‘১৪ ডিসেম্বরের মধ্যেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পৌঁছাবে পাঠ্যবই’

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৫ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ১১ ১৪২৬,   ২০ শাওয়াল ১৪৪০

‘১৪ ডিসেম্বরের মধ্যেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পৌঁছাবে পাঠ্যবই’

 প্রকাশিত: ১৯:৫৬ ৯ অক্টোবর ২০১৮   আপডেট: ১৯:৫৬ ৯ অক্টোবর ২০১৮

ছবি: পিআইডি

ছবি: পিআইডি

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, আগামী ১৪ ডিসেম্বরের মধ্যেই দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিনামূল্যে বিতরণের জন্য পাঠ্যবই পৌঁছে যাবে। ৩৫ কোটির বেশি পাঠ্যবই ছাপানো হচ্ছে। ছাপাখানাগুলোতে পুরোদমে বই ছাপার কাজ চলছে। এ পর্যন্ত প্রায় ১১ কোটি বই ছাপিয়ে মাঠ পর্যায়ে পৌঁছে দেয়া গেছে। প্রতিদিনই এক থেকে দেড় কোটি বই ছাপিয়ে উপজেলা পর্যায়ে পৌঁছে দেয়া হচ্ছে। 

মঙ্গলবার রাজধানীর মাতুয়াইল এলাকায় কয়েকটি ছাপাখানায় গিয়ে পাঠ্যবই মুদ্রণ কাজ পরিদর্শন শেষে এসব কথা বলেন তিনি।

মতিঝিলের ‘জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড’ (এনসিটিবি) ভবন থেকে রওনা হন নাহিদ। সাড়ে তিনটার দিকে মাতুয়াইল এলাকার লিখন আর্ট প্রেসে গিয়ে হাজির হন। এ সময় ছাপাখানা বিভিন্ন অংশ ঘুরে দেখেন শিক্ষামন্ত্রী। তিনি কয়েকটি মুদ্রিত বই হাতে নিয়ে কাগজের মান পরীক্ষা করেন। বই ছাপতে কী কী ধরণের সমস্যা হচ্ছে তা ছাপাখানার শ্রমিকদের কাছে জানতে চান। মন্ত্রী পরে অটোবাইন্ডিং মেশিনে বুক বাইন্ডিংয়ের কাজ প্রত্যক্ষ করেন। 

এ ছাপাখানার শ্রমিকরা জানান, তারা প্রাথমিক স্তরের ১৬ লাখ ১১ হাজার কপি পাঠ্যবই মুদ্রণের কাজ করছেন। এ মুদ্রণ প্রতিষ্ঠান থেকে বের হয়ে মন্ত্রী মাতুয়াইলের হাজী বাদশা মিয়া সড়ক ধরে পায়ে হেঁটে যান ‘জনতা প্রেস’ এ। 

জনতা প্রেস ও মৌসুমী আর্ট প্রেসের মালিক মো. নজরুল ইসলাম মন্ত্রীকে জানান, তিনি প্রাথমিক স্তরের ১১ লাখ ও মাধ্যমিক স্তরের ৭ লাখ বই ছাপার কাজ পেয়েছেন। ৮০ ভাগ বই তিনি এরই মধ্যে ছেপেছেন বলে জানান। মন্ত্রী এই ছাপাখানারও বিভিন্ন অংশ ঘুরে দেখেন ও মুদ্রণ শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলেন।

স্থানীয় কয়েজন প্রেসমালিক মন্ত্রীকে জানান, মাতুয়াইল এলাকায় লোড শেডিংয়ের সমস্যা প্রকট। একটু পর পর বিদ্যুৎ চলে যায়। এতে বইছাপার কাজ বিঘ্নিত হয়। শ্রমিকদের অলস বসিয়ে রাখতে হয়, এতে তাদের লোকসানও হয়। 

পরে সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে নাহিদ বলেন, কেবল সাধারণ পাঠ্যবই-ই নয়, প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য ব্রেইল বই এবং ৫টি নৃতাত্ত্বিক গোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের জন্য তাদের নিজ ভাষায় পাঠ্যবই ছাপানো হয়েছে। 

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এবার বইয়ের ছাপার মান অনেক ভালো হয়েছে। বইয়ের মান প্রতিবছরই উন্নত হচ্ছে। নির্বাচনের বছর সত্ত্বেও শিক্ষার্থীরা ঠিক সময়ে বই পাবে জানিয়ে নাহিদ বলেন, ১ জানুয়ারি বই দিতে কোনো সমস্যা হবে না।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, পাঠ্যক্রমের পরিবর্তন ও উন্নয়ন একটি ধারাবাহিক প্রক্রিয়া। প্রতিবছরই বইয়ের মান বাড়ানোর চেষ্টা অব্যাহত আছে। গতবছর ৯ম ও ১০ শ্রেণির ১২টি পাঠ্যপুস্তক নতুন আঙ্গিকে প্রকাশ করা হয়েছে। এ প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব নাজমুল হক খান, এনসিটিবির চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারায়ণ চন্দ্র সাহা, সদস্য (পাঠ্যপুস্তক) ড. মিয়া ইনামুল হক সিদ্দিকীসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআরকে/এলকে