সুযোগ পেলে কেমো দিবেন মোসাদ্দেক

ঢাকা, শুক্রবার   ২১ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ৭ ১৪২৬,   ১৬ শাওয়াল ১৪৪০

সুযোগ পেলে কেমো দিবেন মোসাদ্দেক

ম্যাশ মামুন ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২২:১৮ ২২ মে ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

আমি অবশ্যই ক্যান্সার রোগিকে দেয়া কেমোর কথা বলছিনা, বলছি মোসাদ্দেকের কথা। সাত কিংবা আট নাম্বারের যেই জায়গাটাতে একজন যোগ্য টর্নেডো খেলা ব্যাটসম্যানের গ্যাপ রয়ে গেছে আমাদের জাতীয় দলে, সেই জায়গায় মোসাদ্দেক হতে পারেন যোগ্য দাবীদার।

বড্ড বেমানান কিছু কি বলে ফেলেছি? যারা এমনটা ভাববেন, তাদের জন্য সঠিক ব্যাখ্যা হতে পারে নিচের বিশ্লেষণ।

মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, পরপর পাঁচ বার বিকেএসপির ট্রায়াল থেকে বাদ হয়ে যাওয়া সেই ক্রিকেটার। যিনি কিনা জায়গা পেয়েছেন এবারের বিশ্বকাপের টাইগার স্কোয়াডে।

এবারের ঢাকা প্রিমিয়ার লীগে ২০১৮-১৯ আসরে ছিলেন আবাহনীর অধিনায়কের দায়িত্বে। দলে ছিলেন মাশরাফীর মত বিশ্বসেরা অধিনায়ক, তবুও নতুন প্রতিভার খোঁজে দায়িত্বটা দেয়া হয় সৈকতের কাঁধেই। আস্থার প্রতিদান হিসেবে এবার আবাহনীকে পড়িয়েছেন শিরোপার মুকুট।

শুধু কি তাই, এত নিচের দিকে ব্যাট করতে নেমেও ছয় ফিফটির সঙ্গে করেছেন একটি আন্ডার প্রেশার সেঞ্চুরি। যার পুরষ্কার স্বরূপ জায়গা হয়েছে এবারের জাতীয় দলে।

অথচ সৈকতের বিশ্বকাপ স্কোয়াডে থাকা নিয়ে সমালোচনায় মেতে উঠেছিলো এক শ্রেনির মানুষ। তাদের ভাষ্য, পেস বলে প্রচণ্ড রকমের দুর্বল একটা ছেলে ইংল্যান্ডের উইকেটে কী করতে পারবে, সেটাই ভাবার বিষয়।

ক্রিকেট খেলোয়ারদের সমালোচনার জবাব নাকি মাঠে দিতে হয়, এটা বলেছেন সৈকত নিজেই। আয়ারল্যান্ডের মাটিতে সদ্য সমাপ্ত ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল ম্যাচে সাকিব আল হাসানের ইনজুরির সুবাদে সুযোগ পান তিনি। আর তাতেই মাঠে নেমে সঠিক জবাবটা দিয়েই দিলেন।  পাঁচটি বিশাল ছক্কা আর একটি চারের সমন্বয়ে নিজের ঝড়ো কেমো ইনিংস দিয়ে।

সেই সঙ্গে নিজের দ্রুততম ফিফটি তুলে প্রথমবারের মতো কোন বহুজাতিক আসরের সিরিজ জিতিয়েছেন দলকে। আগের ছয়টি ফাইনালে হারের দুঃস্বপ্ন তাড়া করা বাংলাদেশকে এনে দিলেন প্রথম শিরোপার স্বাদ।

ইতিহাস রচিত হওয়া এই ম্যাচের সেরা খেলোয়ার হয়ে জবাব দিলেন সব সমালোচনার। 

এই সৈকতই যদি হন বিশ্বকাপে সাত নাম্বার পজিশনের প্রথম পছন্দ, তবে আস্থার প্রতিদান দিতে বিন্দুমাত্র ভুল যে এই অলরাউন্ডার করবেন না, সেটা অনুমেয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/সালি