মায়ের জন্ম!

ঢাকা, বুধবার   ২৭ মে ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ১৩ ১৪২৭,   ০৩ শাওয়াল ১৪৪১

Beximco LPG Gas

মায়ের জন্ম!

সোহেলি সুলতানা লাবণী ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:২৯ ১১ মে ২০২০   আপডেট: ১৪:৪২ ১১ মে ২০২০

ছবি: প্রতীকী

ছবি: প্রতীকী

একটি শিশু পৃথিবীর আলোতে আসার পরই জন্ম হয় মায়ের। আসলে শিশুর জন্ম নাকি মায়ের জন্ম হয়? এ নিয়ে রয়েছে অনেক দ্বিধা। সৃষ্টিকর্তার সৃষ্টির মাঝে অনেক গোপন রহস্য লুকিয়ে রাখেন। এটিও এক রহস্য।

পৃথিবীতে মায়ের জন্ম সাধারণভাবেই হওয়ার কথা। তবে জানেন কি? এমনো মা আছেন, যিনি মা হয়েও সন্তানের মুখ থেকে মা ডাকটি শোনার জন্য আজীবন সংগ্রাম করে যান। আমি তাদের দলের একজন মা। সন্তানের সঙ্গে মায়ের অটুট বন্ধন থাকার পরও সৃষ্টিকর্তার রহস্যজনক বেড়াজালে আবদ্ধ থাকতে হয়।

আমার মেয়ে আমার পৃথিবী। যাকে নিয়ে আমি এক অনন্ত পথের যাত্রী। ঠোঁট-তালুতে সমস্যা থাকার কারণে কথা বলতে পারতো না। অথবা ও বললেও হয়ত আমার বোঝার ক্ষমতা ছিল না। যাই হোক এভাবেই চলছিল। 

আমার মেয়ের তখন সাড়ে আট মাস। ওর প্রথম অপারেশন হয়। অপারেশনের পর যখন তার জ্ঞান ফিরে তখনই মা ডাকটি আমার কানে ভেসে আসল। প্রথমে আমি এদিক ওদিক তাকালাম। এই অনুভূতিটা ঠিক পৃথিবীর সমস্ত ভাষা জড়ো করলেও বোঝানোর ক্ষমতা হবে না। 

পাশে ছিলেন এক ডাক্তার। আমার কান্না দেখে তিনি বললেন, আপনার মেয়ে আপনাকে ডাকছে। আমি জিজ্ঞেস করলাম, সত্যি শুনছি কিনা! তিনি বললেন আপনি সত্যিই শুনেছেন, আপনার বাচ্চাই আপনাকে ডাকছে। তিনি আরো বললেন, আসলে আরো আগে থেকেই আপনাকে সে মা বলেই ডাকে তবে আপনি এতোদিন বুঝতে পারেনি।

আলহামদুলিল্লাহ, আমার মনে হলো এবার বোধ হয় আমি সত্যিকার অর্থে মা হলাম। হাসপাতালে উপস্থিত আমার পরিবারের সবাই তখন আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়লেন। আমি সেই দিন থেকে অনুভব করি, মায়ের জন্ম হয়। এরপর থেকে আমার চারপাশে থাকা মায়েদের জন্ম দেখার জন্য অত্যন্ত আগ্রহী এবং যত্নশীল হয়ে উঠি।

আমার মেয়ের মতোই নিশান, নিশাত, সোহম, জুবায়ের, শান্ত, আদর, ইসতি, অহনাসহ অনেক শিশু আজ আমার মাধ্যমে তাদের মাকে ডেকেছে। ওদের মায়েদের মা হিসাবে জন্ম হয়েছে। আমি দেখেছি প্রতিটি মাই প্রথম মা ডাক শোনার পরে কান্নায় ভেঙে পড়েছেন।

আমি সেই সব মাকে জানাই অসম্ভব শ্রদ্ধা। এই সব শিশুরাও তাদের মায়ের মতোই আমাকে ভালোবেসেছে। তাই আমার মা হিসেবে জন্ম হয়েছে বারবার। জন্ম শুধু জন্মের মাঝেই সীমাবদ্ধ নয়, জন্মের মধ্যে আবদ্ধ আমার আজীবন।  

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস/এসআর