সান্তাহারে বাদল হত্যার আসামি এক মাসেও অধরা

ঢাকা, সোমবার   ২৪ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ১২ ১৪২৬,   ১৯ শাওয়াল ১৪৪০

সান্তাহারে বাদল হত্যার আসামি এক মাসেও অধরা

আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:৫৫ ১৩ জুন ২০১৯   আপডেট: ১৮:৫৬ ১৩ জুন ২০১৯

আদমদীঘির সান্তাহার পশ্চিম লকু কলোনীতে বাসায় ঢুকে বাদল শেখ নামের এক যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা মামলার একমাত্র আসামি নিহতের বন্ধু রেজাউল করিম এখনও অধরা রয়েছে। রেজাউল করিম নওগাঁর বালুডাঙ্গা হাজি আমবাগান এলাকার আফতাব আলী ছেলে। পুলিশের তৎপরতার অভাবে তাকে এক মাসেও গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি।

বৃহস্পতিবার নিহতের বাবা শহিদুল ইসলাম সাংবাদিকের বলেন, আসামি মাঝে মধ্যে এলাকায় ঘোরাফেরা করলেও গ্রেফতার হচ্ছে না।

আদমদীঘ উপজেলার সান্তাহার পশ্চিম লকু কলোনী এলাকার জামাল মিস্ত্রীর ছেলে বাদল শেখ ও নওগাঁর বালুডাঙ্গা হাজি আমবাগানের রেজাউল করিমের সাথে বন্ধুত্ব গড়ে উঠে। সেই সুবাদে একে অপরের বাসায় যাতায়াত করেতা। এক পর্যায়ে রেজাউল ইসলাম তার বন্ধু বাদলের স্ত্রীর মধ্যে পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে উঠায় বাদলের স্ত্রী নার্গিস বেগমকে রেজাউল করিম বিয়ে করে। এর ৬ মাস পর রেজাউল করিমের স্ত্রী ফাতেমা বেগমকেও নিহত বাদল শেখ বিয়ে করে। পরকীয়ার টানে একে অপরের স্ত্রীকে বিয়ে করায় উভয়ের মধ্যে বিরোধের সৃষ্টি হয়।  এক পর্যায়ে গত ১৫ মে দুপুরে রেজাউল করিম সন্তান দেখার অজুহাতে সান্তাহার বাদলের ভাড়া বাসায় গিয়ে গালিগালাজ ও হুমকি দিয়ে যায়। এরপর রাতে রেজাউল করিম বাদলের ভাড়া বাসায় ঢুকে বাদলকে উপুর্যপুরি ছুরিকাঘাতে করার পর রাতে বাদল শেখ বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। এ ঘটনায় নিহত বাদলের বাবা রেজাউল করিমকে আসামি করে আদমদীঘি হত্যা মামলা করেন।

মামলার তদন্তকারী টিএসআই আব্দুল ওয়াদুদ বলেন, আসামি অত্মগোপনে থাকায় গ্রেফতারে বিলম্ব হচ্ছে, তবে গ্রেফতারে জোর তৎপরতা চলছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম