ঢাকা, শনিবার   ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯,   ফাল্গুন ১০ ১৪২৫,   ১৭ জমাদিউস সানি ১৪৪০

হঠাৎ রক্তবর্ণ হয়ে গেলো পুরো একটি নদীর জল!

মেহেদী হাসান শান্ত ডেইলি-বাংলাদেশ

 প্রকাশিত: ০৩:৪৩ ১১ জুলাই ২০১৮  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

এটি কি কোনো পৌরাণিক উপকথার প্রতিচ্ছবি; নাকি মনুষ্য ঘটিত রহস্য? যাই হোক না কেন, গত শুক্রবারে চীনের সিচুয়ান প্রদেশের ইবিন শহরের একটি নদীতে বয়েছে লাল স্রোতধারা! নদীটির নাম শিয়াংবি। এটি ইয়াংজে নদীর একটি শাখা নদী। ইয়াংজে এশিয়ার সবচেয়ে দীর্ঘতম নদী। অনেকেই মনে করছেন এই লোহিত ধারা যদি শিয়াংবি দিয়ে প্রবাহিত হয়ে ইয়াংজেতে পড়ে, তাহলে পরিণাম খুব একটা সুখকর হবে না। এর কারণ ইয়াংজে লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবন ও জীবিকার উৎস।

তবে নদীটির আচমকা এ আচরণ যতই রহস্যময় মনে হোক, এর আসল কারণটি কিন্তু খুব একটা রহস্য দিয়ে ঘেরা নয়। এর জন্য অভিযুক্ত ব্যক্তিরাও বেশ সাদাসিধাই বলা চলে। আসলে নদীর তীরবর্তী হেশুন প্যাকেজিং কোম্পানির ফ্যাক্টরির কিছু শ্রমিক ভুল করে ফ্যাক্টরির ব্যবহার্য কিছু কেমিক্যাল পেইন্ট নদীতে ছড়িয়ে দেন। গবেষকরা বলেছেন সেই রাসায়নিক রঙগুলো পানিতে দ্রাব্য এবং বিষাক্ত নয়। পুরো ব্যাপারটিকেই বলা যায় নিছক একটি দুর্ঘটনা ! কিন্তু আসলেই কি তাই?

এর আগেও ২০১২ সালে হঠাৎ এক বার রহস্যজনক ভাবে ইয়াংজের জল রক্তবর্ণ হয়ে যায়। বিজ্ঞানীরা তখন এর দুইটি সম্ভাব্য কারণ দাঁড় করিয়েছিলেন। তারা বলেন , এক বিশেষ ধরণের পলিমাটি নদীর জলে দ্রবীভূত হয়ে অদ্ভুত এক রঞ্জকের সৃষ্টি করছে, যার কারণে নদীটির পানি এরকম লাল হয়ে গিয়েছিল। অন্য একটি ধারণা ছিলো, বিশেষ কোনো ছত্রাকের বিস্তারে এমনটি হয়ে থাকতে পারে।

এ কথা অবশ্যই উড়িয়ে দেয়ার উপায় নেই আকস্মিকভাবে নদীর পানি লাল হয়ে যাওয়ার মধ্যে প্রকৃতির কোনো খেয়াল লুকিয়ে থাকতে পারে। কিন্তু চীনে নদীর পানির স্বাভাবিক রঙ পরিবর্তন হওয়ার জন্য মানুষের অসচেতনতাও ফুটে উঠেছে বারবার। এর আগেও ২০১১ তে জীয়ান নদীর পানি হঠাৎ রহস্যময়ভাবে লাল হয়ে যায়। পরে কারন অনুসন্ধানে জানা যায়, প্লাস্টিক ব্যাগ ও আতশবাজির মোড়কের একটি কারখানা থেকে লাল রঙ ওই নদীতে ছড়ায়। জিয়াংজি প্রদেশের একটি নদী তো সত্যিকার অর্থেই রক্তে ভেসে যায় ! গত বছর একটি কসাইখানার বর্জ্য পাইপে ছিদ্র হয়ে পশুদের রক্তে ভেসে যায় নদীটি ।

শিল্প কারখানার বর্জ্য দিয়ে নদী দূষণের এরকম নজির ছড়িয়ে রয়েছে পুরো চীন জুড়ে, যা পরিবেশের জন্য একটি অশনি সংকেত।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএ