১৮ বছর ধরে ঘরে থাকেন স্ত্রী, বারান্দায় স্বামী 

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৪ জুন ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ২১ ১৪২৭,   ১১ শাওয়াল ১৪৪১

Beximco LPG Gas

১৮ বছর ধরে ঘরে থাকেন স্ত্রী, বারান্দায় স্বামী 

ডেস্ক নিউজ ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১১:১৮ ২৭ মে ২০১৯   আপডেট: ১১:৩৭ ২৭ মে ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

স্ত্রীকে তালাক না দিয়েও গ্রাম্য মাতব্বরদের বিচারের রায়ে ১৮ বছর ধরে নিজ ঘরে পরবাসী জীবন কাটছে দেলোয়ার হোসেন সেন্টু নামের এক দিনমজুর

চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল সদর ইউপির আমজোয়ান গ্রামে ঘটেছে এ ঘটনা।

এ বিষয়ে সেন্টু বলেন, তিনি ও তার স্ত্রী অমানবিক এক সাজা পালন করে যাচ্ছেন। ১৮ বছর ধরে ঘরে থাকেন তার স্ত্রী সোফিয়া বেগম, আর তিনি থাকেন ঘরের বারান্দায়।

সোফিয়া ও তার ছেলে শাহিনের দাবি, স্ত্রী-সন্তানের ভরণপোষণ চালাতে না পারাতেই এমন রায় দিয়েছেন মাতব্বররা। ১৮ বছর ধরে মাতব্বরদের রায় ভাঙতে না পেরে পাগলপ্রায় সেন্টু।

সোফিয়া বলেন, মাতব্বরদের রায়ের কারণেই আজ আমার ও স্বামীর এমন দশা। 

২০০০ সালে একই গ্রামের বিত্তশালী ইলিয়াস আলীর মেয়ে সোফিয়া খাতুনের সঙ্গে ভালোবাসার সম্পর্ক হয় সেন্টুর। সেই টানে বাবার ধনসম্পদ ত্যাগ করে স্ত্রীর মর্যাদার দাবিতে তার জীর্ণ কুটিরে এসে এক রাতে এসে অনশন শুরু করে সোফিয়া।  বাপের বাড়ি ফেরাতে না পেরে নিরুপায় হয়ে ওই রাতেই নওগাঁ আদালতে গিয়ে সোফিয়াকে বিয়ে করেন সেন্টু।

বিত্তশালী ইলিয়াস এ বিয়ে কোনোভাবেই মেনে নিতে পারেননি। ফলে অপহরণের অভিযোগে সেন্টুর বিরুদ্ধে মামলা করেন তিনি। এতেও ক্ষান্ত হননি। কয়েক দফায় তাকে মারপিটও করেন। এতো কিছুর পরও সোফিয়া বাবা বাড়ি ফিরতে রাজি হননি।

এ দিকে সেন্টু ও সোফিয়ার সংসার আলো করে জন্ম নেয় ছেলে শাহিন। এরই মধ্যে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে সামান্য কথা কাটাকাটির ঘটনার জেরে গ্রাম্য সালিশ বসান ইলিয়াস।  

সোফিয়ার কথিত ভরণপোষণ না দেয়া ও স্বামী-স্ত্রীর মাঝে ঝগড়ার কারণে গ্রাম্য মাতব্বররা রায় দেন, সোফিয়া সেন্টুর ঘরেই থাকবে, কিন্তু সেন্টু কোনো দিন স্ত্রীর ওপর অধিকার খাটাতে পারবে না। এ রায় না মানা হলে সেন্টুকে কঠোর শাস্তি দেয়া হবে।

এ ব্যাপারে সোফিয়া বেগম বলেন, আমাদের মধ্যে তালাকের কোনো ব্যাপার ঘটেনি। আমার ভরণপোষণ না চালানোর জন্য সালিশদারেরা এমন অমানবিক সাজা দিয়ে রেখেছেন। 

সালিশদার হারেজ উদ্দিন বলেন, স্বামী-স্ত্রীর মাঝে তালাক হয়নি। স্ত্রীকে মারপিট ও ভরণপোষণ চালাতে না পারার কারণে ওই রায় দেয়া হয়েছিল। ভেবেছিলাম পরে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মিল-মহব্বত হয়ে যাবে।

জামাই ও মেয়ে এক ছাদের নিচে বসবাস করেও পরবাসী জীবন কেন? এ ব্যাপারে সোফিয়ার বাবা ইলিয়াস আলী বলেন, এটা তাদের ব্যক্তিগত বিষয়।

এ ব্যাপারে নাচোল থানার ওসি চৌধুরী জোবায়ের আহমেদ বলেন, অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে