Alexa সকাল-সন্ধ্যা ঘোরাঘুরিতে প্রথম পছন্দ গাজীপুর

ঢাকা, সোমবার   ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০,   ফাল্গুন ৪ ১৪২৬,   ২২ জমাদিউস সানি ১৪৪১

Akash

সকাল-সন্ধ্যা ঘোরাঘুরিতে প্রথম পছন্দ গাজীপুর

শামসুল হক ভূঁইয়া, গাজীপুর ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:২৫ ২৬ ডিসেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১২:২৬ ২৬ ডিসেম্বর ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

গাজীপুরের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে বছরের শেষ সময়ে বেড়েছে ভ্রমণ পিপাসুদের আনাগোনা। যোগাযোগ ব্যবস্থার সুবিধা থাকায় ছুটির দিনগুলোতে রাজধানী ও আশপাশের জেলার মানুষ ঢু মারছেন এসব পর্যটন কেন্দ্রে।

এ জেলার পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে দিনে গিয়ে দিনেই ফিরে আসা যায়। এ কারণে সাপ্তাহিক ও সরকারি ছুটির দিনগুলোতে সবার প্রথম পছন্দ থাকে গাজীপুর।

শিল্পশহর গাজীপুরে হাজারো শিল্পকারখানার পাশাপাশি গড়ে উঠেছে ভাওয়াল জাতীয় উদ্যান, ভাওয়াল রাজবাড়ি, জমিদার বাড়ি, শ্মশান মন্দির, সাফারি পার্ক, টাকা, আইসিটি পার্ক, পিকনিক স্পট, রিসোর্টসহ অসংখ্য বিনোদন কেন্দ্র।

মুক্তিযুদ্ধের স্মারক ভাস্কর্য জাগ্রত চৌরঙ্গী

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের বোর্ডবাজারে রয়েছে দৃষ্টিনন্দন তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়। এগুলো হলো- ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজি, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ও উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়।

চান্দনা চৌরাস্তায় ঢাকা-টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ-গাজীপুর মহাসড়কের সংযোগস্থলে নির্মাণ করা হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের স্মারক ভাস্কর্য জাগ্রত চৌরঙ্গী।

এছাড়া গাজীপুর শহরেই রয়েছে ঐতিহাসিক ভাওয়াল রাজবাড়ি। এর পাশেই ভাওয়াল শ্মশান মন্দির। রাজবাড়ির পাঁচ কিলোমিটার পূর্বে বলদা জমিদার বাড়ি। বাড়িটি না থাকলেও রয়েছে মন্দিরের অংশবিশেষ।

কালিয়াকৈর উপজেলার মৌচাকে রয়েছে বঙ্গবন্ধু আইসিটি পার্ক ও বঙ্গবন্ধু ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়, বলিয়াদী ও শ্রীফলতলী জমিদার বাড়ি। এখানেই পাবেন অসংখ্য পিকনিক স্পট, রিসোর্ট।

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে নির্মিত বঙ্গবন্ধু স্মৃতি ভাস্কর্য

সালনা এলাকায় দেখা যাবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও ভাওয়াল জাতীয় উদ্যান। মহাসড়কের দুই পাশে প্রাকৃতিকভাবে জন্মানো শাল-গজারি বনে ঘেরা ভাওয়াল জাতীয় উদ্যান সৌন্দর্যের এক অপরূপ লীলাভূমি। সবুজে ঘেরা এ বনে এলেই যেন সবার ক্লান্তি দূর হয়ে যায় নিমেষেই।

ভ্রমণ পিপাসুদের জন্য উদ্যানের বিভিন্ন স্থানে নির্মাণ করা হয়েছে আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত রেস্ট হাউজ, কটেজ, কৃত্রিম লেক। লেকে রয়েছে বেশ কয়েকটি নৌকা।

পশ্চিমে ইন্দ্রপুরে রয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক। পার্কে উন্মুক্ত পরিবেশে ঘুরে বেড়াচ্ছে বাঘ, সিংহ, ভালুক, কুমির, জলহস্তি, হাতি, জিরাফ, জেব্রা, হরিণ, ক্যাঙ্গারু, ময়ূর। পার্কের দর্শনার্থীদের জন্য রয়েছে সুরক্ষিত ব্যবস্থা।

গাজীপুরের বিনোদন কেন্দ্রগুলো এতটাই কাছাকাছি যে, একটি স্থান ঘুরতে না পারলে মনে আফসোস রয়ে যায়। তাই দর্শনার্থীরা দিনের শুরুতে এসে চেষ্টা করেন সবগুলো স্থানের স্বাদ নিতে।

গাজীপুরের ডিসি এস.এম তরিকুল ইসলাম জানান, বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে দর্শনার্থীদের জন্য অনুকূল পরিবেশ বজায় রাখতে প্রশাসন সতর্ক রয়েছে। এসব স্থানে কোনো ধরনের অনিয়ম বরদাশত করা হবে না।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর