সাংবাদিককে মারধর, মুখে প্রস্রাবও করল পুলিশ

ঢাকা, রোববার   ১৬ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ২ ১৪২৬,   ১১ শাওয়াল ১৪৪০

সাংবাদিককে মারধর, মুখে প্রস্রাবও করল পুলিশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:৩৮ ১২ জুন ২০১৯   আপডেট: ১৮:৪৩ ১২ জুন ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

ভারতে সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে রেল পুলিশের ভয়াবহ রোষানলের শিকার হয়েছেন দেশটির এক সাংবাদিক। পুলিশ সদস্যরা তাকে শুধু গালিগালজ নয়, তার শরীরে হাত তোলা সহ জামাকাপড় খুলে তার ওপর প্রস্রাব পর্যন্ত করেছে বলে অভিযোগ করেছেন ভূক্তভোগী সেই সাংবাদিক। 

সম্প্রতি ভারতের উত্তর প্রদেশের শামলি এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে বলে দেশটির সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়াট্যুডে জানিয়েছে।

তারা জানায়, রাজ্যটির স্থানীয় একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের সাংবাদিককে বেধড়ক পিটিয়েছেন রেল পুলিশের এক কর্মকর্তা। ওই সাংবাদিককে চড়, কিল, ঘুঁষি মারার পাশাপাশি ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়া হয় মাটিতে। হাত থেকে কেড়ে নিয়ে আছড়ে ভাঙা হয় ভিডিও ক্যামেরা। পরে শার্টের কলার ধরে টেনে নিয়ে গিয়ে সেই সাংবাদিককে পোরা হলো গারদে।

মঙ্গলবার রাতে উত্তরপ্রদেশের শামলির ধীমানপুরায় একটি মালগাড়ির লাইনচ্যুত হওয়ার ঘটনার খবর করতে গিয়েছিলেন ওই সাংবাদিক। সারা রাত গারদে আটক করে রাখা হয় তাকে। এ ঘটনার ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যাওয়ার পর চাপের মুখে তাকে বুধবার ছেড়ে দেয়া হয়। জিআরপির অভিযুক্ত স্টেশন হাউস অফিসার (এসএইচও) রাকেশ কুমার ও তার সঙ্গী কনস্টেবল সঞ্জয় পওয়ারকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

পরে লিখিত অভিযোগে সেই সাংবাদিক বলেছেন, ‘সাদা পোশাকে ছিলেন জিআরপির পুলিশকর্মীরা। গারদে পোরার পর আমার জামাকাপড় খুলে নেয়া হয়। আমার মুখে প্রস্রাব করেন পুলিশকর্মীরা।’

 

#WATCH Shamli: GRP personnel thrash a journalist who was covering the goods train derailment near Dhimanpura tonight. He says, "They were in plain clothes. One hit my camera&it fell down. When I picked it up they hit&abused me. I was locked up, stripped&they urinated in my mouth" pic.twitter.com/nS4hiyFF1G

— ANI UP (@ANINewsUP) June 11, 2019

ঘটনাস্থলে থাকা অন্য সাংবাদিকরা বাধা দিতে গেলে, তাদের সঙ্গেও তর্ক করতে দেখা যায় জিআরপির ওই অভিযুক্ত স্টেশন হাউস অফিসারকে। জিআরপির অভিযোগ, ওই সাংবাদিক তাদের বিরুদ্ধে খবর করেছিলেন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় দ্রুত ছড়িয়ে পড়া কয়েকটি ভিডিওতে দেখা যায়, গারদের ভেতর থেকে জিআরপির অফিসার রাকেশ কুমারকে লক্ষ্য করে অভিযোগ করছেন ওই সাংবাদিক। আর সামনে একটি চেয়ারে বসে রাকেশ গারদে আটক সাংবাদিকের সব অভিযোগ উড়িয়ে দিচ্ছেন।

মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের বিরুদ্ধে টুইট করার দায়ে সাংবাদিক প্রশান্ত কানোজিয়াকে গ্রেফতারের জন্য এক দিন আগেই উত্তরপ্রদেশ সরকারকে ভর্ৎসনা করে দেশটির সুপ্রিম কোর্ট। ওই সাংবাদিককে অবিলম্বে মুক্তির নির্দেশ দেয়া হয়। 

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী