Alexa হাওরে ফসলহানীতে চালের দাম বেড়েছে : কৃষিমন্ত্রী

ঢাকা, বুধবার   ১৩ নভেম্বর ২০১৯,   কার্তিক ২৮ ১৪২৬,   ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

Akash

হাওরে ফসলহানীতে চালের দাম বেড়েছে : কৃষিমন্ত্রী

 প্রকাশিত: ১৬:৩৩ ২ জুন ২০১৭  

হাওরে ফসলহানীর কারণে চালের দাম সাময়িকভাবে বেড়েছে বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী। তবে তিনি এ-ও বলেছেন, আমদানি করা চাল দেশে এলে বাজারে দাম কমবে। বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নে কৃষিমন্ত্রী বলেন, “চালের দাম কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে সেটা কেউই অস্বীকার করব না।” রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে শুক্রবার এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে মতিয়া চৌধুরী বলেন, পাহাড়ি ঢল ও আগাম বন্যায় এবার হাওরের দুই তৃতীয়াংশ ফসল ডুবে গেছে। এ ছাড়া ব্লাস্ট রোগেও বোরো ফসল নষ্ট হয়েছে। ফলে ধান উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে কম হবে। অবশ্য চালের দাম কিছুটা বাড়লেও ‘তা বাড়িয়ে বলার প্রবণতা’ রয়েছে মন্তব্য করে কৃষিমন্ত্রী বলেন, “খাদ্য মন্ত্রণালয় চাল আমদানির দরপত্র ডেকেছে। ‘জিটুজি ভিত্তিতেও’ কিছু চাল আসবে, তাতে বাজার মোটামুটি স্বাভাবিক থাকবে।” তিনি আরও বলেন, “বাজার মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে এটা কেউ বলবেন না। সবাই কিনে-কেটে খাচ্ছেন এটা হল বাস্তব সত্য। আগামীতেও চালের অভাব হবে না।” উল্লেখ্য, বন্যার কারণে হাওর অঞ্চলের জেলাগুলোতে ছয় লাখ টনের মতো ধান নষ্ট হয়েছে বলে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের হিসাব। তবে বেসরকারি সংস্থাগুলোর হিসাবে ফসলহানির পরিমাণ ২২ লাখ টন। এদিকে শষ্যের মজুদ ছয় বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন পর্যায়ে চলে আসায় এবং হাওরে বোরো ফসল নষ্ট হওয়ায় মে মাসের শুরুতে সরকারিভাবে মোট ছয় লাখ টন চাল আমদানির পরিকল্পনা করা হয়। এর মধ্যে প্রথম এক লাখ টনের দরপত্রও দেওয়া হয়েছে। বোরো উৎপাদন কম হওয়ায় এবার আউশ ধানে জোর দেওয়ার কথা জানিয়ে মতিয়া বলেন, গতবারের চেয়ে এবার বেশি উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হবে। আর আউশ উৎপাদনে খরচও কম। বোরোর ঘাটতি আউশে পূরণ করা যাবে। এখনও সরকারের মজুদে যথেষ্ট চাল রয়েছে জানিয়ে কৃষিমন্ত্রী বলেন, “চাল যদি না থাকত তাহলে হাওরসহ অন্যান্য এলাকায় সরকার ভিজিএফ ও ওএমএস চালাতে পারত না। ঘূর্ণিঝড় মোরায় ক্ষতিগ্রস্তদের চালের আকারে সহায়তা দেওয়া হচ্ছে।” ডেইলি বাংলাদেশ/আইজেকে