৭২ ঘণ্টার মধ্যেই করোনাভাইরাস প্রতিরোধের নয়া উপায় জানালেন চিকিৎসক!

ঢাকা, বুধবার   ২৭ মে ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ১৪ ১৪২৭,   ০৪ শাওয়াল ১৪৪১

Beximco LPG Gas

৭২ ঘণ্টার মধ্যেই করোনাভাইরাস প্রতিরোধের নয়া উপায় জানালেন চিকিৎসক!

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:৫৩ ২৭ মার্চ ২০২০   আপডেট: ১৩:৫৬ ২৭ মার্চ ২০২০

ছবি: প্রতীকী

ছবি: প্রতীকী

করোনায় বিশ্বব্যাপী মৃত্যুর মিছিল বেড়েই চলেছে। এর প্রতিষেধক এখনো ধরা ছোঁয়ার বাইরে। এজন্যই স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দিচ্ছেন ব্যক্তিগত সুরক্ষা ও পুষ্টিকর খাবারের মাধ্যমে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে। আপনি জানেন কি? খাদ্যাভ্যাসের বদলেই রুখে দিতে পারেন করোনা, তাও আবার মাত্র ৭২ ঘণ্টায়!

অবিশ্বাস্য বলে মনে হচ্ছে? করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের সুস্থতার জন্য তিন ধাপের খাদ্যাভ্যাস সুপারিশ করেছেন ভারতীয় চিকিৎসক ডা. বিশ্বরূপ রায় চৌধুরী। তিনি জানিয়েছেন, এই খাদ্যাভ্যাসে যে কোনো ভাইরাসজনিত রোগ ৭২ ঘণ্টায় নির্মূল করা সম্ভব। এই উপায়ে জিকা, নীপা, ডেঙ্গু জ্বর, চিকুনগুণিয়া এমনকি করোনাভাইরাসও নির্মূল হবে খুব সহজেই। ভাইরাসজনিত রোগের প্রথম লক্ষণ হচ্ছে শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়া। আর তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই এই তিনটি ধাপ অনুসরণ করুন। 

প্রথম ধাপ 

শুরুর দিন আপনাকে শুধু তরল জাতীয় খাবার গ্রহণ করতে হবে। প্রথমে আপনার শরীরের ওজনকে ১০ দিয়ে ভাগ করে যে সংখ্যা দাঁড়াবে সেই পরিমাণে ডাবের পানি পান করুন। অর্থাৎ আপনার ওজন যদি ৭০ কেজি হয়, ভাইরাস জনিত জ্বরের প্রথম দিন আপনি ৭ গ্লাস ডাবের পানি পান করতে হবে। সেইসঙ্গে একই পরিমাণে সারা দিন বিভিন্ন ফলের রস খেতে হবে। 

মনে রাখবেন, জ্বরের প্রথম দিন নিজের শরীরের ওজন ১০ ভাগের এক ভাগ দিয়ে শুধু ডাবের পানি এবং বিভিন্ন ফলের রস ছাড়া আর কিছুই খাওয়া যাবে না। প্রথম দিন শেষে খেয়াল করবেন দ্বিতীয় দিনে আপনার জ্বর নিয়ন্ত্রিত অবস্থায় চলে এসেছে।

দ্বিতীয় ধাপ

এদিন আপনার শরীরের ওজনকে ২০ দিয়ে ভাগ দিলে যে সংখ্যা দাঁড়ায় সেই পরিমাণে ডাবের পানি এবং ফলের রস খেতে হবে। অর্থাৎ আপনার ওজন যদি ৮০ কেজি হয় তাকে ২০ দিয়ে ভাগ দিলে দাঁড়ায় ৪। অর্থাৎ আপনাকে ৪ গ্লাস ডাবের পানি এবং ৪ গ্লাস ফলের রস খেতে হবে। সঙ্গে শরীরের ওজনকে ৫ দিয়ে গুণ করে সেই পরিমাণে টমেটো এবং শসা খেয়ে নিবেন।

অর্থাৎ আপনার শরীরের ওজন যদি ৭০ কেজি হয়, ৭০ কে ৫ দিয়ে গুণ করে দাঁড়ায় ৩৫০। যার অর্থ আপনাকে ৩৫০ গ্রাম টমেটো এবং শসা খেয়ে হবে। মনে রাখবেন, এসব আপনি ওষুধ হিসেবে খাচ্ছেন। অতএব কোনোভাবেই হেঁয়ালি কিংবা কম খাওয়া যাবে না। বরং বেশি খেতে পারেন।

তৃতীয় ধাপ

তৃতীয় দিনে সকাল ১২টা পর্যন্ত সকালের নাস্তা হিসেবে খেতে হবে ডাবের পানি এবং ফলের রস। যা আপনার শরীরের ওজনকে ৩০ দিয়ে ভাগ দেয়ার পর যে সংখ্যা দাঁড়ায় সেই অনুসারে। অর্থাৎ আপনার ওজন ৯০ কেজি হলে ৯০ কে ত্রিশ দিয়ে ভাগ দিলে দাঁড়ায় ৩। অর্থাৎ আপনাকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত তিন গ্লাস ডাবের পানি এবং তিন গ্লাস ফলের রস খেতে হবে। 

এ দিন দুপুরে দ্বিতীয় দিনের মতো শরীরের ওজনকে ৫ দিয়ে গুণ করে যে সংখ্যা দাঁড়ায় সেই পরিমাণ টমেটো ও শসা খেতে হবে। এরপর রাত থেকে আপনি সাধারণ খাবার খাওয়া শুরু করুন। দেখবেন এরই মধ্যে আপনি সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

তাই করোনা নিয়ে দুশ্চিন্তার কিছু নেই। যে কোনো ভাইরাস হোক না কোনো যখন আপনি এই তিন ধাপ অনুসরণ করতে পারেন। এতে কোনো ভাইরাস শরীরে ৭২ ঘণ্টার বেশি স্থায়ী হতে পারবে না।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস