সবজির বাজার চড়া, কমেছে মাছের দাম
SELECT bn_content.*, bn_bas_category.*, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeInserted, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeInserted, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeUpdated, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeUpdated, bn_totalhit.TotalHit FROM bn_content INNER JOIN bn_bas_category ON bn_bas_category.CategoryID=bn_content.CategoryID INNER JOIN bn_totalhit ON bn_totalhit.ContentID=bn_content.ContentID WHERE bn_content.Deletable=1 AND bn_content.ShowContent=1 AND bn_content.ContentID=191727 LIMIT 1

ঢাকা, শনিবার   ০৮ আগস্ট ২০২০,   শ্রাবণ ২৫ ১৪২৭,   ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

Beximco LPG Gas

সবজির বাজার চড়া, কমেছে মাছের দাম

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:৪৪ ৩ জুলাই ২০২০  

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে আলু, পটল, বেগুন, বরবটি, ঢেঁড়স, ধুন্দল, ঝিঙে, করলা, পেঁপেসহ প্রায় সব ধরনের সবজি। তবে কিছুটা কমেছে মাছের দাম। সপ্তাহের ব্যবধানে বেশিরভাগ মাছের দাম কেজিতে ২০ থেকে ৪০ টাকা কমেছে।

শুক্রবার বিভিন্ন বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মান ও বাজারভেদে বেগুনের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ১০০ টাকা। গাজরের কেজি মানভেদে ৮০ থেকে ১২০ টাকা। পাকা টমেটোর কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৮০ টাকা। গত সপ্তাহেও এ সবজিগুলোর দাম এমন চড়া ছিল।

শুধু বেগুন, গাজর, টমেটো নয়; বাজারে এখন সব ধরনের সবজি চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে। বাজারভেদে বরবটির কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৮০ টাকা। চিচিংগার ৫০ থেকে ৬০ টাকা, পেঁপে ৪০ থেকে ৫০ টাকা, পটল ৩০ থেকে ৫০ টাকা, করলা ৫০ থেকে ৭০ টাকা, ঝিঙে ৫০ থেকে ৬০ টাকা, কচুর লতি ৪০ থেকে ৬০ টাকা, কচুর মুখী ৬০ থেকে ৭০ টাকা, কাকরোল ৬০ থেকে ৭০ টাকা, ঢেঁড়স ৩০ থেকে ৫০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। আলুর কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৮ থেকে ৩২ টাকা।

সবজির দামের বিষয়ে খিলগাঁওয়ের ব্যবসায়ীরা জানান, ‌দুই সপ্তাহ ধরেই বাজারে সব ধরনের সবজির দাম কিছুটা বাড়তি। এখন বাজারে তুলনামূলক সবজির সরবরাহ কম। এর মধ্যে উত্তরাঞ্চলে বন্যা দেখা দিয়েছে। এতে সামনে সবজির দাম আরো বাড়াতে পারে।

সবজির পাশাপাশি চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে কাঁচামরিচ। বাজারভেদে কাঁচামরিচের পোয়া (২৫০ গ্রাম) ৩০ থেকে ৪০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। ডিম ও মুরগির দামও কিছুটা বাড়তি। ডিমের ডজন আগের মতো ১০০ থেকে ১০৫ টাকা বিক্রি হচ্ছে। ব্রয়লার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ১৭০ টাকা। লাল লেয়ার মুরগি ২২০ থেকে ২৫০ টাকা এবং সোনালী মুরগি ২৭০ থেকে ২৯০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

ডিমের দামের বিষয়ে হাজীপাড়ার ব্যবসায়ীরা বলেন, ‌দুই সপ্তাহ ধরে ডিমের দাম একটু বেশি। আগে ডিমের ডজন ৯৫ টাকা বিক্রি করেছি। দুই সপ্তাহ ধরে ১০৫ টাকা বিক্রি করেছি। তিনি বলেন, ফার্মে এখন ডিম উৎপাদন কম হচ্ছে। তাছাড়া মুরগির দাম বাড়তি। এ কারণেই হয়তো ডিমের দাম বেড়েছে।

সবজি, ডিম, মুরগির দাম কিছুটা চড়া হলেও কিছুটা স্বস্তি দিচ্ছে পেঁয়াজের দাম। দেশি পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩৫ থেকে ৪৫ টাকা বিক্রি হচ্ছে। আর আমদানি করা পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৫ থেকে ৩০ টাকা।

এদিকে সপ্তাহের ব্যবধানে কিছুটা কমেছে মাছের দাম। ২০ থেকে ৪০ টাকা কমে রুই মাছ বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ৪০০ টাকা কেজি। এছাড়া পাঙাশ ১২০ থেকে ১৭০ টাকা, তেলাপিয়া ১২০ থেকে ১৬০ টাকা, পাবদা ৩০০ থেকে ৪৫০ টাকা, কাঁচকি ২৫০ থেকে ৩৫০ টাকা, সরপুঁটি (চায়না পুঁটি) ১৬০ থেকে ২৫০ টাকা, দেশি পুঁটি ৫০০ থেকে ৭০০ টাকা, ট্যাংরা ৫৫০ থেকে ৭০০ টাকা, শিং ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা, চিংড়ি ৪০০ থেকে ৯০০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

আর ইলিশ মাছ আগের মতোই এক কেজি সাইজের ১০০০ থেকে ১২০০ টাকা। ৫০০ থেকে ৭৫০ গ্রামের ইলিশ ৭৫০ টাকা থেকে ৮০০ টাকা এবং ছোট ইলিশ আকারভেদে ৩০০ থেকে ৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

মাছের দামের বিষয়ে রামপুরার ব্যবসায়ীরা বলেন, গত সপ্তাহের তুলনায় আজ সব ধরনের মাছ কেজিতে ২০ থেকে ৪০ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে। তবে ইলিশের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। মূলত এখন বাজারে ইলিশের সরবরাহ কম, এর সঙ্গে চাহিদাও কম। যে কারণে ইলিশের দাম বাড়েনি। একটু চাহিদা বাড়লেই ইলিশের দাম বেড়ে যাবে।’

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএএম