কাঙ্খিত সেতুর নির্মাণ শুরু

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৩ মে ২০১৯,   জ্যৈষ্ঠ ৯ ১৪২৬,   ১৭ রমজান ১৪৪০

Best Electronics

কাঙ্খিত সেতুর নির্মাণ শুরু

 প্রকাশিত: ১৫:১৫ ১১ নভেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৫:১৫ ১১ নভেম্বর ২০১৮

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

নড়াইলের কাশিপুর ইউপি এলাকাবাসীর কাঙ্খিত সেতু নির্মাণ করছে এলজিইডি বিভাগ। সেতুটি নির্মিত হলে উপজেলার ৫ ইউপির ৮০ হাজারের বেশি মানুষ উপকৃত হবে।

এলাকাবাসী বলেন, লোহাগড়া উপজেলার ৮০ হাজারের বেশি মানুষের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল গন্ডব এলাকায় তুসখালী দৌয়ার উপর একটি সেতু। সেতুটি নির্মাণের দাবি জানিয়ে এলাকার মানুষ দীর্ঘদিন যাবৎ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে। অবশেষে এ সেতু নির্মাণ করছে এলজিইডি বিভাগ।

সেতুর ২ প্রান্তে উপজেলার বৃহৎ ২ বাজার।  সেতুর ৩ কিলোমিটার উত্তরে লোহাগড়ার বৃহৎ ব্যাণিজ্যিক বাজার মানিকগঞ্জ। আর সেতুর ৩ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত উপজেলার সবচেয়ে বড় এ্যাড়েন্দা হাট। দীর্ঘদিনের পুরাতন এ হাটে আসার জন্য উপজেলার ৫ ইউপিকে মানুষকে পোহাতে হয়েছে চরম দুর্ভোগ।

সেতু না থাকায় কৃষকেরা তাদের উৎপাদিত ফসলের ন্যায্য মূল্য থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। সেতুটির নির্মাণ কাজ শেষ হলে কৃষকেরা তাদের কৃষি পণ্য দ্রুত সময়ে সহজে বাজারজাত করতে পারবে এবং পণ্যের সঠিক মূল্যও পাবেন।

এলজিইডি সূত্রানুযায়ী, জনগনের চাহিদার প্রেক্ষিতে উপজেলার এ্যাড়েন্দা-মানিকগঞ্জ সড়কের গন্ডব এলাকায় ১০ কোটি ২০ লাখ টাকা ব্যয়ে ১৭৫.২০ মি দৈর্ঘের সেতুটি নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। এরইমধ্যে সেতুটির প্রায় ৮০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে।

মানিকগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ী কিবরিয়া বলেন, তারা প্রতিনিয়ত মানিকগঞ্জ বাজার থেকে বিভিন্ন পণ্য নিয়ে এ্যাড়েন্দা হাটে যান। কিন্তু গন্ডবে সেতু না থাকায় তাদেরকে ১৩ কিলোমিটার পথ ঘুরে যেতে হয়। এতে তাদের পরিবহন খরচও অনেক বেড়ে যায়।

গন্ডবের কৃষক ইমান উদ্দিন শেখ বলেন, এলাকার হাজার হাজার কৃষক দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্ন প্রকার ফসল উৎপাদন করে এ্যাড়েন্দা হাটে বিক্রয় করেন। কিন্তু সেতুর অভাবে সময়মত সেই ফসল বাজারজাত করতে না পারায় ন্যায্য মূল্য থেকেও বঞ্চিত হন তারা।

গাড়ি চালকেরাও সেতুর দক্ষিণের সড়ক সংস্কারসহ সেতুটির কাজ দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি জানান।

নড়াইল জেলা এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী বিধান চন্দ্র সোমদ্দার বলেন, স্থানীয় মানুষের চাহিদার কথা বিবেচনা করেই এখানে সেতু নির্মাণ করা হচ্ছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে হাজার হাজার মানুষ উপকৃত হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএস

Best Electronics