‘৫ টাকায় ঈদের জামা’ পেল সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা
SELECT bn_content.*, bn_bas_category.*, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeInserted, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeInserted, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeUpdated, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeUpdated, bn_totalhit.TotalHit FROM bn_content INNER JOIN bn_bas_category ON bn_bas_category.CategoryID=bn_content.CategoryID INNER JOIN bn_totalhit ON bn_totalhit.ContentID=bn_content.ContentID WHERE bn_content.Deletable=1 AND bn_content.ShowContent=1 AND bn_content.ContentID=197237 LIMIT 1

ঢাকা, শনিবার   ০৮ আগস্ট ২০২০,   শ্রাবণ ২৫ ১৪২৭,   ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

Beximco LPG Gas

‘৫ টাকায় ঈদের জামা’ পেল সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা

নড়াইল প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:১২ ৩০ জুলাই ২০২০  

নড়াইলে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের ‘৫ টাকায় ঈদের জামা’ দিয়েছে ‘স্বপ্নের খোঁজে’

নড়াইলে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের ‘৫ টাকায় ঈদের জামা’ দিয়েছে ‘স্বপ্নের খোঁজে’

নড়াইলে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মাঝে পাঁচ টাকায় ঈদের জামা বিতরণ করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সংগঠন ‘স্বপ্নের খোঁজে’। বৃহস্পতিবার দিনব্যাপী নড়াইল পৌরসভার মোস্তারী কমপ্লেক্সে কয়েকশ শিশুকে ঈদের জামা উপহার দিয়েছে সংগঠনটি।

পৌরসভার মুচিরপোল এলাকার ১২ বছর বয়সী আরমান। ভ্যানচালক বাবার পক্ষে তাকে ঈদে নতুন জামা কিনে দেয়ার সামর্থ্য নেই। ‘স্বপ্নের খোঁজে’ সংগঠনের পক্ষ থেকে ঈদ উপলক্ষে পাঁচ টাকায় নতুন পাঞ্জাবী পেয়ে ভীষণ খুশি আরমান। সে বলে, এই পাঞ্জাবি পরে ঈদের নামাজ পড়বো। এরপর বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরে বেড়াব।

ঈদের জামা পেয়ে আরমানের মতোই খুশি গোয়াটখোলা বস্তির জেসমিন, জুঁই, মিলন, ইমরান, পুতুলসহ অনেক শিশু। নতুন জামা নিজের গায়ে ধরে রেখে খুশিতে আত্মহারা জেসমিন বলে, এই সুন্দর ফ্রকটি আমি পাঁচ টাকা দিয়ে  কিনেছি। এটা পরে ঈদের দিন খালার বাড়ি বেড়াতে যাব, আর সারাদিন ঘুরব।

করোনা মহামারিতেও নড়াইলের অসহায় মানুষের পাশে ছিল ‘স্বপ্নের খোঁজে’। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় নিজেদের হাত খরচ বাঁচিয়ে চার মাসে তিন হাজার মানুষকে বিনামূল্যে বাজার, মাস্ক ও সাবানসহ প্রয়োজনীয় সামগ্রী আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন সংগঠনটির সদস্যরা।

২০১৭ সালে মানুষের জন্য কিছু করার তাগিদে সতেজ, পরান, শামীমসহ কয়েকজন বন্ধু মিলে গড়ে তোলেন ‘স্বপ্নের খোঁজে’। এরপর তাদের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন সোহাগ, রাজ, পরাগ, শামীম, নেওয়াজ, সাদিসহ আরো কয়েকজন।

‘স্বপ্নের খোঁজে’র উদ্যোক্তা সতেজ বলেন, আমরা বিলাসিতা পরিহার করে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়াতে চাই। আমাদের সামান্য কষ্টের বিনিময়ে কারো মুখে হাসি ফুটলে জীবন স্বার্থক মনে হয়।

পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর শরিফুল আলম লিটু বলেন, ছাত্ররা এই বয়সে যে ত্যাগ করে অন্যের মুখে হাসি ফোটাচ্ছে। এটা আমরাও পারি না। আমরা ওদের পাশে থাকলে দেশ আরো সুন্দর হবে। ধনী-দরিদ্র ভেদাভেদ কমে আসবে।

শিক্ষার্থীদের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে নড়াইলের ডিসি আনজুমান আরা বলেন, ‍ছেলেমেয়েরা এসব ভালো কাজের মধ্য দিয়ে নিজেদের আদর্শ যেমন ধরে রাখতে পারবে তেমনি সুন্দর দেশ গড়তে বিরাট ভূমিকা রাখবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর