সংসদ বিলুপ্ত, ফের অনিশ্চয়তায় শ্রীলংকা

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৩ মে ২০১৯,   জ্যৈষ্ঠ ৮ ১৪২৬,   ১৭ রমজান ১৪৪০

Best Electronics

সংসদ বিলুপ্ত, ফের অনিশ্চয়তায় শ্রীলংকা

 প্রকাশিত: ১৩:১০ ১০ নভেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৩:২৫ ১০ নভেম্বর ২০১৮

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

শ্রীলংকার প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনা সংসদকে বিলুপ্ত ঘোষণা করে আগামী ৫ই জানুয়ারিতে নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছেন। 

তিনি এক অফিসিয়াল গেজেটে জানান, শুক্রবার মধ্যরাত থেকে সংসদ বিলুপ্তির এ আদেশ কার্যকর হবে এবং আগামী ১৭ জানুয়ারির মধ্যে নতুন নির্বাচিত সরকার দায়িত্ব গ্রহণ করবে।  

দেশটির সংখ্যালঘু তামিলরা পার্লামেন্টে তার জোটকে সমর্থন দিতে রাজি না হওয়ার কয়েক ঘন্টার মধ্যে তিনি এ ঘোষণা দিলেন। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন তার নিযুক্ত নতুন প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দ রাজাপাকসে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোট পাবেন না। এটা বোঝার পরই তিনি পার্লামেন্ট ভেঙে দিয়ে আগামী নির্বাচনের ঘোষণা দেন বলে জানিয়েছে আল জাজিরা। 

বরখাস্তের বিষয়টি চ্যালেঞ্জ করে ২৭ অক্টোবর পার্লামেন্টের জরুরি অধিবেশন ডাকেন বিক্রমসিংহ। সংখ্যাগরিষ্ঠ সংসদ সদস্য তার পক্ষে রয়েছেন দাবি করে তিনি এ অধিবেশন ডেকেছিলেন। বিক্রমসিংহের এ দাবির পর পার্লামেন্টের অধিবেশন স্থগিত ঘোষণা করেন সিরিসেনা। এরপর আন্তর্জাতিক চাপের মুখে পার্লামেন্টের অধিবেশন ১৬ নভেম্বর থেকে এগিয়ে ৫ নভেম্বর পুনর্নির্ধারণ করলেও পরে তা পিছিয়ে দেন তিনি।

তবে সমালোচকদের দাবি প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালার এক সময়ের প্রতিপক্ষ মাহিন্দা রাজাপাকসেকে ক্ষমতায় নিয়ে আসতেই তিনি সংসদ বিলুপ্ত ঘোষণা দেন। মাহিন্দ রাজাপাকসে এ বিষয়ে একটি টুইট করেছেন। তাতে বলেছেন, জাতীয় নির্বাচনের মধ্য দিয়েই সত্যিকার অর্থে জনগণের ইচ্ছা প্রতিষ্ঠিত হবে এবং স্থিতিশীল দেশ গঠনের পথ বেরিয়ে আসবে। 

যদিও রনিল বিক্রমাসিংহর দল বলছে প্রধানমন্ত্রীকে বরখাস্ত করার ক্ষমতা প্রেসিডেন্টের নেই। সেই সঙ্গে মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার কেড়ে নেয়ায় সিরিসেনাকে অভিযুক্তও করে দলটির নেতাকর্মিরা। 

প্রেসিডেন্ট সিরিসেনার ইউনাইটেড পিপলস ফ্রিডম এলায়েন্সের (ইউপিএফএ) রয়েছে পার্লামেন্টে ৯৬টি আসনের সমর্থন। গত দু সপ্তাহে তারা আরো কমপক্ষে ৯টি আসনের সমর্থন আদায়ে সক্ষম হন। তাতে তাদের আসন সংখ্যা দাঁড়ায় ১০৫। যা সরকার গঠনের জন্য যথেষ্ট নয়। 

এদিকে ঘটনার পর পার্লামেন্টে ১৫ সংসদ সদস্য থাকা সংখ্যালঘু তামিল ন্যাশনাল অ্যালাইন্স বিক্রমসিংহকে সমর্থনের ঘোষণা দেয়। গেল ২০১৫ সালে দীর্ঘ সময় ধরে প্রেসিডেন্ট পদে থাকা রাজাপাকসেকে হারিয়ে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন সিরিসেনা।

ডেইলি বাংলাদেশ/এএইচ/টিআরএইচ/আরআই 

Best Electronics