Alexa ‘হুমায়ূন আহমেদের নাটকে অভিনয়ের স্বাদ আমি আর কারও নাটকে পাইনি’

ঢাকা, শনিবার   ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ২২ ১৪২৬,   ০৯ রবিউস সানি ১৪৪১

‘হুমায়ূন আহমেদের নাটকে অভিনয়ের স্বাদ আমি আর কারও নাটকে পাইনি’

 প্রকাশিত: ০০:১৪ ২২ জুলাই ২০১৭  

‘অয়োময়’-এর ‘মীর্জা সাহেব’, ‘কোথাও কেউ নেই’-এর ‘বাকের’, ‘আগুনের পরশমনি’-এর মুক্তিযোদ্ধা নূর- এসব চরিত্রে অভিনয় করে খ্যাতির চূড়ায় ওঠা সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেছেন, “হুমায়ূন আহমেদের নাটকে অভিনয়ের স্বাদ আমি আর কারও নাটকে পাইনি।” তিনি আরও বলেন, “মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে হুমায়ূন আহমেদ ‘কাব্যিক ও অতিনাটকীয়’ নাট্যধারায় আমূল পরিবর্তন এনেছিলেন।” হুমায়ূন আহমেদের পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বৃহস্পতিবার ম্যাড থেটারের ‘নদ্দিউ নতিম’ নাটকের প্রদর্শনীতে এসে তিনি এসব কথা বলেন। আসাদুজ্জামান নূর আরও বলেন,“হুমায়ূন তার নাটকে মানুষের মুখের কথা, বুকের কথা, প্রতিদিনের কথা বলতেন।” আশি ও নব্বইয়ের দশকের জনপ্রিয় অভিনেতা আসাদুজ্জামান নূর এখন যদিও বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতিমন্ত্রী তবুও তাকে দেখে এখনো অনেকের মনে পড়ে হুমায়ূনের ‘কোথাও কেউ নেই’ নাটকের চরিত্র ‘বাকের ভাই’র কথা। জনপ্রিয় নানা চরিত্রে অভিনয়ের জন্য এখনো অনেকের আগ্রহের কেন্দ্রে তিনি। এই প্রসঙ্গ টেনে আসাদুজ্জামান নূর বলেন, “আজকে যারা আমাকে দেখতে আসে তাদের অনেকের দাদা-দাদীরাও হয়ত আমাদের নাটক দেখেনি। তারপরেও তারা আসছে ওইসব চরিত্রে অভিনয়ের জন্য, এই যে স্বাদ তা হুমায়ূন আহমেদের নাটক ব্যতীত কোথাও পেলাম না।”   এ সময় তিনি হুমায়ূন আহমেদের গল্প-সংলাপ অত্যন্ত শক্তিশালী বলে মন্তব্য করেন। ‘বহুব্রীহি’, ‘অয়োময়’, ‘নক্ষত্রের রাত’ ও ‘কোথাও কেউ নেই’ নাটকগুলোর উদাহরণ টেনে আসাদুজ্জামান নূর বলেন, “এসব নাটকে কিন্তু কোথাও কোনো কমেডি চরিত্র নেই। কিন্তু এই নাটকগুলোতে লোক হাসানোর যথেষ্ট উপাদান, সংলাপ ছিল।” সামরিক শাসনের সময় ‘বহুব্রীহি’ নাটকে পাখির মুখ দিয়ে বলানো ‘তুই রাজাকার’ উক্তিটি স্বাধীনতাবিরোধীদের প্রতি ঘৃণার প্রকাশভঙ্গি হিসেবে মুখে তুলে নেয় বাংলাদেশের মানুষ। আসাদুজ্জামান নূর বলেন, “দম বন্ধ করা এক পরিবেশে মন খুলে কথা বলতে পারতাম না, তখন তার সেই উক্তি সারা দেশে হৈ চৈ ফেলে দেয়। সামাজিক অন্যায়, অনিয়মের বিরুদ্ধে তার প্রতিবাদের দক্ষতা, কৌশল ছিল।” সংস্কৃতিমন্ত্রী বলেন, “হুমায়ূন আহমেদের শেষ দিনগুলোতে আমি তার পাশে ছিলাম। সে দিনগুলো কখনো ভোলার নয়। তিনি বেঁচে থাকবেন তাঁর অসাধারণ সব সাহিত্যকর্মের মধ্যে।” হুমায়ূন আহমেদ রচিত প্রথম টিভি নাটক ‘প্রথম প্রহর’র কয়েকটি সংলাপে মাত্র দেড় মিনিটের একটি চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন আসাদুজ্জামান নূর। প্রসঙ্গত, পরে তিনি অভিনয় করেন ‘এইসব দিনরাত্রি’ ধারাবাহিকের রফিক, ‘মাটির পিঞ্জিরা’র নান্দাইলের ইউনূস, ‘শঙ্খনীল কারাগার’র কলেজপড়ুয়া বেকার যুবক, ‘চন্দ্রকথা’র দাম্ভিক জমিদারসহ হুমায়ূনের সৃষ্টি করা অনেক চরিত্রে। ডেইলি বাংলাদেশ/আিইজেকে