.ঢাকা, রোববার   ২৪ মার্চ ২০১৯,   চৈত্র ১০ ১৪২৫,   ১৭ রজব ১৪৪০

সব আমল নষ্টের মূলে শিরক (পর্ব ৪)

প্রিয়ম হোসেন

 প্রকাশিত: ১৯:২৯ ১৪ জানুয়ারি ২০১৯   আপডেট: ১৯:৩৩ ১৪ জানুয়ারি ২০১৯

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

শিরক হচ্ছে সব পাপের বড় পাপ। যা আল্লাহ তায়ালা কখনোই ক্ষমা করবেন না। যদি কোনো ব্যক্তি আল্লাহর সঙ্গে শিরক করে মারা যায় তাকে চিরস্থায়ী জাহান্নামে থাকতে হবে। 

শিরকের ভয়াবহতা এত বেশি যে, শিরক মানুষের সব আমল নষ্ট করে দেয়, মানুষকে চিরস্থায়ী জাহান্নামের দিকে ঠেলে দেয়। 

প্রিয় পাঠক, শিরক নিয়ে ধারাবাহিক আলোচনার চতুর্থ পর্ব দেয়া হলো। আসুন, আমরা শিরক থেকে মুক্ত থাকি।
 
মন নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে ভাগ্য পরিবর্তন: সিলভা, কোয়ান্টাম বা অন্য কোনো মেথড এর (পদ্ধতি) দ্বারা মন নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটানো এবং সব সমস্যার সমাধান লাভ করার মাধ্যমে জীবনে সফলতা অর্জন করার কথা বলা।

গ্রহ নক্ষত্রের তা‘ছীর (প্রভাব): অনেকের ধারণা মানুষের ভালো-মন্দ, বিপদ-আপদ, উন্নতি-অবনতি ইত্যাদি গ্রহ-নক্ষত্রের প্রভাবে হয়। কেউ বিপদে পড়লে বলা হয়, ‘এ ব্যক্তির ওপর শনি গ্রহের প্রভাব পড়েছে’ বা রাহুগ্রাস হয়েছে। কারো আনন্দের খবর শুনলে বলা হয়ে থাকে, ‘এ ব্যক্তি মঙ্গল গ্রহের নজরে, সু নজরে আছে’।

চন্দ্র ও সূর্য্য গ্রহণের প্রভাব: অনেকের ধারণা চন্দ্র ও সূর্য্য গ্রহণ মানুষের ভালো-মন্দ, জন্ম-মৃত্যু, বিপদ-আপদের ওপর প্রভাব বিস্তার করে।

গাইরুল্লাহর নামে কসম করা: আব্দুলাহ ইবনু ওমর (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি গাইরুল্লাহর নামে কসম করল, সে কুফরী করল অথবা শিরক করল’। (হাদীছ ছহীহ। তিরমিযী, হা/১৫৩৫)। মূলত: আল্লাহ ব্যতীত অন্য কোনো নামে কসম করলে কসম হয় না। যেমন- রাসূলুল্লাহর (সা.) কসম, কাবা ঘরের কসম, নিজ চোখের কসম, বাবা-মায়ের কসম, বিদ্যা বা বই এর কসম ইত্যাদি।

আলাহর নৈকট্য লাভের জন্য পীর, ওলী বা বুযুর্গ ব্যক্তির অসীলা গ্রহণ: আলাহকে পাওয়ার জন্য, তাঁর নৈকট্য ও সন্তুষ্টি লাভের লক্ষ্যে, ক্ষমা ও সাহায্য পাওয়ার জন্য কোনো জীবিত বা মৃত পীর, ওলী বা বুযুর্গ ব্যক্তিকে অসীলা বা মাধ্যম হিসাবে গ্রহণ করা।

আলাহ ছাড়া অন্য কেউ জীবন বিধান প্রণেতা: আল্লাহ তায়ালাই একমাত্র মানব জাতির সার্বিক উন্নতির জন্য আইন বিধানের অধিকার রাখেন। এ কাজের যোগ্য তিনি ছাড়া আর কেউ নন। (সূরা ইউসুফ-১২:৪০) কোনো ব্যক্তি, শক্তি, প্রতিষ্ঠান, প্রশাসন অথবা কোনো দল যদি আলাহর দেয়া বিধানের হালালকে যদি হারাম করে আর হারামকে হালাল করে তা মেনে নেয়া শিরক।

এ ধরনের কাজ শিরকের অন্তর্ভূক্ত। মহান আল্লাহ যেন আমাদের সব ধরনের শিরক থেকে মুক্ত রাখেন, আল্লাহুম্মা আমিন।

(চলবে) 

আরো পড়ুন>>> সব আমল নষ্টের মূলে শিরক (পর্ব- ৩)​

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএজে