.ঢাকা, শনিবার   ২৩ মার্চ ২০১৯,   চৈত্র ৯ ১৪২৫,   ১৬ রজব ১৪৪০

সাকিবের অস্ত্রোপচার কখন করা উচিৎ?

ক্রীড়া প্রতিবেদক

 প্রকাশিত: ১৩:০৩ ১০ আগস্ট ২০১৮   আপডেট: ১৫:০১ ১০ আগস্ট ২০১৮

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

বছরের শুরুতে ত্রিদেশীয় সিরিজে আঙ্গুলের ইনজুরিতে পড়েছেন সাকিব আল হাসান। ইনজেকশন নিয়েই শেষ করেছেন উইন্ডিজ সফর। 

এবার সাকিব বলছেন, এশিয়া কাপের আগেই অস্ত্রোপচার করতে চান। যদিও বোর্ড সভাপতি চাইছেন জিম্বাবুয়ে সিরিজে সময় অলরাউন্ডারের এই অপারেশন করতে। 

সাকিব কখন অস্ত্রোপচার করবেন সেটা সাকিবের উপর ছেড়ে দেয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ। একমাত্র তিনিই জানেন তার হাতের অবস্থা সম্পর্কে। সাকিবের উপর এ ব্যাপারে চাপ প্রয়োগ করা কতটা ঠিক হবে তা একটি বড় প্রশ্ন। 

বিশেষত অস্ত্রোপচারের ব্যাপারে বোর্ড সভাপতির বক্তব্যই অনেকটাই প্রশ্নবিদ্ধ। এ ব্যাপারে কথা বলতে পারেন কেবল সাকিব এবং চিকিৎসক। 

দ্বিতীয়ত, ইনজুরি অবস্থায় খেলে আঙ্গুলের অবস্থা আরো খারাপের দিকে যায় তার দায় কী বিসিবি সভাপতি নিবেন? সামনেই বিশ্বকাপ। এর আগে রিস্ক নিয়ে খেলা মানেই ইনজুরি প্রবণতার হার বেড়ে যাওয়া। আর  বড়সড় কোনো ইনজুরিতে পড়ে গেলে বিশ্বকাপই মিস করতে পারেন দলের প্রানভোমরা। 

সাকিববিহীন এশিয়া কাপ বাংলাদেশ দলের জন্যই একটি এসিড টেস্ট হতে পারে। বিশ্বকাপের আগে দল গোছাতে স্টিভ রোডস দেখে নিতে পারেন সাকিববিহীন দলের শক্তিমত্তা। একই সঙ্গে বড় টুর্নামেন্টে জুনিয়রদের নার্ভ ধরে রাখার একটি পরিক্ষাও হয়ে যেতে পারে এতে। 

বিশ্বকাপের আগে এশিয়া কাপের মাধ্যমে প্রায় দুইজন খেলোয়াড় দেখে নেওয়ার সুযোগ পাচ্ছে বাংলাদেশ। এতে করে বিকল্প খেলোয়াড় তৈরির সম্ভবনাও তৈরি হচ্ছে। বিশেষত মোসাদ্দেক ও মমিনুলকে দেখে নেওয়ার বড় সুযোগ পেতে পারেন স্টিভ রোডস। 

অন্যদিকে, সাকিব যদি এশিয়া কাপের আগে অস্ত্রোপচার করেন তাহলে, জিম্বাবুয়ে বিপক্ষে দুটি টেস্ট এবং উইন্ডিজের বিপক্ষে দুটি টেস্টই খেলতে পারবেন। দেশের মাটিতে টেস্ট জয়ের জন্য এখনো সাকিবের বিকল্প টাইগারদের হাতে নেই। 

অর্থাৎ চারটি টেস্ট জয়ের সম্ভাব্য সুযোগ পেতে পারে বাংলাদেশ। কেননা, চারটি টেস্টই দেশের মাটিতে। সাকিবিহীন চারটি টেস্ট জয়ের মতো অবস্থা বাংলাদেশের ঠিক কতোটা আছে তা গবেষণা করা উচিৎ। অতএব বোর্ড সভাপতি কতোটা দূরদৃষ্টি সম্পন্ন হবেন তার উপরেই নির্ভর করছে অনেক কিছু। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এমএইচ/টিএএস