তেলাপোকার চরিত্রেও অভিনয় করেছিলেন ডাগ জোনস্‌!

ঢাকা, বুধবার   ২২ মে ২০১৯,   জ্যৈষ্ঠ ৭ ১৪২৬,   ১৬ রমজান ১৪৪০

Best Electronics

তেলাপোকার চরিত্রেও অভিনয় করেছিলেন ডাগ জোনস্‌!

 প্রকাশিত: ১০:১৩ ৭ অক্টোবর ২০১৮   আপডেট: ১০:১৩ ৭ অক্টোবর ২০১৮

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

‘ডাগ জোনস্‌’। তাকে হয়ত অনেকেই চেনেন না। তবে তিনি পৃথিবীর ব্যস্ততম একজন ‘ফিল্ম-স্টার’। এমনকি এবারের অস্কারের সেরা সিনেমাটিতে ডাগের চরিত্রটিই ছিল সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ!

একদিন তিনি তার স্ত্রী লরির সঙ্গে বসে ছিলেন ক্যালিফোর্নিয়ার বেশ বিলাসবহুল একটি রেস্টুরেন্টে। কী খাবেন তাও বলে দিয়েছেন। অপেক্ষায় দু’জন গল্প করছেন ভাল-মন্দ নিয়ে। আশেপাশের প্রায় সব টেবিলেই মানুষ। কিন্তু কেউ তার দিকে চোখ তুলেও তাকাচ্ছে না। বিষয়টি বেশ ভাবিয়ে তুলেছিল তাকে। ওয়েটারও এসে স্বাভাবিকভাবে খাবার দিয়ে গেল। এরপরই তিনি বুঝতে পারেন, অনেক অপিরিচিত মুখ তিনি।

সাধারনত সিনেমার ‘তারকা’ হতে হলে অভিনয়ের সঙ্গে সঙ্গে নিজের চেহারাই মুখ্য হয়ে দাড়ায়। আবার অনেক ক্ষেত্রে অভিনয়ও লাগে না। শুধু চেহারা থাকলেই হয়। কিন্তু ডাগ এর ক্ষেত্রে বিষয়টা পুরোই উল্টো।

হলিউড তারকা ডাগ জোনস্‌ প্রায় ৩০ বছর ধরে সিনেমায় অভিনয় করছেন, এমনকি জনপ্রিয় সব চরিত্রে এরইমধ্যে তিনি অভিনয় করেছেন। যেটি শুনলে চমকে যাবেন অনেকেই। কিন্তু সমস্যা একটাই একশ’জন মানুষের মধ্যে একজনও তার মুখ ঠিক মত চেনেন কিনা সন্দেহ। তাহলে চলুন আগে জানা যাক, কে এই ‘ডাগ জোনস্‌’?

টিম বার্টন পরিচালিত ‘ব্যাটম্যান বিগিনস্‌’ দেখেছেন অনেকেই। সেই সিনেমাটিতে পাতলা স্বাস্থ্যের একজন জোকারকে দেখানো হয়েছে। আসলে মেকাপের পেছনে কে ছিল সেই মুখোশধারী?

এছাড়াও ‘হোকাস পোকাস’ সিনেমায় বিলি বুচারসনের চরিত্রে, ‘হেল বয়’ সিনেমায় অ্যাবি সেপিয়ান চরিত্রে, ‘ফ্যান্টাসটিক ফোরঃ রাইজ অব দ্য সিলভার সার্ফার’ সিনেমায় সিলভার সার্ফারের চরিত্রে, এমনকি প্যানস ‘ল্যাবিরিন্থ’ দেখেননি এমন কেউ নেই মনে হয়। তাতে ‘দ্য ফন’ এর চরিত্রে মুখোশের পেছনে কে ছিল? এছাড়াও এই বছর অস্কার পেল ডেল টোরোর ‘দ্য শেপ অব ওয়াটার’ এই সিনেমায় যে উভচর মানুষের কাল্পনিক চরিত্রটি ছিল সে কে ছিল? এসব ছবির কেন্দ্রিয় চরিত্রে ছিলেন ডাগ জোনস্‌।

১৯৬০ সালে তার জন্ম হয় আমেরিকার ইন্ডিয়ানা রাজ্যে। সেইসময়ই স্কুলজীবনে মুকাভিনয় শিখে নেন তিনি। এরপর ১৯৮৫ সালে ইন্ডিয়ানা থেকে লস এঞ্জেলসে চলে আসেন ডাগ। তবে শৈশব তেমন একটা বিচিত্র না হলেও তার অভিনয়জীবন কেটেছে বেশ অনন্য বৈচিত্রের মধ্য দিয়ে।

বিশিষ্ট অস্কার প্রাপ্ত পরিচালক গুয়েলেরমো ডেল তোরো’র সবচেয়ে পছন্দের অভিনেতা হল ডাগ জোনস্‌। এমনকি তারই পরিচালনাতে তার চমৎকার কিছু চরিত্রে অভিনয় করার সুযোগ হয়।

তবে তিনি মুখোশের পেছনে প্রথম অভিনয় শুরু করেন ১৯৮৬ সালে। ম্যাকডোনাল্ডস্‌ এর একটি টিভি বিজ্ঞাপনে ডাগ অর্ধেক চাঁদের একটি মুখোশ পড়েছিলেন। এবং সেই বিজ্ঞাপন সিরিজটির নাম হল ‘ম্যাক টুনাইট’। তখন সেটি বেশ বিখ্যাতও হয়। এরপরের তিন বছরে ডাগ প্রায় ২৭ টি বিজ্ঞাপনে এই ধরণের মেক-আপ করে অভিনয় করেন।

ডাগ নব্বই দশকের পুরোটা সময় ধরেই এমন অস্পষ্ট চরিত্রে অভিনয় করেছেন। যে সকল চরিত্র মানুষ টিভি কিংবা সিনেমার পর্দায় দেখার পরপরই ভুলে যায়। এরপরেও তিনি অভিনয় করতে থাকেন একটার পর একটা টিভি সিরিজ আর সিনেমাতে।

‘বাফি দ্য ভ্যাম্পায়ার স্লেয়ার’ সিনেমার জন্য ১৯৯৯ সালে যখন ডাগ অডিশন দিতে যান তখনই তিনি জেনেই গিয়েছিলেন যে, সেই চরিত্রটির কোনও সংলাপ নেই। হয়তবা কিছু মুহূর্তের জন্য দেখা যাবে তাকে। এমনকি ঠিক তাই ঘটলো। তখন তাকে বলা হল এমন চরিত্রে অভিনয় করতে হবে যে, একটি মৃতদেহের সামনে বসে আছেন তিনি। যে কিনা শান্তভাবে উঠে দাঁড়িয়ে বিকট ভাবে হাসতে থাকবে।

তাছাড়াও জর্জ ক্লুনি, মার্ক ওয়ালবার্গ এবং আইস কিউবের সিনেমায় তার এই চরিত্রটিও মেকাপে মুখ ঢেকে করতে হয়েছে। সেই চরিত্রটি ছিল আসলে একজন মৃত ইরাকি সৈনিকের।

১৯৯৭ সালে পরিচালক গুয়েলেরমো ডেল তোরো’র সঙ্গে ডাগ জোনস্‌ এর প্রথম পরিচয় হয়। এরপর সেখানে একটি তেলাপোকার চরিত্রে ঢুকে পড়েন ডাগ জোনস্‌।

এদিকে, ডাগ জোনস্‌ এর সিনেমার মধ্যে জীবনের প্রথম বড় সাফল্য বয়ে আনে ‘প্যানস্‌ ল্যাবিরিন্থ’। এই সিনেমাটিতে ডাগ এক সঙ্গে দুইটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন। একটি হলো ‘দ্য ফন’ নামের এক প্রাচীন দেবতার এবং অন্যটি হলো ‘দ্য পেল ম্যান’ নামের আরেকটি অতিমানবীয় চরিত্রে। তখন প্যানস্‌ ল্যাবিরিন্থ পায় ব্যাপক সাফল্য। মোট ছয়টি নমিনেশন, চারটি অস্কার, এবং সেরা মেক-আপ ক্যাটাগরিতেও পুরস্কার পায়। যা কিনা একমাত্র সম্ভব হয়েছিল ডাগ জোনস্‌ এর কারণে।

এখন পর্যন্ত ডাগ জোনস্‌ মোট সিনেমা, টিভি সিরিজ এবং ওয়েব সিরিজ মিলিয়ে আড়াই’শ চরিত্রে অভিনয় করেছেন। তবে অভূতপূর্ব কিছু মেকাপ ও মুখোশের আড়ালে। শোনা গিয়েছে হেল বয় সিনেমার মেক-আপ করতে ডাগকে চেয়ারে বসে থাকতে হয়েছে একটানা প্রায় সাত ঘটনা। সিলিকন আর রাবারের আস্তরে ঢেকে যায় তার পুরো শরীর। তবুও তিনি চালিয়ে গেছেন তার কাল্পনিক চরিত্র গুলো।

সোয়া ৬ফিট লম্বা ডাগ জোনস্‌ এই বছর তার সারাজীবনের সব থেকে বড় স্বপ্ন পূরণ করতে যাচ্ছেন। ডেভিড লি ফিশার পরিচালিত ‘নস্ফেরাতু’ নামের সিনেমাতে নিজের কন্ঠে সংলাপ বলবেন ডাগ। কিন্তু পুরু মেকাপের আড়ালে মুখ ঢেকে।

মূলত এই সিনেমাটিতে তার চরিত্র একজন ভ্যাম্পায়ারের। সাতান্ন বছরের ডাগের এই একটাই চরিত্রেই অভিনয় বাকি ছিল এবং এটাই তার একমাত্র শখ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। তাই আমরা এই সিনেমার মধ্য দিয়ে ডাগ জোনস্‌ এর ভ্যাম্পায়ার রুপ নিশ্চয়ই দেখতে পারবো!

ডেইলি বাংলাদেশ/টিআরএইচ

Best Electronics