৩২ টি বই থেকে ৮ লাখ স্কয়ারফিটে ‘বইমেলা’

ঢাকা, শুক্রবার   ১০ এপ্রিল ২০২০,   চৈত্র ২৭ ১৪২৬,   ১৬ শা'বান ১৪৪১

Akash

৩২ টি বই থেকে ৮ লাখ স্কয়ারফিটে ‘বইমেলা’

ফিচার ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১০:৩৩ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১০:৪২ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

‘বইমেলা’ কিংবা ‘গ্রন্থমেলা’ শব্দ দু’টি শুনলেই চোখের সামনে ভেসে ওঠে বাংলা একাডেমির আয়োজিত একুশে বইমেলা। যে মেলা বইপ্রেমী মানুষের প্রাণে দোলা দেয়। কোনো এক অদৃশ্য শক্তিবলে লাখো মানুষকে টেনে আনে বাংলা একাডেমির বর্ধমান হাউস প্রাঙ্গণে।

অমর একুশে গ্রন্থমেলা আমাদের কাছে ব্যাপকভাবে একুশে বইমেলা নামেই পরিচিত। স্বাধীন বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী মেলাগুলোর মধ্যে অন্যতম এ মেলার ইতিহাস স্বাধীন বাংলাদেশের মতোই প্রাচীন। মেলাকে কেন্দ্র করে বর্ধমান হাউস ও এর আশেপাশে জমে ওঠে লেখকদের জমজমাট আড্ডা। কাটে লেখক প্রকাশকদের নির্ঘুম রাত। প্রকাশিত হয় হাজার হাজার বই। নতুন বইয়ের ম ম গন্ধে মোহিত হন মেলায় আসা ক্রেতা, দর্শনার্থী। সারা মাস জুড়ে বিক্রি হয় লাখো বইয়ের কপি।

বইয়ের স্টলের সামনে পাঠকের ভিড়তবে কখনো কি ভেবে দেখেছেন, কোথায়, কীভাবে এই মেলার সূত্রপাত হয়? দেশ স্বাধীনের আগে বাংলাদেশের প্রথম বইমেলা অনুষ্ঠিত হয়েছিল ১৯৬৫ সালে। তৎকালীন কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরিতে (বর্তমান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরি)। এটি ছিল মূলত শিশু গ্রন্থমেলা, যার আয়োজন করেছিলেন কথাসাহিত্যিক সরদার জয়েনউদদীন। তিনি একসময় বাংলা একাডেমিতে চাকরি করতেন। এরপর আরো বড় আয়োজনে গ্রন্থমেলা করার সুযোগ খুঁজতে থাকেন তিনি। 

১৯৭০ সালে নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের সহযোগিতায় নারায়ণগঞ্জে একটি গ্রন্থমেলার আয়োজন করেন তিনি। এই মেলায় আলোচনা সভারও ব্যবস্থা ছিল যাতে অংশ নেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের তৎকালীন প্রধান অধ্যাপক মুহাম্মদ আব্দুল হাই, শহীদ অধ্যাপক মুনীর চৌধুরী ও সরদার ফজলুল করিম। সেখান থেকেই শুরু।

তবে দেশ স্বাধীন হওয়ার পরপরই বাংলা একাডেমিতে একুশের অনুষ্ঠানে কোনো বইমেলা হয়নি। তখন ১৯৭২ সালে একাডেমির দেয়ালেরদবাইরে স্ট্যান্ডার্ড পাবলিশার্সের রুহুল আমিন নিজামী তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রগতি প্রকাশনীর কিছু বইয়ের পসরা সাজিয়ে বসতেন। সে পর্যন্তই ছিল বই বিক্রির অবস্থান।

ছোটদের হাতে বইএরপর যতদূর জানা যায়, ১৯৭২ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি বাংলা একাডেমির বর্ধমান হাউসের সামনের বটতলায় বইমেলার গোড়াপত্তন ঘটে। এর মূল নায়ক ছিলেন শ্রী চিত্তরঞ্জন সাহা। তিনি এক টুকরো চটের ওপর কলকাতা থেকে আনা ৩২টি বই সাজিয়ে বটতলায় বসেছিলেন। এই ৩২টি বই ছিলো চিত্তরঞ্জন সাহা প্রতিষ্ঠিত স্বাধীন বাংলা সাহিত্য পরিষদ (বর্তমানে মুক্তধারা প্রকাশনী) থেকে প্রকাশিত মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতে অবস্থানকারী বাংলাদেশি শরণার্থী লেখকদের লেখা বই।

এর পেছনে রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ এক প্রেক্ষাপট। বাংলাদেশে তখন চলছিল যুদ্ধের দামামা। অনেক বিশিষ্ট লেখক, শিল্পী ও সাংবাদিককে দেশপ্রেমের অপরাধে কারাবাসের শাস্তি দেয় পাকিস্তান সরকার। তখন তারা পালিয়ে শরণার্থী হিসেবে কলকাতায় অবস্থান করেন। সেখানেও নিয়মিতভাবে চলতো তাদের সাহিত্য চর্চা। সবাই একত্রিত হতেন জাতীয় অধ্যাপক সৈয়দ আলী আহসানের কলকাতাস্থ অস্থায়ী বাসায়। লেখক, সাংবাদিক ও শিল্পীদের এই আড্ডায় উপস্থিত থাকতেন দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন সাহাও। 

নিয়মিত উপস্থিত থেকে দেশের জন্য কাজ চালিয়ে যেতে তাদেরকে উৎসাহ দিতেন তিনি। নির্বাসিত এই লেখকদের বই প্রকাশ করার দায়িত্ব তিনি নিজেই নিলেন। সে সময় চিত্তরঞ্জন সাহার ভূমিকায় এবং অন্যান্যদের সহায়তায় ‘স্বাধীন বাংলা সাহিত্য পরিষদ’ নামে কলকাতায় একটি সংস্থা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এই সংস্থাটিই পরবর্তীতে ‘মুক্তধারা প্রকাশনী’তে পরিণত হয়। স্বাধীন বাংলা সাহিত্য পরিষদ থেকে তখন ধীরে ধীরে তাদের বেশ কয়েকটি বই প্রকাশিত হয়। 

বইমেলায় উপচে ভিড়১৯৭১, সবে স্বাধীন হয়েছে দেশ। চিত্তরঞ্জন সাহা কলকাতা থেকে সেই লেখকদের কিছু বই নিয়ে আসেন বাংলাদেশে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশে বর্ধমান হাউজের বটতলায় এক টুকরো চটের উপর শরণার্থী লেখকদের ৩২টি বই নিয়ে বসে যান বিক্রি করতে। স্বাধীন বাংলাদেশের প্রকাশনা শিল্পের প্রাথমিক উপাদান ছিল এই বইগুলো। সেজন্য বইয়ের ইতিহাসের পাশাপাশি দেশের ইতিহাসেও এর গুরুত্ব অনেক। ১৯৭২ থেকে ১৯৭৬ সাল পর্যন্ত এভাবেই মেলায় বই বিক্রির চর্চা একাই চালিয়ে যান তিনি। পরবর্তীতে বই বিক্রি করার এই আইডিয়াতে অনুপ্রাণিত হয়ে অন্যান্য প্রকাশনীরা এখানে বই সাজানোতে যুক্ত হন। 

১৯৭৬ সালে কিছু প্রকাশক এসে একাত্ম হন চিত্তরঞ্জন সাহার সঙ্গে। এরও দুই বছর পর ১৯৭৮ সালে বাংলা একাডেমির সঙ্গে যুক্ত হয়। তখন বাংলা একাডেমির এই সম্পৃক্ততা মেলাকে অন্য একটি মাত্রায় নিয়ে যায়। সেসময় বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক ছিলেন আশরাফ সিদ্দিকী। তার সক্রিয় ভূমিকার ফলেই বইমেলা আজকের এই গৌরবময় অবস্থানে এসে দাঁড়িয়েছে।

