকল্পনা আমার কাছে ছিল না ওই সফরে। অবশ্যই অ্যান্ডারসন একজন বিশ্বমানের বোলার। দুই দিকেই বল সুইং করাতে পারে সে, এর আগে অনেক সেরা ব্যাটসম্যানকেও বিপদে ফেলেছে সে। আমার তার জন্য ভিন্ন কোনো পরিকল্পনা করা উচিত ছিল। একই পজিশনে দাঁড়িয়ে একইভাবে আউট হয়েছি বারবার। ঠিক এ কারণেই অস্ট্রেলিয়ায় গিয়ে ক্রিজের বাইরে থেকে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। মিডল স্ট্যাম্পে দাঁড়িয়ে বল ছাড়ার আগ মুহূর্তে অফ স্ট্যাম্পের দিক সরে আসার পরিকল্পনা করেছিলাম আমি, যাতে করে গুড লেন্থের বলগুলোকে আরো ভালো ভাবে সামলাতে পারি। সুবিধাও পেয়েছিলাম, আগে থেকেই পজিশনে চলে আসায় ড্রাইভ করতে অনেক সুবিধা হয়েছিল।

অস্ট্রেলিয়া সফরের জন্য দেশ ছাড়ার আগে মুম্বাইতে সাংবাদিকের সামনে ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক হিসেবে বলেছিলেন, আপনার দল অস্ট্রেলিয়ায় আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলবে। এত গুরুত্বপূর্ণ সফরের আগে এমন মন্তব্য করাটা কি জরুরি ছিল?

বিরাট: আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলতে চাই, এই মন্তব্যে তো আমি ভুল কিছু দেখি না। আমি কখনো বলিনি আমরা নির্দিষ্ট কাউকে টার্গেট করছি কিংবা তাদের সঙ্গে শত্রুভাবাপন্ন আচরণ করব। এই মন্তব্য করাটা জরুরি ছিল, কারণ এটি দলের মধ্যে এই বার্তা ছড়িয়ে দিয়েছিল যে, আমরা স্বাভাবিকভাবে খেললে অধিনায়ক কিংবা ম্যানেজমেন্ট আমাদের পাশে থাকবে। আমরা সিরিজটা জিততেই যাচ্ছি, এই মানসিকতাটা দলের সকলের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়াটা খুব গুরুত্বপূর্ণ ছিল। জয়ের জন্য হারের ঝুঁকি নিতেও পিছপা হই না আমি। চেয়েছিলাম দলের সবাই যেন আক্রমণাত্মকভাবেই খেলে।

টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে দলের কাছে প্রথম নিজের বার্তা দিয়েছিলেন কখন?

বিরাট: অস্ট্রেলিয়া উড়ান দেয়ার আগে টিম হোটেলে ম্যানেজারের কক্ষে। আমি সবার উদ্দেশ্যে বলেছিলাম, আমরা সেখানে ব্যক্তিগত অর্জনের জন্য যাচ্ছি না। আমি সরাসরিই বলেছিলাম, এখানে বসে থাকা কেউ যদি ভেবে থাকে আমি অস্ট্রেলিয়াতে দুটি সেঞ্চুরি করার জন্য যাচ্ছি, কিংবা তিনটি পাঁচ উইকেট নেয়ার জন্য যাচ্ছি, তাহলে এই মুহূর্তে যেন সে নিজের মাইন্ডসেট পরিবর্তন করে। আমরা অস্ট্রেলিয়ায় যাচ্ছি সিরিজটা জিতে ফেরার জন্য। এমনকি ছোট কোনো অবদান, যেটি কি না আমাকে ম্যাচ জিততে সাহায্য করবে, সেটিই আমার কাছে ম্যাচসেরা পারফরম্যান্সের স্বীকৃতি পাবে। পুরো দলের মধ্যে এই বিশ্বাসটা ছড়িয়ে সকলকে ঐক্যবদ্ধ করতে চেয়েছিলাম। পুরো সিরিজেই আমরা আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলেছিলাম। আমাকে এটাই সবচেয়ে বেশি স্বস্তি দিয়েছিল, কারণ ছেলেরা সবাই চ্যালেঞ্জটাকে সামনে থেকে মোকাবেলা করেছিল, কেউ পিছু হটেনি। সবাই এই ক্রিকেট দেখতেই পছন্দ করে। ফলাফল যাই হোক, প্রতিপক্ষের সম্মানও আদায় করে নেয়া যায়।

অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার জন্য মানসিকভাবে কতটা প্রস্তুত ছিলেন?

বিরাট: আমি খুবই রোমাঞ্চিত ছিলাম। নির্বাচকেরা আমাকে বলেছিলেন, ধোনি আঙুলের ইনজুরি নিয়ে ভুগছে, প্রথম টেস্টে তাই আমাকে নেতৃত্ব দিতে হবে। কিছুটা যে চমকে গিয়েছিলাম সেটা অস্বীকার করব না। এরপর নিজেকে সামলে নিয়ে ভাবতে শুরু করলাম, ওই কন্ডিশনে দলের সেরা কম্বিনেশন কেমন হবে, কার কোন পজিশনে খেলা উচিত, বোলিংয়ের ভার কাদের উপর দেয়া উচিত।

এটা কি সত্যি যে তৃতীয় টেস্ট শেষে ধোনির অবসরের ঘোষণায় আপনি ভেঙে পড়েছিলেন?

বিরাট: আমরা সবাই বিস্মিত হয়েছিলাম এই খবরে! আমার প্রথম অনুভূতিটাই ছিল, এতদিন ধরে তার নেতৃত্বেই খেলে এসেছি আমরা। দলের বেশিরভাগ তরুণ খেলোয়াড়কে সুযোগ দানের মাধ্যমে তাদেরকে গড়ে উঠতে সহায়তা করেছেন। আর এখন তিনিই আর অধিনায়ক থাকছেন না! পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হয়ে আসার পর আমি আমার রুমে গেলাম। আনুশকা তখন ওখানেই ছিল, ওকে সবকিছু খুলে বললাম। সেও আমার মতো হতভম্ব হয়ে পড়েছিল।

ছবি (৫)

আনুশকার সঙ্গে ক্রিকেট নিয়ে কতটা কথা বলেন?

বিরাট: (হাসি) ও খেলাটা বুঝতে চায়। শিখতে পছন্দ করে। আমাকে মানসিকভাবে বুঝতে চেষ্টা করে। আমার সঙ্গে পরিচয় হওয়ার আগে ও ক্রিকেট একদমই অনুসরণ করত না। কিন্তু এখন খেলাটা বুঝতে খুবই উদগ্রীব আনুশকা। ক্রিকেট নিয়ে খুব বেশি যে কথা হয় তা না, তবে টুকটাক কথা হয়।

বলিউড মুভি, আনুশকার ক্যারিয়ার এসব নিয়ে কথা বলেন আপনি?

বিরাট: আনুশকার পেশাটা বুঝতে শুরু করেছি আমি। একটা মুভি সম্পূর্ণ করা যে কতটা কঠিন কাজ সেটা বুঝি এখন। আড়াই ঘন্টার একটা মুভি দেখে আমি আপনি খুব বিনোদন পাই, কিন্তু মুভিটা শেষ করাটা যে কতটা পরিশ্রমের তা অনেকেই জানি না। এ কারণেই নিজেদের কাজের প্রতি তারা এতটা প্যাশনেট। ব্যাপারটা অনেকটা উসাইন বোল্টের মতো, নয় সেকেন্ডের অলিম্পিক সাফল্যের জন্য চার বছর ধরে অমানুষিক পরিশ্রম করে যায় সে। ওই নয় সেকেন্ডের সাফল্যের পর সে যে আনন্দটা অনুভব করে, সেটার সঙ্গে আর কোন কিছুর তুলনা চলে? অভিনেতাদের ব্যাপারটাও অনেকটা একই রকম।

টি-২০ ক্রিকেট আপনার ব্যাটিংয়ে কোনো প্রভাব ফেলেছে?

বিরাট: কিছুটা হয়তো ফেলেছে। রোহিতকে দেখুন, সেট হয়ে যাওয়ার পর আর কোনো ব্যাটসম্যানকে আমি এতটা ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে দেখিনি। একবার সেট হয়ে গেলে ওকে আউট করা এক প্রকার অসম্ভব। পঞ্চাশ পার করার পর ও যেসব স্ট্রোক খেলে, এক কথায় অবিশ্বাস্য। ওয়ানডেতে তিনটি ডাবল সেঞ্চুরি তার, টি-২০ আসার আগে এগুলো কেউ ভাবতে পেরেছিল? টি-২০ খেলে সবার মধ্যেই অন্যরকম একটা আত্মবিশ্বাস এসেছে। সেরা বোলারদের বিপক্ষে টি-২০ খেলে প্রাপ্ত আত্মবিশ্বাসটাই তারা ৫০ ওভারের ক্রিকেটে নিয়ে আসছে। ভারতে বেড়ে ওঠা কোনো তরুণ ক্রিকেটার যখন আইপিএলে ডেল স্টেইন, মরনে মরকেল, মিচেল জনসন কিংবা মিচেল স্টার্কদের বলে মারছে, তখন তার মধ্যে এমনিতেই আত্মবিশ্বাস চলে আসে। আমিও টি-২০ থেকে একই রকম আত্মবিশ্বাস পেয়েছি। জয়পুরে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৫২ বলে সেঞ্চুরিটির কথাই যদি বলি, আমরা বিশাল এক টার্গেট তাড়া করছিলাম। আমার মনে সেদিন একবারের জন্যেও নেতিবাচক কোন চিন্তা আসেনি। টি-২০ খেলে এই আত্মবিশ্বাসগুলো আরও শাণিত হয়েছে।

আপনার প্রিয় শট কোনটি?

বিরাট: আমার প্রিয় শটের কথা বলতে বললে সেটি অবশ্যই কভার ড্রাইভ। গতিশীল বোলারদের বলে নিখুঁতভাবে কভার ড্রাইভ খেলার চেয়ে ভালো কোন অনুভূতি একজন ব্যাটসম্যানের কাছে আর হতেই পারে না। ফ্লিক শটটা আমার মধ্যে প্রকৃতিগতভাবে এসেছে, এটা খেলতেও ভালো লাগে। তবে কভার ড্রাইভই আমার প্রিয় শট।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস

আরোও পড়ুন
সর্বশেষ
খুলনায় বিজয় দিবসের কর্মসূচি
খুলনায় বিজয় দিবসের কর্মসূচি
এই দিনে মুক্ত হয় চান্দিনা
এই দিনে মুক্ত হয় চান্দিনা
কোটা আন্দোলন
কোটা আন্দোলন
মওলানা ভাসানীর জন্মবার্ষিকী উদযাপন
মওলানা ভাসানীর জন্মবার্ষিকী উদযাপন
‘হবিগঞ্জবাসী লায়ন-ড্রাগন গ্রুপে আতঙ্কিত ছিল’
‘হবিগঞ্জবাসী লায়ন-ড্রাগন গ্রুপে আতঙ্কিত ছিল’
কোহলি-আনুশকার মানবিকতা
কোহলি-আনুশকার মানবিকতা
খালেদার মানহানির ২ মামলা: অভিযোগ গঠন ১৩ ডিসেম্বর
খালেদার মানহানির ২ মামলা: অভিযোগ গঠন ১৩ ডিসেম্বর
সুনামগঞ্জে এগিয়ে মহাজোট
সুনামগঞ্জে এগিয়ে মহাজোট
প্রার্থী হতে পারলেন না টুকু-দুলু
প্রার্থী হতে পারলেন না টুকু-দুলু
ডিজিটাল কোকেনে আসক্ত হচ্ছেন না তো?
ডিজিটাল কোকেনে আসক্ত হচ্ছেন না তো?
সারার মোটা থেকে আবেদনময়ী হওয়ার রহস্য
সারার মোটা থেকে আবেদনময়ী হওয়ার রহস্য
জনবিচ্ছিন্ন প্রার্থীদের বর্জন করুন: দীপংকর
জনবিচ্ছিন্ন প্রার্থীদের বর্জন করুন: দীপংকর
নির্বাচনী প্রচারণার শুরুতেই সহিংসতা অনাকাঙ্খিত: সিইসি
নির্বাচনী প্রচারণার শুরুতেই সহিংসতা অনাকাঙ্খিত: সিইসি
কুষ্টিয়ায় বিএনপির ১৮ নেতাকর্মী আটক
কুষ্টিয়ায় বিএনপির ১৮ নেতাকর্মী আটক
টেকনাফে ৫০শতক জমি উদ্ধার
টেকনাফে ৫০শতক জমি উদ্ধার
সিলেটে জনসভা নয়, গণসংযোগ
সিলেটে জনসভা নয়, গণসংযোগ
গাড়ির নাম্বার প্লেট ও বর্ণমালার অর্থ কী জানেন!
গাড়ির নাম্বার প্লেট ও বর্ণমালার অর্থ কী জানেন!
তফসিল ঘোষণার পর ২১৭১ বিএনপি নেতা গ্রেফতার
তফসিল ঘোষণার পর ২১৭১ বিএনপি নেতা গ্রেফতার
সিলেটে দুই জোটেই জট
সিলেটে দুই জোটেই জট
ধামইরহাটে আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভা
ধামইরহাটে আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভা
‘সুষ্ঠু নির্বাচনে বাধা সৃষ্টি করছে আওয়ামী লীগ’
‘সুষ্ঠু নির্বাচনে বাধা সৃষ্টি করছে আওয়ামী লীগ’
নিখোঁজ ব্যবসায়ীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার
নিখোঁজ ব্যবসায়ীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার
টেকনাফে সাড়ে ৪৮ লাখ টাকার ইয়াবা উদ্ধার
টেকনাফে সাড়ে ৪৮ লাখ টাকার ইয়াবা উদ্ধার
ব্রাজিলে চার্চে গুলি, নিহত ৫
ব্রাজিলে চার্চে গুলি, নিহত ৫
মাদারীপুরে দুই পুুলিশ হত্যায় ২০ জনের যাবজ্জীবন
মাদারীপুরে দুই পুুলিশ হত্যায় ২০ জনের যাবজ্জীবন
সংসার চালাতে সেলিমের পিঠা বিক্রি
সংসার চালাতে সেলিমের পিঠা বিক্রি
উন্নয়নে এগিয়ে কক্সবাজার
উন্নয়নে এগিয়ে কক্সবাজার
খালেদার প্রার্থিতার আদেশ ফেরত পাঠালেন প্রধান বিচারপতি
খালেদার প্রার্থিতার আদেশ ফেরত পাঠালেন প্রধান বিচারপতি
এখনও শরীরে তার যুদ্ধের ক্ষত
এখনও শরীরে তার যুদ্ধের ক্ষত
সুস্মিতাকে নিয়ে ‘রোমান্টিক’ হলেন প্রেমিক!
সুস্মিতাকে নিয়ে ‘রোমান্টিক’ হলেন প্রেমিক!
সর্বাধিক পঠিত
ফাইভ জি চালু হতেই মরল কয়েকশ পাখি!
ফাইভ জি চালু হতেই মরল কয়েকশ পাখি!
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেয়াই মারা গেছেন
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেয়াই মারা গেছেন
ফখরুলের গাড়িবহরে হামলা
ফখরুলের গাড়িবহরে হামলা
দেশের মাটিতে মাশরাফির শেষ ম্যাচ
দেশের মাটিতে মাশরাফির শেষ ম্যাচ
‘বিশ্ব সুন্দরী’র মুকুট পড়া হলো না ঐশীর
‘বিশ্ব সুন্দরী’র মুকুট পড়া হলো না ঐশীর
৭ দিনের নিচে কোন ইন্টারনেট প্যাকেজ নয়
৭ দিনের নিচে কোন ইন্টারনেট প্যাকেজ নয়
মৃত সাফায়েত উদ্ধার, বাবা আটক; সুরায়েত জীবিত
মৃত সাফায়েত উদ্ধার, বাবা আটক; সুরায়েত জীবিত
সিলেটি যুবককে বিয়ের জন্য ক্যাথলিক মেয়ের ইসলাম ধর্ম গ্রহণ
সিলেটি যুবককে বিয়ের জন্য ক্যাথলিক মেয়ের ইসলাম ধর্ম গ্রহণ
জনসম্মুখে পুরুষ নির্যাতন, ভিডিও ভাইরাল!
জনসম্মুখে পুরুষ নির্যাতন, ভিডিও ভাইরাল!
এমিরেটসের হীরায় মোড়ানো বিমান
এমিরেটসের হীরায় মোড়ানো বিমান
পাপ যেন পিছু ছাড়ছে না নিকের!
পাপ যেন পিছু ছাড়ছে না নিকের!
ক্যান্সার শনাক্তে বাংলাদেশি বিজ্ঞানীর সাফল্য
ক্যান্সার শনাক্তে বাংলাদেশি বিজ্ঞানীর সাফল্য
‘যৌন মিলন দেখিয়ে আনন্দ পাই’
‘যৌন মিলন দেখিয়ে আনন্দ পাই’
সোমবার রাতের মধ্যেই ঢাকা ছাড়ছেন এরশাদ
সোমবার রাতের মধ্যেই ঢাকা ছাড়ছেন এরশাদ
বিশ্বের আদর্শ ফিগারের নারী কেলি ব্রুক
বিশ্বের আদর্শ ফিগারের নারী কেলি ব্রুক
তামান্নার অন্তরঙ্গ ছবি, রয়েছে শারীরিক সম্পর্ক!
তামান্নার অন্তরঙ্গ ছবি, রয়েছে শারীরিক সম্পর্ক!
বিএনপির হয়ে লড়বেন পার্থ
বিএনপির হয়ে লড়বেন পার্থ
বাবার ইচ্ছাপূরণে হেলিকপ্টারে বউ তুলে আনল ছেলে
বাবার ইচ্ছাপূরণে হেলিকপ্টারে বউ তুলে আনল ছেলে
উত্তেজনা ধরে রাখতে পারছেন না সাইফ কন্যা সারা!
উত্তেজনা ধরে রাখতে পারছেন না সাইফ কন্যা সারা!
বিএনপির বিরুদ্ধে লড়বেন হিরো আলম
বিএনপির বিরুদ্ধে লড়বেন হিরো আলম
শিরোনাম :
খালেদার প্রার্থিতার আদেশ ফেরত পাঠালেন প্রধান বিচারপতি খালেদার প্রার্থিতার আদেশ ফেরত পাঠালেন প্রধান বিচারপতি ভোটের প্রচারণায় টুঙ্গীপাড়ার পথে শেখ হাসিনা ভোটের প্রচারণায় টুঙ্গীপাড়ার পথে শেখ হাসিনা নির্বাচনী প্রচারণার শুরুতেই সহিংসতা অনাকাঙ্খিত: সিইসি নির্বাচনী প্রচারণার শুরুতেই সহিংসতা অনাকাঙ্খিত: সিইসি জেএসসি-জেডিসির ফল প্রকাশ ২৪ ডিসেম্বর জেএসসি-জেডিসির ফল প্রকাশ ২৪ ডিসেম্বর আইএসপিআরের নতুন পরিচালক হলেন লেফট্যানেন্ট কর্নেল মো. আবদুল্লা ইবনে জায়েদ আইএসপিআরের নতুন পরিচালক হলেন লেফট্যানেন্ট কর্নেল মো. আবদুল্লা ইবনে জায়েদ