Alexa স্পীনাররা হতে পারে ট্রাম্পকার্ড

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯,   আশ্বিন ৩ ১৪২৬,   ১৮ মুহররম ১৪৪১

Akash

স্পীনাররা হতে পারে ট্রাম্পকার্ড

 প্রকাশিত: ১৬:০৭ ২০ মে ২০১৯   আপডেট: ১৬:৪৪ ২১ মে ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

এক নজরে সানজামুল ইসলাম সানজামুল ইসলাম বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের বামহাতি অর্থোডক্স বোলার। দেশের হয়ে ৩টি ওয়ানডে ও একটি টেষ্ট খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে তার। সানজামুল ইসলামের জন্ম রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলায়। তার বেড়ে ওঠা পড়াশোনা ক্রিকেটে হাতেখড়ি সবই রাজশাহী শহরে। বিভিন্ন বয়স ভিত্তিক প্রতিযোগিতার মাধ্যমে তার উঠে আসা। এখন পর্যন্ত মোট ৭৫টি প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলেছেন তিনি। উইকেট সংখ্যা ২৮০ প্রথম শ্রেনীর ক্রিকেটে ৯ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব আছে তার ব্যাট হাতে। একটি সেঞ্চুরি ও আটটি হাফ সেঞ্চুরিতে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে মোট রান দুই হাজারেরও বেশি। জাতীয় দলের হয়ে তিন ম্যাচে শিকার করেন ৫ উইকেট। টেষ্টে ৪৫ ওভার বল করে ১ উইকেট নেন।

ইংল্যান্ডের মাঠগুলোতে সাধারনত ফ্লাট উইকেট বানানো হয়। ক্রিকেটের সূত্র অনুযায়ী যা ব্যাটসম্যানদের জন্য উর্বরভূমী। তবু যেটুকু সুবিধা পাওয়া যায়, সেটা পেসাররাই আদায় করতে পারেন।

কিন্তু ইংল্যান্ডেরই পার্শ্ববর্তী দেশ আয়ারল্যান্ডে একই ধরণের উইকেট হয়ে থাকে। চলমান ত্রিদেশীয় সিরিজে কিন্তু সেরকম উইকেটে রাজত্ব করেছেন স্পীনাররা।

সাকিব, মিরাজ, সৈকতদের ইকোনমি আশ্চর্যজনক ভাবে চার এর খানিকটা উপরে। এছাড়া বিশ্বের যেকোনো উইকেটেই বাংলাদেশী স্পীনাররা দেখিয়ে থাকেন তাদের ঘুর্ণিজাদু।

যেহেতু ইংল্যান্ডে এসময়ে শীতের তীব্রতা দেখা যাচ্ছে,পাশাপাশি হালকা থেকে মাঝারি ধরণের বাতাসও হয়ে থাকে, কাজেই উইকেট অনেকটা লো থাকবে। আর লো উইকেট যেকোনো স্পীনারের জন্য স্বর্গ।

সাকিব, রিয়াদ, মিরাজ, সৈকতরা করেন অফস্পিন। যাদের প্রায় সবারই ইকোনমি সাড়ে চারের নিচে। পার্টটাইম লেগ স্পীনার হিসেবে ভালোই হাত ঘুরাতে পারেন সাব্বির রহমান। ব্রেক থ্রো আনার জন্য কাজে দিতে পারে তার ঘূর্ণি।

এছাড়া দলে পেস বোলার যারা আছেন, তারাও কিন্তু ওয়ার্ল্ড ক্লাস। মুস্তাফিজের কাটার তো আজও সবার কাছে অধরা।
পাশাপাশি ব্যাটসম্যানরা বিশেষ করে ওপেনাররা যদি ভালো একটা শুরু এনে দিতে পারেন, তবে নিঃসন্দেহে দলের জন্য সেটা হবে সোনায় সোহাগা।

আমি মনে করি গেইম প্লান যদি সবাই প্রোপার এক্সিকিউট করে, তবে এবারের বিশ্বকাপ থেকেই হতে পারে নতুন গল্পের শুরু। 

এ হিসেবে আমি মনে করছি পাঁচটা থেকে ছয়টা ম্যাচ জেতার সম্ভাবনা আমাদের প্রবল। দেখা যাক, কি হয়! সময়ই বলে দেবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/সালি