Alexa সোনাগাজীতে অর্থ আত্মসাৎ মামলায় একজনের কারাদণ্ড

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ১২ ডিসেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ২৮ ১৪২৬,   ১৫ রবিউস সানি ১৪৪১

সোনাগাজীতে অর্থ আত্মসাৎ মামলায় একজনের কারাদণ্ড

ফেনী প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:২৫ ১৮ নভেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১৭:৩৯ ১৮ নভেম্বর ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

ফেনীর সোনাগাজীতে এক কৃষকের ভূমি অধিগ্রহণের ১৬ লাখ টাকা আত্মসাৎ মামলায় এক প্রতারকের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

সোমবার দুপুরে ফেনীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক ধ্রুব জ্যোতি পাল এ রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত আবদুল খালেক সোনাগাজী পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের তুলাতুলি গ্রামের সৈয়দ আহমদের ছেলে।

বাদীর আইনজীবী নুরুল আমিন জানান, সোমাবার দুপুরে আবদুল খালেক আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন চান। এ সময় বিচারক জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

সোনাগাজীর চর ছান্দিয়া ইউপির কৃষক মো. আবদুল্লাহ ৪ জুলাই আবদুল খালেকের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ১৯৮৮ সালের ১৪ এপ্রিল আবদুল খালেক রেজিয়া আক্তার ও আবুল হাসেমের কাছে ১৭৮ শতক জমি বিক্রি করেন। আবুল হাসেম ১৯৯০ সালের ৩১ জানুয়ারি রেজিয়া আক্তারের কাছে ৮৯ শতক ভূমি বিক্রি করেন। রেজিয়া আক্তার একক মালিক হিসেবে ১৭৮ শতক জমি কৃষক মো. আবদুল্লাহর কাছে বিক্রি করেন। সরকার বিদ্যুৎ প্রকল্পের জন্য ওই জমি অধিগ্রহণ করে। জমির মালিকানা সংক্রান্ত কাগজ ও খতিয়ান আবদুল খালেকের নামে থাকায় অধিগ্রহণের টাকা তুলতে গিয়ে জটিলতায় পড়েন ওই কৃষক।

এজাহারে আরো বলা হয়েছে, সাক্ষীদের উপস্থিতিতে আমমোক্তারনামা দলিল রেজিস্ট্রি করে দেয়ার শর্তে আবদুল্লাহ অধিগ্রহণের টাকা থেকে আড়াই লাখ টাকা খালেককে দেয়ার চুক্তি করেন। চুক্তি অনুযায়ী আবদুল্লাহ টাকা দিয়েও দেন। কিন্তু জালিয়তি করে আবদুল খালেক ফেনী এল.এম অফিস থেকে জমি অধিগ্রহণের ১৬ লাখ ৪৮ হাজার টাকা তুলে আত্মসাৎ করেন। পরবর্তীতে তার কাছে টাকা ফেরত চাইলে তিনি আবদুল্লাহকে হয়রানি ও প্রাণনাশের হুমকি দেন।

পিবিআই ফেনীর এডিশনাল এসপি মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান জানান, আদালতের নির্দেশে কৃষক মো. আবদুল্লাহর মামলাটি তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া যায়। ১২ নভেম্বর প্রতারক আবদুল খালেকের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে আদালত। এরপরই তাকে গ্রেফতার করা হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর