Alexa সোনায় ‘ভুল’ ইংরেজি-বাংলায়

ঢাকা, শনিবার   ১৮ জানুয়ারি ২০২০,   মাঘ ৪ ১৪২৬,   ২২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

Akash

সোনায় ‘ভুল’ ইংরেজি-বাংলায়

 প্রকাশিত: ১২:২০ ১৮ জুলাই ২০১৮   আপডেট: ১২:২০ ১৮ জুলাই ২০১৮

বৈঠকে বসেছেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান ও বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির

বৈঠকে বসেছেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান ও বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির

বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্টে জমা রাখা সোনায় অনিয়মের অভিযোগ অস্বীকার করেছে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক রবিউল হোসেন ও ভল্টের দায়িত্বে থাকা কারেন্সি অফিসার আওলাদ হোসেন চৌধুরী বলছেন, ভল্টে রক্ষিত সোনায় কোনো ধরনের অনিয়ম হয়নি; স্বর্ণকারের ভুলে ভাষার গণ্ডগোলে ৪০ হয়ে গেছে ‘এইটি’।

এ অনিয়মের অভিযোগ ওঠার প্রেক্ষাপটে বুধবার ১১টায় বৈঠকে বসেছেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান ও বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির। বৈঠকে উপস্থিত রয়েছেন আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. ইউনুসুর রহমানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত দেশে না থাকায় অর্থ প্রতিমন্ত্রী বুধবার অর্থ মন্ত্রণালয়ে ‘জরুরি’ এই বৈঠক ডেকেছেন।

গতকাল মঙ্গলবার একটি দৈনিকে ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্টে ভুতুড়ে কাণ্ড’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশের পর থেকেই আলোচনা চলছে।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) অধীন শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের এক অনুসন্ধানের তথ্যের ভিত্তিতে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্টে রক্ষিত শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের ৯৬৩ কেজি স্বর্ণ পরীক্ষা করে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অনিয়মের অভিযোগ উঠে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকে জমা রাখা ৩ কেজি ৩০০ গ্রাম ওজনের স্বর্ণের চাকতি ও আংটির জায়গায় এখন আছে মিশ্র বা সংকর ধাতু। আর ২২ ক্যারেটের স্বর্ণ হয়ে গেছে ১৮ ক্যারেট।

এ ঘটনায় বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক রবিউল হোসেন এবং ভল্টের দায়িত্বে থাকা কারেন্সি অফিসার আওলাদ হোসেন চৌধুরী মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ভল্টে রক্ষিত সোনায় কোনো ধরনের হেরফের হয়নি; স্বর্ণকারের ভুলে ভাষার গণ্ডগোলে ৪০ হয়ে গেছে ‘এইটি’।

আওলাদ বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের ত্রুটি বলতে যা আছে, নথিভুক্ত করার সময় ইংরেজি-বাংলার ভুল। এর বাইরে অন্য ত্রুটি নেই।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআরকে