৬০ বছরেরও বেশি গোসল না করার রেকর্ড যার, প্রিয় খাবার পচা সজারু
SELECT bn_content.*, bn_bas_category.*, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeInserted, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeInserted, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeUpdated, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeUpdated, bn_totalhit.TotalHit FROM bn_content INNER JOIN bn_bas_category ON bn_bas_category.CategoryID=bn_content.CategoryID INNER JOIN bn_totalhit ON bn_totalhit.ContentID=bn_content.ContentID WHERE bn_content.Deletable=1 AND bn_content.ShowContent=1 AND bn_content.ContentID=134493 LIMIT 1

ঢাকা, রোববার   ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০,   আশ্বিন ৫ ১৪২৭,   ০১ সফর ১৪৪২

Beximco LPG Gas

৬০ বছরেরও বেশি গোসল না করার রেকর্ড যার, প্রিয় খাবার পচা সজারু

মজার খবর ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:০৯ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আপডেট: ২০:৩৪ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

রেকর্ড গড়াই তার উদ্দেশ্য। কত দশক গোসল না করে থাকা যায়, তার রেকর্ড। আপাতত সেই রেকর্ড ইরানের আমৌ হাজির পকেটে। তার দাবি, গত ছ’দশকেরও বেশি সময় তিনি গোসল করেননি।  

গোসল করে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকলে নাকি তার অস্বস্তি হয়। তাই নোংরা, মলিন থাকতেই পছন্দ করেন এই বৃদ্ধ। ভালবাসেন পাইপ টানতে। তবে সেখানে ভরা থাকে বিভিন্ন পশুর বর্জ্য পদার্থ। তামাকের বদলে তার ধোঁয়াতেই সুখটান পান তিনি। 

তবে যার কাছ থেকে রেকর্ড ছিনিয়ে নিয়েছেন আমৌ, তিনি ভারতের কৈলাস সিংহ। কৈলাসের বাড়ি ভারতের বারাণসীতে। তিনিও আমৌ-এর মতো গোসল করতে মনেপ্রাণে ঘৃণা করেন। ১৯৭৪ থেকে চার দশকেরও বেশি সময় তিনি গোসল করেন না। সে বছর তার বিয়ে হয়েছিল। কৈলাসের দাবি, এক সাধু তাকে বলেছিলেন, গোসল না করলে তিনি পুত্র সন্তান লাভ করবেন।  

কিন্তু ইরানের আমৌ-এর ক্ষেত্রে গোসলাতঙ্কের কারণ জানা যায়নি। তবে কাশীর কৈলাস বা সুদূর পারস্যের আমৌ, দু’জনেই গোসল না করলেও প্রচুর জলপান করেন। একটা মরচে ধরা পাত্র থেকে সারাদিনে তিনি পাঁচ লিটার জলপান করেন।  

কিন্তু পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে দু’জনেরই প্রবল অনীহা। আমৌ তো চুলও কাটেন না। খুব বড় হয়ে গেলে নিতান্ত দরকার পড়লে চুল পুড়িয়ে ফেলেন। তার প্রিয় খাবার সজারুর পচা মাংস। ঠান্ডায় কষ্ট পেলে মাথায় পরে নেন পুরনো আমলের শিরস্ত্রাণ।  

রাতে ঘুমনোর সময় আমৌ বেশিরভাগ দিন বেছে নেন তাঁর মাটির নিচের গর্ত। খানিকটা কবরের মতো সেই আস্তানা। অনেক সময় আকাশের নীচে খোলা মাঠেও শুয়ে পড়েন।  

তবে এ কথা ভাবার কারণ নেই যে, আমৌ হাজি নিজের যত্ন করেন না । মাঝে মাঝেই গাড়ির ভাঙা আয়নায় দেখে নেন চেহারা। ফুটিফাটা পোশাক পরনে নিজের মলিন চেহারাটা দেখতে তার বেশ ভাল লাগে। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এমএইচ