Alexa সরিষাবাড়িতে জমি নিয়ে সংঘর্ষ, আহত ২০

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২২ অক্টোবর ২০১৯,   কার্তিক ৭ ১৪২৬,   ২৩ সফর ১৪৪১

Akash

সরিষাবাড়িতে জমি নিয়ে সংঘর্ষ, আহত ২০

জামালপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:১৭ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আপডেট: ২১:১৮ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলায় জমি নিয়ে বিরোধের জেরে দু’পক্ষের সংঘর্ষ হয়েছে।বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার ভাটারা ইউপির কৃষ্ণপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

এ সময় বাড়ি ঘরে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে। এতে উভয় পক্ষের নারী-পুরুষসহ অন্তত ২০ জন আহত হন। গুরুতর আহতদের সরিষাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। 

ভাটারা ইউপির কৃষ্ণপুর গ্রামে হাবিবুর রহমানের ছেলে আতাউর রহমান ও মেয়ে মাহফুজা বেগমের বিয়ে হয় প্রতিবেশী সোবাহান মণ্ডলের ছেলে করিম মুন্সির সঙ্গে। চার বছর আগে মাহফুজা বেগমের কাছে বাড়িসহ সাড়ে ৭ শতাংশ জমি বিক্রি করেন আতাউর রহমান। জমি কেনার পর ভোগ দখল করে আসছেন মাহফুজা বেগম। চার বছর পর জমি ফেরত চান আতাউর রহমান। এ নিয়ে দুই ভাই-বোনের মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। জমি ফেরত না দেয়ায় বুধবার বিরোধপূর্ণ জমিতে ঘর তুলে জবর দখলের চেষ্টা করেন আতাউর রহমানের সমর্থকরা। এতে বাধা দেয় মাহফুজা বেগমের স্বামী করিম মুন্সিসহ তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন। 

এ ঘটনার জেরে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত উভয় পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া, পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সংঘর্ষ চলার সময় প্রতিপক্ষ আতাউর রহমানের সমর্থকরা ধারাল অস্ত্রসহ লাঠিসোটা নিয়ে মাহফুজা বেগম ও তার সমর্থক আব্দুল জব্বার, হাসেন আলী, রবিউল ইসলাম, লিটন মিয়া, রহিম উদ্দিন ও ফকির  হোসেনের সাতটি বাড়ি ঘরে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর ও মালামাল লুটপাট করে নিয়ে যায়।

সন্ত্রাসী হামলায় গুরুতর আহতদের স্থানীয়রা উদ্ধার করে সরিষাবাড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। আহতরা হলেন মাহফুজা বেগম (৪২), করিম মুন্সি (৪৮), সালেহা বেগম (৫০), জুলেখা বেগম (২৮), মেহেদী বেগম (৪৫), লালন মিয়া (১৫), মজিবুর রহমান (৮৫), ছালেহা বিবি (৭০), মর্জিনা বেগম (৪০), খোরশেদ আলম (৪২) হেলেনা বেগম (৩৪) ও বিথি আক্তার (২০)।

মাহফুজা বেগম জানান, চার বছর আগে বাড়িসহ সাড়ে ৭ শতাংশ জমি বিক্রি করে আতাউর রহমান। এরপর থেকেই তিনি জমিতে বসবাস করে আসছেন। হঠাৎ করেই জমি ফেরত চাইলে তিনি তা দিতে অস্বীকার করলে আতাউর তার বাড়িঘর ভাঙচুর করে সবকিছু লুট করে নিয়ে যায়।

আব্দুল জব্বার জানান, মাহফুজা জমি ফেরত না দেয়ার কারণেই আতাউর গংরা এ নারকীয় হামলা চালিয়ে তাদের ঘরবাড়ি ভাঙচুরসহ লুটপাট করে। তাদের হামলায় তাদের অনেকেই আহত হয়েছেন। অতিদ্রুত হামলাকারীদের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে।

লিটন মিয়া জানান, জমি বিক্রি করার পর পুনরায় ফেরত চাওয়ার বিষয়টি রহস্যজনক। এ ঘটনার প্রতিবাদ করতে গেলে এ সন্ত্রাসী হামলা হয়।

হোসেন ফকির জানান, তাদের সাতটি বাড়ি ভাঙচুরসহ সমস্ত মালামাল লুটপাট করেছে। তারা এ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের বিচার চান।

এ ব্যাপারে সরিষাবাড়ি থানার ওসি মাজেদুর রহমান বলেন, ওই সংঘর্ষের ঘটনায় কোনো পক্ষ থেকে থানায় কেউ অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