স্রোতের ৩৫ বই

ঢাকা, মঙ্গলবার   ০৭ এপ্রিল ২০২০,   চৈত্র ২৪ ১৪২৬,   ১৩ শা'বান ১৪৪১

Akash

স্রোতের ৩৫ বই

নিজস্ব প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:৪২ ১৭ মার্চ ২০২০   আপডেট: ১৬:৪৩ ১৭ মার্চ ২০২০

স্রোত প্রকাশনা আয়োজিত `বই উৎসব`

স্রোত প্রকাশনা আয়োজিত `বই উৎসব`

ভারতের ত্রিপুরায় অল্প কয়েকদিন আগে রাজ্যের বই মেলা শেষ হলেও বই প্রকাশ অনুষ্ঠান এখনো উৎসবের মেজাজেই। উত্তর পূর্বাঞ্চলের প্রথম সারির প্রকাশনা সংস্থাগুলোর মধ্যে স্রোত অন্যতম একটি নাম। ত্রিপুরা রাজ্যের এই সংস্থাটি দীর্ঘদিন ধরেই উল্লেখযোগ্য বই প্রকাশে বিশেষ ভূমিকা পালন করে আসছে।

সম্প্রতি স্রোত প্রকাশনা উদযাপন করে 'বই উৎসব'। আগরতলা প্রেসক্লাবে স্রোতের বই প্রকাশ অনুষ্ঠান, উৎসবে রূপ নেয়।

এই উৎসবে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা, প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার।

তিনি বলেন, একটা প্রকাশনা সংস্থা বছরে কয়টি বই প্রকাশ করল সেটা বড় কথা নয়। কী বই প্রকাশ করছে? কোন বিষয়ে করছে? কেনইবা প্রকাশ করছে? সেটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। সমাজের অগ্রগতির স্বার্থেই হোক বই প্রকাশ, এমনটাই উল্লেখ করেন তিনি।

মানিক সরকার বলেন, ২০০১- ২০০২ সাল থেকে প্রকাশনার সঙ্গে যুক্ত হয়ে প্রকাশনা জগতে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পেছনে স্রোতের নিজস্ব ধারাবাহিকতা রয়েছে। যে কোনো বই প্রকাশের দায়ীত্ব স্রোত প্রকাশনা নেয় না। ভালো মন্দ বিষয় থাকলেও তা আপেক্ষিক বলেই হয়তো এমন বই প্রকাশের দায়িত্ব নেয় যে বই পিছিয়ে পড়া মানুষকে এগিয়ে যেতে সাহায্য করে। যে বই মানুষকে আত্মকেন্দ্রিক করে না। মিথ্যুক ও হিংস্র হতে সহযোগী হবে না। সমাজের অগ্রগতির স্বার্থে সাংস্কৃতিক ও সামাজিক করে তুলতে সাহায্য করে স্রোতের প্রকাশিত বই।

তিনি আরো বলেন, প্রকাশনার সঙ্গে বাণিজ্যিক ভাবনা যুক্ত থাকবেই। কিন্তু স্রোত বাণিজ্যিক কারণে প্রকাশনার সাথে যুক্ত আছেন বলে মনে করেন না। স্রোত প্রকাশনার বিশেষত্বের কারণে তিনি নিজেও এই প্রকাশনা সংস্থার অনুরাগী বলে জানান।

প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা বিরোধী দলনেতা মানিক সরকার ছাড়াও বিশিষ্ট অতিথিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কবি রামেশ্বর ভট্টাচার্য, স্বামী বিবেকানন্দ মহাবিদ্যালয় এর অধ্যাপক মঞ্জু দাস, অধ্যাপক রিন্টু দাস, কথাসাহিত্যিক অনুপ ভট্টাচার্য, দুলাল ঘোষ, কবি তমোজিৎ সাহা ও অমিতাভ দেবচৌধুরী প্রমুখ।

উত্তর পূর্বাঞ্চলের সাহিত্যের অন্যপাঠ স্রোত প্রকাশনার নিজস্ব ক্যাপশন যে ভাষায় কথা বলে নদী, পাখি গান গায়, কালস্রোত, লেখা হয় পাতায় পাতায়।

৩৫টি বইয়ের মধ্যে রয়েছে কবিতা, ছড়া, ছোট গল্প, প্রবন্ধ, লোক সংস্কৃতি, অটো বায়োগ্রাফি, উপন্যাস। ৫ ও ১১ মার্চ ২০২০ আগরতলা প্রেসক্লাবে স্রোত প্রকাশনীর প্রকাশিত ৩৫টি বাই ও লেখকের নাম তুলে ধরা হলো।

ত্রিপুরা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক রিন্টু দাস কথাসাহিত্যিক বিকাশ সরকারের দুটো বই প্রকাশ করেছেন। দুটি উপন্যাস একত্রে নাম 'লেন্দুরায়ের জিজীবিষা' ও কবিতা সংকলন: 'হ্যালুসিনেশন সিরিজ'। এছাড়াও তিনি আরো কয়েকটি বই প্রকাশ করেছেন। তার মধ্যে বিজন বোসের 'মধ্য রাতের ইন্দ্রধনু' উল্লেখযোগ্য।

নির্বাচিত কবিতা: অমিতাভ দেবচৌধুরী, হ্যালুসিনেশন সিরিজ : বিকাশ সরকার, নাগরিকপঞ্জি ও ডিটেনশন ক্যাম্প সম্পাদনা: সঞ্জীব দে। অক্ষর ধানের: প্রণব কুমার চট্টোপাধ্যায়, মেঘনগরী: জয়শ্রী রায়, বর্ষামেঘ এবং অন্যান্য কবিতা: তপা মজুমদার, ত্রিপুরার একুশজন কবির তারুণ্যের কবিতা: সম্পাদনা ও সংকলন জয় দেবনাথ, প্রতিবিম্ব: সম্পাদনা বৈদ্য, মধ্য রাতের ইন্দ্রধনু: বিজন বোস, মাটি রাস্তার ঘ্রাণ : অভীককুমার দে।

ছড়া
সাত শেয়ালে কোষাস ধরে: অনুপ দেব। বই বাড়ি প্রকাশনের কবিতা সংকলন, অন্য এক পৃথিবী: রণদীপ সিংহ।

ছোট গল্প
মানিক চক্রবর্তী , জীবন ও সাহিত্য: বিমল চক্রবর্তী, র‌্যাডক্লিফ সাহেবের হাত: অমিতাভ দেবচৌধুরী, সীমানা: মানবরত মুখোপাধ্যায়, আগর পাতার ভাঁজে: মৌমিতা চক্রবর্ত্তী।

প্রবন্ধ
লেখনী লীলার রেখা: অমিতাভ দেব চৌধুরী, ভারতের ব্রাহ্মীলিপি ও অন্যান্য প্রবন্ধ: সবিতা দেবনাথ, বাদ বাংলার কবিতায় রীতির বিপরীত রীতি: রবীন্দ্র গুহ, রবীন্দ্রনাথ ত্রিপুরা ও বিচিত্র প্রসঙ্গ: বিকচ চৌধুরী, মুক্তিযুদ্ধের আলোকে বাংলাদেশের নির্বাচিত উপন্যাস: মধুমিতা দেব সরকার, ত্রিপুরার উপন্যাস: সম্পাদক গোবিন্দ ধর।

লোক সংস্কৃতি
ত্রিপুরার লোকসংস্কৃতি চর্চার ইতিহাস: ড. শ্রীদাম বনিক।

অটো বায়োগ্রাফি
কথাসাহিত্যে শ্যামল বৈদ্য বাইটির সম্পাদনা করেছেন গোবিন্দ ধর, কুয়েম্পু: সম্পাদনায় তন্ময় বীর ও শ্যামল বৈদ্য, কথা সাহিত্যিক অরুণোদয় সাহা: সৌম্যদীপ দেব।

উপন্যাস
বিন্দু বিন্দু জল: শেখর দাশ, লেন্দুরায়ের জিজীবিষা: বিকাশ সরকার, দেও নদীর জল: পদ্মশ্রী মজুমদার, আমিও এই পৃথিবীর একজন: সুরজিৎ কর, ভালোবাসার কলাকৌশল: কিশোররঞ্জন দে, চেনা মানুষ অচেনা গল্প: অনুপ ভট্টাচার্য, লাল মাটির শিকারী: শ্যামল বৈদ্য।

বই উৎসবে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের কবি কথাসাহিত্যিক ও প্রাবন্ধিক কিশোররঞ্জন দে, শ্যামল বৈদ্য, সঞ্জীব দে, বিজন বোস, গোপালচন্দ্র দাস, অমলকান্তি চন্দ, জয় দেবনাথ, রূপন মজুমদার, অভীককুমার দে, দিব্যেন্দু নাথ, সাচিরাম মানিক, পদ্মশ্রী মজুমদার, সুমিতা পাল ধর, গৌরব ধর, গৈরিকা ধর, বিল্লাল হোসেন, রনিতা নাথ, পুলক চক্রবর্তী, নির্মল দাশসহ উল্লেখযোগ্য কবি লেখকরা। প্রসঙ্গত মাটি রাস্তার ঘ্রাণ কাব্য সংকলের কবি অভীককুমার দে সম্প্টতি পাথারকান্দি চতুরঙ্গ নাট্য সংস্থার নাট্য উৎসবে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে সম্মানিত হোন।তার হাত ধরে সংস্থার মুখপত্র 'চেতনা' আনুষ্টানিক প্রকাশিত হয়।

সব বই প্রিয়দের উপস্থিতির জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন স্রোত প্রকাশনীর কর্ণধার কবি গোবিন্দ ধর।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরআর