.ঢাকা, শনিবার   ২০ এপ্রিল ২০১৯,   বৈশাখ ৭ ১৪২৬,   ১৪ শা'বান ১৪৪০

স্ন্যাপচ্যাট ব্যবহারকারীর ৭০ ভাগই নারী!

খাদিজা তুল কুবরা ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:৪৯ ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

ফেসবুকের জনপ্রিয়তা যখন তুঙ্গে তখনই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হিসেবে স্ন্যাপচ্যাট আর ইন্সটাগ্রাম এক আলোড়ন তৈরি করে গেছে। ইন্সটাগ্রাম খানিকটা ফেসবুকের মতো বলে সে আলোড়ন কিছুদিন পর ছাপিয়ে গেলেও স্ন্যাপচ্যাট এক অনবদ্য জনপ্রিয়তা ছাড়িয়ে গেছে। নানারকম ফিল্টারের আবির্ভাবে কিছুদিন মুখরিত হয়েছিলো এই ফেসবুক আর ইন্সটাগ্রাম। জনপ্রিয় তারকাসহ সাধারণরাও স্ন্যাপচ্যাটের হাওয়ায় মেতে উঠেছে৷ রেগি ব্রাউন, ইভান স্পাইজেল ববি মারফি এই তিনের সম্মিলিত প্রয়াসে প্রথম বারের মতো চালু হয় জনপ্রিয় এই অ্যাপটি ২০১১ সালের এপ্রিলে। তখন এটির নাম দেয়া হয়েছিলো পিকাবো। যেটি সে বছরের  সেপ্টেম্বরে পরিবর্তিত হয়ে স্ন্যাপচ্যাট নামকরণ হয়। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক বিখ্যাত এই স্ন্যাপচ্যাটের কিছু অদ্ভুত তথ্যবৃত্তান্ত-

. স্ন্যাপচ্যাটটি মূলত বিখ্যাত তৎক্ষণাত ছবি শেয়ারিং এর ক্ষেত্রে৷ মূহুর্তের মধ্যে বন্ধুদের ছবি শেয়ারিং স্ন্যাপচ্যাটে সম্ভবত সবচেয়ে দ্রুতগামী। একটি পরিসংখ্যান অনুযায়ী, পৃথিবী জুড়ে স্ন্যাপচ্যাট ব্যবহারকারী শতকরা ৯৩ ভাগ মানুষ নিজেদের ড্রিংকস বা পানীয়ের ছবি পাঠিয়েছে তাদের স্ন্যাপচ্যাট বন্ধুদের এবং শতকরা ৬০ ভাগ মানুষ এমন কয়েকজনকে এটি পাঠিয়েছে যারা একে অপরের সঙ্গে পরিচিত নয়।

. স্ন্যাপচ্যাট এমন একটি অ্যাপ যেটি অতি অল্প সময়ের মধ্যে নিজেদের জায়গা জনপ্রিয়তার শীর্ষে নিয়ে গেছে। সম্প্রতি এক পরিসংখ্যানে পাওয়া গেছে, বর্তমান যাবতীয় সোশ্যাল মিডিয়ার মধ্যে স্ন্যাপচ্যাট জনপ্রিয়তায় দ্বিতীয় অবস্থানে। শুধু ফেসবুক এর একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী। যেটি এখনো প্রথম অবস্থানে৷

. স্ন্যাপচ্যাটের অসংখ্য ফিচারগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বিখ্যাত হয়েছিলো বোধহয় প্রিয় বন্ধু বা বেস্ট ফ্রেন্ড ফিচারটি। যেটি ২০১৫ সালে উঠিয়ে নেয়ার ফলে অনেক স্ন্যাপচ্যাট ইউজাররা ক্ষেপে গিয়েছিলো। তখন স্ন্যাপচ্যাট আপডেটের পূর্ব মুহূর্তে ব্যবহারকারীরা তাদের প্রিয় বন্ধুকে যাচাই করতে পারতো। পরিসংখ্যানে, দেখা গেছে প্রায় শতকরা ৬৪ ভাগ মানুষ এই ফিচারটিকে পুনরায় পেতে চায়।

. স্ন্যাপচ্যাটের তিন প্রতিষ্ঠাতা ইভান স্পাইজেল, রেগি ব্রাউন ববি মারফি এই প্রজেক্টটি হাতে নেয়ার আগে আরো ৩৪ টি প্রজেক্ট তৈরি করেছিলো! যেগুলো নানাভাবে সমালোচনার শিকার হয়। কিন্তু ৩৫তমবার সমালোচিত হলেও তারা সাহসপূর্বক এই প্রজেক্টটি নিয়ে কাজ করে এবং বলা বাহুল্য নিন্দুকের ভবিষ্যৎ বার্তা ছাপিয়ে সাফল্য আনে৷

. ২০১৬ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী স্ন্যাপচ্যাট ব্যবহারকারীদের দ্বারা প্রতিদিন বিলিয়ন ছবি বা ভিডিও দেখা হয়৷ যেটি ২০১৫ তে মাত্র বিলিয়ন ছিলো। মাত্র এক বছরের ব্যবধানে এর ব্যবহারকারীদের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য ভাবে বাড়ছে।

. স্ন্যাপচ্যাটের নানান ধরণের ফিল্টার এর জনপ্রিয়তাকে আরো খানিক বাড়িয়ে তুলেছে ২০১৫ সালে। যখন এটি প্রথমবারের মতো ফিচার সাইডে যোগ হয়েছে৷ ধারণা করা হয় হঠাৎ করে জনপ্রিয়তা বাড়ার এটি একটি প্রধান কারণ।  

. স্ন্যাপচ্যাটের সবচেয়ে মজার তথ্য হলো এটি ছেলেদের থেকে মেয়েদের মধ্যে বেশি জনপ্রিয়। পৃথিবীব্যাপি স্ন্যাপচ্যাট ব্যবহারকারীদের মধ্যে শতকরা ৭০ ভাগই নারী। অন্যদিকে, ছেলেদের সংখ্যা মাত্র ৩০ ভাগ।  এটি ব্যবহারকারীদের মধ্যে বেশিরভাগেরই বয়স ১১ থেকে ১৭ বছর পর্যন্ত। অর্থাৎ টিনএজদের মাঝে এটি বেশি জনপ্রিয়।  

. শোনা যায়, ২০১৪ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে সহ প্রতিষ্ঠাতা ইভান স্পাইজেল আর পপ তারকা টেইলর সুইফট নাকি এক সম্পর্কে জড়িয়ে ছিলেন। কে জানে বিখ্যাত সে সংগীত শিল্পী স্ন্যাপচ্যাট প্রতিষ্ঠাতার জন্য কোনো গান লিখেছিলেন কি না?

. অত্যন্ত বুদ্ধিমান মার্ক জাকারবার্গ যখন টের পেলেন ফেসবুকের সঙ্গে টক্কর দিতে অন্য একটি অ্যাপ মরিয়া হয়ে উঠেছে তখন তিনি এটি নিজের করে ফেলার এক সূক্ষ্ম চেষ্টা চালান। প্রতিষ্ঠাতাদের কাছে এক বিলিয়ন অর্থের বিনিময়ে যখন তিনি এটি কেনার প্রস্তাব রাখেন তখন তারা জাকারবার্গকে ফিরিয়ে দেন। পরবর্তীতে জাকারবার্গ আবারো বিলিয়ন ডলারের বিনিময়ে এটি কিনতে গেলে আবারো যখন তাকে ফিরিয়ে দেয়া হয় ফেসবুক প্রতিষ্ঠাতা বিলিয়ন ডলার দিতে চান স্ন্যাপচ্যাট প্রতিষ্ঠাতাদের৷ কিন্তু সেবারো তাকে ফিরেই আসতে হয়!

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস