রোহিঙ্গা
শিরোনাম:
ডাকসু নির্বাচনের দাবিতে ভিসি’র অফিসের সামনে বিক্ষোভ-সমাবেশ করছে ঢাবি ছাত্রফ্রন্ট ও ছাত্র ফেডারেশন ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন এবং বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সদস্যরা লিংকরোড অবরোধ করেছে ব্লগার নিলয় হত্যার প্রতিবেদন দাখিল ১৫ নভেম্বর ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে জার্মানি, দ্বিতীয় ব্রাজিল, বাংলাদেশের অবস্থান ১৯৬তম ১৯ নভেম্বর মিয়ানমার যাচ্ছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিশ্ব ইজতেমা শুরু ১২ জানুয়ারি
শিরোনাম:
ডাকসু নির্বাচনের দাবিতে ভিসি’র অফিসের সামনে বিক্ষোভ-সমাবেশ করছে ঢাবি ছাত্রফ্রন্ট ও ছাত্র ফেডারেশন ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন এবং বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সদস্যরা লিংকরোড অবরোধ করেছে ব্লগার নিলয় হত্যার প্রতিবেদন দাখিল ১৫ নভেম্বর ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে জার্মানি, দ্বিতীয় ব্রাজিল, বাংলাদেশের অবস্থান ১৯৬তম ১৯ নভেম্বর মিয়ানমার যাচ্ছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিশ্ব ইজতেমা শুরু ১২ জানুয়ারি...

সংসদ ভাঙুন, সব প্রার্থীকে সমান সুযোগ দিন: সিপিবি

প্রকাশিত: ১৫:৪০, ১২ অক্টোবর ২০১৭

আপডেট: ১৬:৫৯, ১২ অক্টোবর ২০১৭

৯৬ বার পঠিত

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পূর্বেই বিদ্যমান জাতীয় সংসদ ভেঙে দিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে সমতা বিধান করা, নিরপেক্ষ নির্বাচন নিশ্চিত, প্রয়োজনে যে কোনও রাষ্ট্রীয় বাহিনি নিয়োগে কমিশনের পূর্ণ স্বাধীনতাসহ নির্বাচনী সংলাপে ইসির কাছে ১৭ দফা প্রস্তাব রেখেছে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)।

বৃহস্পতিবার (১২ অক্টোবর) আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সংলাপে দলটি এসব প্রস্তাব দেয়।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদার সভাপতিত্বে সিপিবির সঙ্গে ইসির মতবিনিময় সভায় দলটির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিমের নেতৃত্বে ১২ সদস্যের প্রতিনিধি দল অংশ নেয়।

সংলাপ শেষে সিপিবি সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম সাংবাদিকদের কাছে তাদের দলের উপস্থাপন করা সুপারিশমালা তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, ‘নির্বাচন ব্যবস্থার ওপর জনগণ আস্থা হারিয়ে ফেলেছে। ঘটনা আজ এমন অবস্থায় এসে উপনীত হয়েছে যে, চলতি নির্বাচনী ব্যবস্থাকে মৌলিকভাবে ঢেলে সাজানো ছাড়া তার ওপর মানুষের আস্থা ফিরিয়ে আনা সম্ভব হবে না। নির্বাচনকে অবাধ, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু করার জন্য ইসির কাছে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি বিভিন্ন সুপারিশ তুলে ধরেছে।’

সিপিবির প্রস্তাবগুলো হচ্ছে- তফসিল ঘোষণার পূর্বেই বিদ্যমান জাতীয় সংসদ ভেঙে দিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে সমতা বিধান করতে হবে; জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সব কর্মকাণ্ড পরিচালিত হবে ইসির অধীনে, কোনও সরকারের অধীনে নয়। এ উদ্দেশ্যে সংবিধানের প্রয়োজনীয় সংশোধন করতে হবে।

এছাড়া নির্বাচন কমিশনকে নিরপেক্ষ নির্বাচন নিশ্চিত করা ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষার প্রয়োজনে যে কোনও রাষ্ট্রীয় বাহিনি নিয়োগের ক্ষেত্রে পূর্ণ স্বাধীনতা দেওয়া।

নির্বাচনকালীন সময় সরকারের কর্তৃত্বকে সাংবিধানিকভাবে সংকুচিত করে তার অন্তর্বর্তীকালীন কাজ তত্ত্বাবধানমূলক ও অত্যাবশ্যক রুটিন কিছু কাজের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখতে হবে।

সংরক্ষিত নারী আসনের সংখ্যা ১০০ তে উন্নীত ও সরাসরি ভোট করতে হবে; নির্বাচিত প্রতিনিধি দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হলে ওই প্রতিনিধিকে প্রত্যাহারের বিধান করতে হবে; না ভোটের বিধান যুক্ত করতে হবে।

এছাড়া অনলাইনে মনোনয়ন জমা দেয়ার ব্যবস্থা করা; জাতীয়ভিত্তিক সংখ্যানুপাতিক প্রতিনিধিত্ব ব্যবস্থা চালু করা; জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাজনৈতিক দলের মনোনীত প্রার্থী হতে হলে কোনও ব্যক্তিকে কমপক্ষে ৫ বছর রাজনৈতিক দলের সক্রিয় সদস্য হতে হবে; নির্বাচনে মনোনয়ন বাণিজ্য বন্ধ করা; নির্বাচনকে সন্ত্রাস, পেশিশক্তির প্রভাব ও দুর্বৃত্তমুক্ত করা; নির্বাচনে ধর্মের অপব্যবহার রোধ করা।

সিপিবি সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিমসহ ১২ সদস্যের প্রতিনিধি দলে ছিলেন সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম, সহকারী সাধারণ সম্পাদক কাজী সাজ্জাদ জহির চন্দন, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য লক্ষ্মী চক্রবর্তী, রফিকুজ্জামান, মিহির ঘোষ, আব্দুল্লাহ ক্বাফী রতন, অনিরুদ্ধ দাশ, কেন্দ্রীয় কমিটির সম্পাদক আহসান হাবিব, রুহিন হোসেন প্রিন্স ও জলি তালুকদার।

এদিকে আজ দুপুর ২টায় গণতন্ত্রী পার্টির সঙ্গে সংলাপ করবে কমিশন।

গত ৩১ জুলাই সুশীল সমাজ, ১৬ ও ১৭ অগাস্ট গণমাধ্যম প্রতিনিধির সঙ্গে সংলাপের ২৪ অগাস্ট থেকে রাজনৈতিক দলের সঙ্গে ইসির মত বিনিময় শুরু হয়। এ পর্যন্ত ৩১টি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ করেছে ইসি।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ২৮ জানুয়ারির পূর্ববর্তী ৯০ দিনের মধ্যে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন করার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। গত ১৬ জুলাই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে রোডম্যাপ ঘোষণা করে ইসি। রোডম্যাপ অনুযায়ী চলছে সংলাপ।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিআরএইচ

Share With Friends!

সর্বাধিক পঠিত