১৯৭৯ সালে ‘বাংলাদেশ পুস্তক বিক্রেতা ও প্রকাশক সমিতি’ও মেলার সঙ্গে যুক্ত হয়। উল্লেখ্য এই সমিতিও প্রতিষ্ঠা করেছিলেন চিত্তরঞ্জন সাহা। এর থেকেই স্পষ্টত হয়, একুশে বইমেলার পথচলা চিত্তরঞ্জন সাহার হাত ধরেই শুরু। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৭৩ সালে বাংলা একাডেমি মেলা উপলক্ষে ১৫ থেকে ২১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বিশেষ হ্রাসকৃত মূল্যে একাডেমি থেকে প্রকাশিত বই বিক্রির ব্যবস্থা করে। এর পাশাপাশি মুক্তধারা, স্ট্যান্ডার্ড পাবলিশার্স ও তাদের দেখাদেখি আরো অনেকে বাংলা একাডেমির মাঠে নিজেদের বই বিক্রির উদ্যোগ নেয়। 

বইয়ের স্টল১৯৮১ সালে বইমেলার মেয়াদ ২১ দিনের পরিবর্তে ১৪ দিন করা হয়। এরপর প্রকাশকদের দাবির মুখে ১৯৮২ সালে মেলার মেয়াদ আবার ২১ দিনে বৃদ্ধি করা হয়। মেলার উদ্যোক্তা ছিল বাংলা একাডেমি। সহযোগিতায় ছিল জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্র এবং বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি। ১৯৮৩ সালে কাজী মনজুরে মওলা বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হিসেবে বাংলা একাডেমিতে প্রথম অমর একুশে গ্রন্থমেলার আয়োজন করেন। মূলত ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি বাংলা ভাষার জন্য আত্মোৎসর্গের করুণ স্মৃতিকে অম্লান করে রাখতেই এই মেলার নামকরণ হয় ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলা’। যা নিয়মিতভাবে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। 

২০১৪ সাল থেকে অমর একুশে গ্রন্থমেলা বাংলা একাডেমির মুখোমুখি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সম্প্রসারিত হয়। প্রকাশকদের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে বাড়ানো হয় মেলার পরিসর। সেই ৩২টি বইয়ের ক্ষুদ্র মেলা কালানুক্রমে বাঙালির প্রাণের বইমেলায় পরিণত হয়েছে। সেইসঙ্গে লেখক, প্রকাশক ও পাঠকদের মহামিলন তীর্থস্থান হিসেবে পরিণত হয়েছে মেলা প্রাঙ্গণ। আগে প্রতি বছর ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম দিন থেকে ২১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত গ্রন্থমেলা অনুষ্ঠিত হতো। এরপর ক্রেতা, দর্শক ও বিক্রেতাদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ১৯৮৪ সাল থেকে ফেব্রুয়ারি মাসজুড়ে এই মেলা নিয়মিতভাবে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে।

মেলা প্রাঙ্গণপ্রতিবছরের মতো এ বছরও শুরু হয়েছে অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০২০। এবার একুশে গ্রন্থমেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে প্রায় আট লাখ বর্গফুট জায়গায়। এটি এ পর্যন্ত আয়োজিত মেলার মধ্যে সর্ববৃহৎ পরিসর। একাডেমি প্রাঙ্গণে ১২৬টি প্রতিষ্ঠানকে ১৭৯টি এবং সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশে ৪৩৪টি প্রতিষ্ঠানকে ৬৯৪টি ইউনিটসহ মোট ৫৬০টি প্রতিষ্ঠানকে ৮৭৩টি ইউনিট এবং বাংলা একাডেমিসহ ৩৩টি প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানকে ৩৪টি প্যাভিলিয়ন বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এবার লিটল ম্যাগাজিন চত্বর স্থানান্তরিত হয়েছে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশে।

১৫২টি লিটলম্যাগকে স্টল বরাদ্দ এবং ছয়টি উন্মুক্ত স্টল দেওয়া হয়েছে। একাডেমি প্রাঙ্গণ এবং সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশে বাংলা একাডেমির দুটি প্যাভিলিয়ন, চার ইউনিটের দুটি, একাডেমির শিশু-কিশোর উপযোগী বইয়ের জন্য একটি এবং একাডেমির সাহিত্য মাসিক ‘উত্তরাধিকার’-এর একটি স্টল থাকবে। এবারও শিশুচত্বর মেলার সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশে। এই কর্নারকে শিশু-কিশোরদের বিনোদন ও শিক্ষামূলক উপকরণে সজ্জিত করা হয়েছে। মাসব্যাপী গ্রন্থমেলায় এবারও ‘শিশুপ্রহর’ থাকছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস