Alexa ‘হৃদয়ের রংধনু’ মুক্তিতে চমক!

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৬ জুলাই ২০১৯,   শ্রাবণ ১ ১৪২৬,   ১২ জ্বিলকদ ১৪৪০

‘হৃদয়ের রংধনু’ মুক্তিতে চমক!

বিনোদন প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:৩৯ ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯   আপডেট: ১৮:০৩ ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর এবার প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাচ্ছে বহুল আলোচিত চলচ্চিত্র ‘হৃদয়ের রংধনু’। নির্মাণের পর প্রেক্ষাগৃহে মুক্তির সদন পেতে দুই বছরের বেশি সময় সেন্সর বোর্ডে আটকে থাকার পর গত ২৩ অক্টোবর ছাড়পত্র পায় ছবিটি। 

দেশের বিভিন্ন প্রাকৃতিক সৌন্দর্য স্থানগুলোকে তুলে ধরে এই চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করেছেন রাজিবুল হোসেন। চলচ্চিত্রটি আগামী শুক্রবার প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাচ্ছে বলে সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন পরিচালক।

কতগুলো প্রেক্ষাগৃহে দেখা যাবে ‘হৃদয়ের রংধনু’? এমন প্রশ্নের জবাবে নির্মাতা রাজিবুল হোসেন বলেন, ‘হৃদয়ের রংধনু’ মুক্তিতে আমরা একটু চমক রেখেছি। বাংলাদেশের প্রকাকৃতিক দর্শনীয় স্থান সমুহকে তুলে ধরে নির্মাণ করা হয়েছে চলচ্চিত্রটি। এই চলচ্চিত্রটি বাংলাদেশকে দেশ ও বিদেশের মানুষের কাছে নতুন করে পরিচয় করাবে বলে আমি বিশ্বাস করি।  

‘হৃদয়ের রংধনু’ আমরা প্রথম সপ্তাহে একটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি দিচ্ছি। প্রথম সপ্তাহে শুধুমাত্র বসুন্ধরা সিটির স্টার সিনেপ্লেক্সে দর্শক ছবিটি দেখতে পাবেন। চলচ্চিত্রটি যারা দেখবেন তারাই এর জন্য প্রচারণা চালাবেন বলে আমার বিশ্বাস। আর এভাবেই চলচ্চিত্রটির প্রচারনার কাজ চলতে থাকবে। দ্বিতীয় সপ্তাহে আমরা হলের সংখ্যা বাড়িয়ে দিবো।

এ সময় চলচ্চিত্রটির অন্যতম অভিনেতা শামস কাদির বলেন, ‘হৃদয়ের রংধনু’ বাংলাদেশের পর্যটন স্থানগুলোকে তুলে ধরে নির্মাণ করা হয়েছে। আমাদের দেশের অনেকেই আছেন যারা নিজের এলাকার বাইরে প্রযোজন ছাড়া যেতে চান না। অনেকই জানেন না যে এই দেশে এত্ত সুন্দর সুন্দর দর্শনীয় স্থান রয়েছে। ছবিটি এই ধরনের মানুষের সঙ্গে দেশকে নতুন করে পরিচয় করাতে সক্ষম হবে। 

এছাড়া আমরা একটি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেই শুধু দেশের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তির জন্য চিন্তা করি। কিন্তু পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে যে আমাদের বাংলা ভাষার অনেক দর্শক রয়েছেন সেদিকে কেউ দৃষ্টি দেইনা। আমাদেও উচিৎ দেশের বাইওে চলচ্চিত্র মুক্তির বিষয়ে জোর দেওয়া।

‘হৃদয়ের রংধনু’ দেশি-বিদেশি শিল্পীরা অভিনয় করেছেন। এদের মধ্যে আছেন অভিনেত্রী মিনা পেটকোভিচ (সার্বিয়া), শামস কাদির, মুহতাসিম স্বজন, খিং সাই মং মারমা প্রমুখ। ২০১৪ সালে শুরু হয়ে ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে শেষ হয়েছে ‘হৃদয়ের রংধনু’র শুটিং। দেশের ৫৪ জেলায় দৃশ্যধারণ করা হয়েছে চলচ্চিত্রটি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমএস/টিএএস