.ঢাকা, সোমবার   ২৫ মার্চ ২০১৯,   চৈত্র ১১ ১৪২৫,   ১৮ রজব ১৪৪০

৩০ হলেই মুশফিকের রেকর্ড!

ক্রীড়া প্রতিবেদক

 প্রকাশিত: ১৩:০৯ ১১ জানুয়ারি ২০১৯   আপডেট: ১৩:০৯ ১১ জানুয়ারি ২০১৯

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

সব ধরনের টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট মিলিয়ে তিন হাজার রানের দ্বারপ্রান্তে আছেন মুশফিকুর রহিম। তামিম, সাকিব ও মাহমুদউল্লাহের পর চতুর্থ বাংলাদেশি হিসেবে এই রেকর্ডে নাম লেখাবেন মুশফিক। আর মাত্র ৩০ রান করলেই টি-টোয়েন্টিতে তিন হাজার রানের ক্লাবে প্রবেশ করবেন তিনি।

টি-টোয়েন্টিতে ১৫৮ ম্যাচ খেলে ১৪৪ ইনিংস ব্যাটিং করেছেন মুশফিক। ১৪৪ ইনিংসে ২৫.৭০ গড়ে তার সংগ্রহ ২৯৭০ রান। এই রান করার পথে মুশফিক ছয় হাঁকিয়েছেন ৮০ টি ও চার ২৪৫ টি। স্ট্রাইকরেট ১২৪.৮৪। ইনিংসে মুশফিকের সর্বোচ্চ রান ৮৬। কোনো সেঞ্চুরি না থাকলেও হাফ সেঞ্চুরি আছে ১৬ টি।

বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের মধ্য টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে সর্বোচ্চ রানের মালিক দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবাল। ১৭৯ ম্যাচের ১৭৮ ইনিংসে ২৯.৪২ গড়ে তামিম ইকবালের রান ৪৭৯৭। স্ট্রাইকরেট ১১৮.৬২ ও ইনিংস সর্বোচ্চ রান ১৩০। তামিমের ঝুলিতে চার আছে ৪০৮ টি ও ছয় আছে ১৩৭ টি। তামিম সেঞ্চুরি করেছেন ২ টি ও হাফ সেঞ্চুরি ৩১ টি।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রানের মালিক বাংলাদেশের টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের মধ্য সর্বোচ্চ টি-টোয়েন্টি ম্যাচও খেলেছেন সাকিব। ২৮২ ম্যাচের ২৫৭ ইনিংসে তার সংগ্রহ ৪৪৫৫। গড় ২০.৮১ ও স্ট্রাইকরেট ১২২.৫২। সর্বোচ্চ ইনিংস ৮৬ (অপরাজিত)। সাকিবের ঝুলিতে চার আছে ৪১৪ টি ও ছয় আছে ১১৬ টি। সাকিবেরও কোনো সেঞ্চুরি নেই, তবে হাফ সেঞ্চুরি আছে মুশফিকের সমান ১৬ টি। কাকতালীয় হলেও সত্যি বর্তমানে মুশফিক ও সাকিবের অর্ধ-শতকের সংখ্যা ও সর্বোচ্চ ইনিংসের রান সমান।

তৃতীয় বাংলাদেশি হিসেবে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ৩০০০ রানের ক্লাবে প্রবেশ করেছিলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। বর্তমানে বাংলাদেশিদের মধ্যে রানের সংখ্যায় তৃতীয় অবস্থানে রয়েছেন রিয়াদ। ১৮৭ ম্যাচের ১৬৮ ইনিংসে রিয়াদের সংগ্রহ ৩২৭২। সর্বোচ্চ ইনিংস অপরাজিত ৬৪ রান। মাহমুদউল্লাহের ঝুলিতে চার আছে ২৫৭ টি চার ও ১০৩ টি ছয়। তার ব্যাটিং গড় ২৪.৪১ ও স্ট্রাইকরেট ১১৭.৯৫। অর্ধ-শতক আছে ১০ টি।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএস/এমআরকে