Alexa স্কুলে শিক্ষার্থীর বন্দুক হামলায় প্রাণ গেলো দুই সহপাঠীর

ঢাকা, বুধবার   ১১ ডিসেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ২৬ ১৪২৬,   ১৩ রবিউস সানি ১৪৪১

স্কুলে শিক্ষার্থীর বন্দুক হামলায় প্রাণ গেলো দুই সহপাঠীর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:৪৬ ১৫ নভেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১৩:৪৯ ১৫ নভেম্বর ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

বন্ধুদের সঙ্গে জন্মদিন পালন করতে এসে তাদের ওপরই বন্দুক হামলা চালালো এক শিক্ষার্থী। এ ঘটনায় দু’জন নিহত ও তিনজন আহত হয়েছে। হামলা চালিয়ে সবশেষে হামলাকারী নিজের ওপরেও গুলি চালায়। 

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার সাউগাস হাই স্কুলে ঘটনাটি ঘটেছে। 

কর্তৃপক্ষ জানায়, সন্দেহভাজন হামলাকারী নিজেও একই স্কুলে পড়ত। বৃহস্পতিবার তার জন্মদিন ছিল। বন্ধুরা স্কুলে তার জন্মদিনের জন্য একত্রিত হয়  তখন সে তার ব্যাগপ্যাক থেকে বন্দুক বের করে তার পাঁচ সহপাঠীর ওপর গুলি চালায়। এরপর সে তার নিজের ওপরও গুলি চালায়। হামলার পুরো ঘটনাটি মাত্র ১৬ সেকেণ্ডে ঘটেছে বলে জানায় কর্তৃপক্ষ। 

স্কুল কর্তৃপক্ষ আরো জানায়, আহতদের অবিলম্বে সান্তা ক্লারিটার এক হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে আহতদের মধ্যে ১৬ বছরের এক মেয়ে ও ১৪ বছরের এক ছেলে মারা যায়। 

দেশটির কর্তৃপক্ষ এক বিবৃতিতে জানায়, ১৬ বছরের সেই সন্দেহভাজন বন্দুকধারী আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি আছে। 

তারা জানায়, সে এ.৪৫ এর একটি সাইবার বন্দুক দিয়ে গুলি চালায়। বন্দুকের শেষ গুলিটি সে নিজের ওপর চালায়। 

আইন প্রয়োগকারী সংস্থার এক সূত্র সিএনএন কে জানায়, সন্দেহভাজন ছেলেটির নাম ন্যাথানিল বার্হো। তারা ছেলেটির সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের অ্যাকাউন্ট গুলোতে তার জীবনীসংক্রান্ত তথ্য জানার চেষ্টা করছে। হামলার পর তার সব অ্যাকাউন্ট সরিয়ে ফেলা হয়েছে বলেও জানায় তারা। 

কর্তৃপক্ষ জানায়, ক্লাস শুরুর পূর্বেই বন্দুক হামলার ঘটনাটি শুরু হয়। ঘটনাটি ঘটার পর কিছু শিক্ষার্থী স্কুলেই লুকিয়ে পড়ে ও কিছু পালিয়ে যায়। এসব দৌড়ঝাপের মধ্যে এক শিক্ষার্থী পড়ে আঘাত পায় ও তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। 

লস অ্যাঞ্জেলস কর্তৃপক্ষের অফিসের এক ব্যক্তি ক্যাপ্টেন কেন্ট ওয়েগেনার সাংবাদিকদের এক বিবৃতিতে বলেন, ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধারকৃত ভিডিও'তে দেখা যাচ্ছে, ছেলেটি প্রথমে তার সহপাঠিদের ও পরে নিজেকে গুলি করে।' 

কর্তৃপক্ষ স্কুল ও শিক্ষার্থীদের থেকে আর কোনো ভিডিও পাওয়া আয় কিনা সে বিষয়ে চেস্টা চালাচ্ছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী