Alexa সিঁধেল চোরদের আড্ডাখানা থেকে চলচ্চিত্রের শহর

ঢাকা, সোমবার   ২১ অক্টোবর ২০১৯,   কার্তিক ৫ ১৪২৬,   ২১ সফর ১৪৪১

Akash

ফ্রান্সের উপকূলঘেঁষা শহর কান

সিঁধেল চোরদের আড্ডাখানা থেকে চলচ্চিত্রের শহর

নুরুল করিম ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০৯:২৮ ১৬ মে ২০১৯   আপডেট: ১০:৫৭ ১৬ মে ২০১৯

এ শহরের সবচেয়ে জনপ্রিয় উৎসব ‘কান চলচ্চিত্র উৎসব’

এ শহরের সবচেয়ে জনপ্রিয় উৎসব ‘কান চলচ্চিত্র উৎসব’

শিল্প-সাহিত্যের দেশ হিসেবে ফ্রান্সের খ্যাতি দুনিয়া জোড়া। সেই দেশেই সাগরঘেসা ছোট্ট একটি শহর কান। সেখানেই বসে চলচ্চিত্র দুনিয়ার অন্যতম মর্যাদাপূর্ণ চলচ্চিত্র উৎসব ‘কান চলচ্চিত্র উৎসব’। বিশ্বের সকল প্রান্তের সিনেমাপ্রেমীদের কাছে এই আসরের আলাদা একটি মর্যাদা আছে। কিন্তু ইতিহাস মতে, এই শহর একসময় ছিল সিঁধেল চোরদের আড্ডাখানা। তবে তাদেরকে ছেঁচড়া চোর ভাবার কোনো সুযোগ নেই!

দক্ষিণ উপকূলঘেঁষা এই শহরে কখনোই সম্পদের কমতি ছিল না। কারণ এটি প্রসাধন ব্যবসায়ীদের ‌‘স্বর্গ’। যেখানে এত এত সম্পদের পাাহাড় সেখানেই তো হানা দেয় মাফিয়ারা। এটাই স্বাভাবিক! কানেও এর ব্যতিক্রম হয়নি। শহরের এই রাস্তাটির বুকে লেগে আছে সবচেয়ে বড় এবং মারাত্মক কিছু স্বর্ণ ডাকাতির ইতিহাস। এরমধ্যে অন্যতম কার্লটন হোটেলে ঘটে যাওয়া ২০১৩ সালের ঘটনাটি। পিংক প্যান্থার ডাকাত দলের একজন হীরা প্রদর্শনী থেকে ১০৩ মিলিয়ন ইউরো দামি রত্ন বাগিয়ে নিয়েছিল। মজার বিষয় হল, এটাই বিশ্বের সেরা ডাকাতি হিসেবে ধরা হয়।

একসময় শহরের অলি-গলিতে ছিল সিঁধেল চোরের আড্ডা

সে বছর আরেকটি বিশ্ব আলোচিত চুরির ঘটনা ঘটে। চলচ্চিত্র উৎসব থেকে ১.৬ মিলিয়ন ইউরোর নেকলেস চুরি হয়। এছাড়া ৬৮তম কান চলচ্চিত্র উৎসবের কয়েকদিন আগে একটি দোকান থেকে ১৭.৫ মিলিয়ন ইউরোর স্বর্ণ চুরি হয়। সিনেমাপ্রেমীদের শহরে এসব গল্প নিয়ে সিনেমা হবে না, তা হয় নাকি! মাস্টার অব সাসপেন্স আলফ্রেড হিচককের ১৯৫৫ সালের ধ্রুপদি সিনেমা টু ক্যাচ আ থিফ এর কিছু অংশ তিনি করেছিলেন কার্লটন হোটেলের একজন রিভেরা সিঁধেল চোরকে নিয়ে।

এই শহরে আরো বড় বড় বেশ কিছু ঘটনা ঘটেছে। ১৮১৫ সালে এলবা থেকে পালিয়ে আসার সময় এখানে বিশ্রাম নিয়েছিলেন সম্রাট নেপোলিয়ন। উপকূল হওয়ায় বাণিজ্যে খ্যাতিও ছিল বেশ। ১৯৩৯ সালে ফ্রান্স সরকার ইতালির ভেনিস চলচ্চিত্র উৎসবকে টেক্কা দেয়ার কথা ভাবলো। আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব নাম হলেও ইতালির উৎসবটা তখন হতো হিটলার এবং তার বন্ধু মুসোলিনির ইচ্ছামতো হতো। মূলত ফ্রান্সের শিক্ষামন্ত্রীর প্রচেষ্টায় যুক্তরাষ্ট্র এবং ব্রিটেনের সহায়তায় ২য় বিশ্বযুদ্ধের পর ১৯৪৬ সালে ফ্রান্সের কান শহরে বসে চলচ্চিত্রের প্রথম পূর্ণ আসর। ব্যস! চোরদের আড্ডার বদলে চলচিত্রের শহর হিসেবে পরিচিত শুরু করে কান।

চলচ্চিত্র উৎসবের ৭২ তম আসর চলছে এখন

এখন চলছে কান চলচ্চিত্র উৎসবের ৭২ তম আসর। ১৯৪৬ সাল থেকে প্রতি বছর এই উৎসব পালিত হয়ে আসছে। প্রতি বছর সাধারণত মে মাসে এই উৎসব পালিত হয়। ‘পালে দে ফেস্তিভালস এ দে কোঁগ্র’ নামক ভবনটিতে মূল উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। মূলত কান উৎসবের জন্যই এই ভবন নির্মাণ করা হয়েছিল। এবারের উৎসব চলবে ২৫ মে পর্যন্ত। কানে একদিকে ছবিগুলোর উদ্বোধনী প্রদর্শন হচ্ছে, অন্যদিকে মুহূর্তেই বিশ্বজোড়া সিনেমাপ্রেমীদের কাছে সেগুলো হয়ে উঠছে আলোচনার মূল বিষয়বস্তু। বরাবরের মতো কানের জমকালো রেড কার্পেটে হলিউড এবং বলিউডসহ বিশ্বের নানা দেশের জনপ্রিয় এবং আলোচিত তারকাদের দেখা মিলছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে