Exim Bank
ঢাকা, মঙ্গলবার ১৯ জুন, ২০১৮
Advertisement

মুক্তামনির অবস্থা আশঙ্কাজনক

 নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১১:৩৩, ১৯ মে ২০১৮

আপডেট: ১৪:১৩, ১৯ মে ২০১৮

১৬৫৫৬ বার পঠিত

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

বিশ্বজুড়ে আলোচিত সাতক্ষীরার সেই মুক্তামনির অবস্থা খুবই আশঙ্কাজনক। হাত আগের থেকে অনেক ফুলে গেছে। ব্যান্ডেজ খুলে পরিষ্কার করার সময় হাত থেকে বেরিয়ে আসছে বড় বড় পোকা। তার সুস্থতার ভরসা রাখতে পারছেনা চিকিৎসকরাও। এদিকে তাদের নির্দেশমত সব ধরনের ওষুধও বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

মুক্তামনির দুই পা এবং অন্য হাত দেখলে মনে হয় সেখানে হাড় ছাড়া আর কিছুই নাই। অপরদিকে আক্রান্ত হাত কয়েক গুণ ফুলে মোটা হয়ে গেছে। বিকালে দুই ঘন্টার জন্য বসে থাকা ছাড়া সারা দিন-রাত বিছানায় শুয়ে কাটে তার। দুর্গন্ধ বেড়েছে অনেক বেশি। রোগের বিস্তার এখন হাতের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই, বুক পেট আর পায়েও ছড়িয়ে গেছে।

কয়েক দফায় আস্ত্রপাচারের পর ২০১৭ সালের ২২শে ডিসেম্বর ঢাকা মেডিকেল হাসপাতাল থেকে বাড়ি নিয়ে আসা হয় মুক্তামনিকে। হাতে টাইট ব্যান্ডেজও লাগিয়ে দেয়া হয় তার। বাবা মাকে নির্দেশনা দেয়া হয় ব্যান্ডেজটা কিছু দিন পর পর খুলে পরিষ্কার করার জন্য। এখন পরিষ্কার করতে গেলে প্রচুর রক্তক্ষরণ হচ্ছে মুক্তার হাত দিয়ে। সেই সাথে এগিয়ে আসছে বড় বড় সাইজের অনেক পোকা। এসব দেখে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে তার পরিবারটি। পোকা বের হওয়ার পর এলাকার ছেলে-মেয়েরা তার কাছে আর ভয়ে যেতে চায় না।

নিয়মিত মুক্তার বাবার সাথে ফোনে কথা হচ্ছে ঢাকা মেডিকেলের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের প্রকল্প পরিচালক ডা. সামন্ত লাল সেনের সঙ্গে। ইন্টারনেটের মাধ্যমে মুক্তার ছবিও দেখছে তারা। ছবি দেখে হাতের অবস্থা খারাপ বলে জানান ডাক্তাররা। তবে পুনরায় ঢাকা যাওয়ার ব্যাপারে কিছু জানানো হয়নি এখনো।

মুক্তার বাবা ইব্রাহিম হোসেন বলেন, ঢাকা মেডিকেল হাসপাতাল থেকে রিলিজ দেয়ার সময় মুক্তার হাতে টাইট ব্যান্ডেজ করে দিয়েছিল। এটা মাঝে মাঝে খুলে পরিষ্কার করার নিয়ম দেখিয়ে দিয়েছিল ডাক্তাররা। এখন ওটা দুইদিন পরিষ্কার না করলেই হাতটি অনেক দুর্গন্ধ হয় আবার খুলে বেশিক্ষণ রাখলেও হাত অনেক ফুলে মোটা হয়ে যায়। তার বাবা আরও জানান, তার পুরো হাতটি পচে গেছে আমরা তার (মুক্তার) আশা ছেড়ে দিয়েছি ভাই এখন আল্লাহর ভরসা।

এসময় মুক্তার মা জানান, ডাক্তারদের চেষ্টা আর আন্তরিকতার কোন ঘাটতি ছিলনা। প্রধানমন্ত্রীও মুক্তার ব্যাপারে খোঁজ নিয়েছেন। সবাই আমার মেয়েকে গুরুত্বের সাথে দেখেছেন। আসলে মুক্তা আল্লাহর খুব প্রিয় বান্দি তাই তাকে এভাবে পরীক্ষা করা হচ্ছে এতে দুনিয়ার মানুষের কোনো হাত নেই।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিআরএইচ

সর্বাধিক পঠিত